• বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৬  |   ৩১ °সে
  • বেটা ভার্সন

ফুসফুসের ক্যানসার নির্ণয়ে মানুষের চেয়ে দক্ষ কম্পিউটার

  প্রযুক্তি ডেস্ক

২২ মে ২০১৯, ১৪:৫০
এআই
সিটিস্ক্যানের ফলাফল দেখে ফুসফুসের ক্যানসার নির্ণয়ে দক্ষ হয়ে উঠবে এআই (ছবি: নিউইয়র্ক টাইমস)

সিটিস্ক্যানে ফুসফুসের ক্যানসার নির্ণয়ের ফলাফল নিখুঁতভাবে দেখতে চিকিৎসকের চেয়ে কম্পিউটার দক্ষ। সম্প্রতি গুগল এবং বেশ কিছু চিকিৎসাকেন্দ্রের গবেষকদের প্রতিবেদন থেকে এমন তথ্যই জানা গেছে। তবে প্রযুক্তিটি এখনও গবেষণাধীন এবং সর্বস্তরে প্রয়োগের উপযুক্ত নয়।

সোমবার নেচার মেডিসিন  জার্নালে প্রকাশিত গবেষণা প্রতিবেদনে চিকিৎসাসেবায় কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার (এআই) ভবিষ্যৎ সম্পর্কে একটা ধারণা পাওয়া যায়।   

আগে মানুষ এক্স-রে, মাইক্রোস্কোপের স্লাইড এবং চিকিৎসাসেবার অন্যান্য রোগ নির্ণয় পরীক্ষার ফলাফল দেখে প্যাটার্ন নির্ণয় করা এবং ছবির অর্থ নির্ণয় করার মতো কৌশলগুলো ব্যবহার করত। তবে দিন দিন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তি ব্যবহার করে কম্পিউটার এসব কাজে দক্ষ হয়ে উঠছে।

গবেষকেরা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তিকে প্রশিক্ষিত করে তুলতে রোগ নির্ণয়ের পরীক্ষাগুলোর তথ্য-উপাত্ত ‘কৃত্রিম নিউরাল নেটওয়ার্ক’ নামের এআই সিস্টেমে ইনপুট দিচ্ছেন। ফলে ক্যানসার, নিউমোনিয়া, নাকি কবজির হাড়ে ফাটল ধরেছে— এআই সিস্টেম প্যাটার্ন দেখেই তা বুঝে ফেলছে। অ্যালগরিদম এবং নির্দেশনা অনুসরণ করে এআই সিস্টেমটি নিজে নিজেই শিখতে পারে। এটি যত বেশি তথ্য পাবে, রোগ নির্ণয়ে তত বেশি দক্ষ হয়ে উঠবে। 

গুগলের প্রকল্প ব্যবস্থাপক এবং গবেষণাপত্রটির এক লেখক ড্যানিয়েল সি বলেন, ‘আমাদের কাছে বিশ্বের বড় কম্পিউটারগুলোর কয়েকটি আছে। আমরা মজার কিছু নিয়ে কাজ করার জন্য সাধারণ বিজ্ঞানের সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করতে চাচ্ছি।’  

গত বছর বিশ্বব্যাপী ফুসফুসের ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে ১৭ লাখ মানুষ এবং যুক্তরাষ্ট্রে ১ লাখ ৬০ হাজার মানুষ মারা যায়। বেশি ঝুঁকিতে থাকা মানুষদের বেলায় সিটিস্ক্যান করা হয়। গবেষকদের গবেষণায় ফুসফুসের ক্যানসার নির্ণয়ে সিটিস্ক্যানে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তি প্রয়োগ করা হয়। এই সিটিস্ক্যানের ফলে ক্যানসারসহ এমন কিছু দাগ খুঁজে পেতে পারে, যা থেকে হয়তো ভবিষ্যতে ক্যানসার হতে পারে।

তবে এই প্রযুক্তির এক খারাপ দিকও আছে। যেমন- এটি টিউমার নাও ধরতে পারে,  আবার একধরনের দাগকে অন্য কোনো রোগ বলে চিহ্নিত করতে পারে। তবে এটি যত বেশি তথ্য ইনপুট দেওয়া হবে, তত বেশি শিখতে পারবে এবং তত বেশি নিখুঁত ফল দেবে।

ড্যানিয়েল সি জানিয়েছেন, ‘গবেষণার পুরো প্রক্রিয়া অনেকটা স্কুলের শিক্ষার্থীর মতো। আমরা প্রশিক্ষণের জন্য অনেক বড় ডেটা সেট নিয়ে কাজ করছি। অনুশীলন ও কুইজের মাধ্যমে নিজে নিজেই শিখতে পারে কোনটি ক্যানসার এবং কোনটি ভবিষ্যতে ক্যানসার হতে পারে।’ 

সূত্র: দ্য নিউইয়র্ক টাইমস 

ওডি/টিএফ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড