• শনিবার, ২৫ মে ২০১৯, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন

অবশেষে চায়না মোবাইলের জন্য বন্ধ হলো যুক্তরাষ্ট্রের দ্বার

  প্রযুক্তি ডেস্ক ১৪ মে ২০১৯, ১৭:৪৬

চায়না মোবাইল
ছবি : প্রতীকী

পূর্বাভাস ছিল, চায়না মোবাইল যুক্তরাষ্ট্র ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে টেলিযোগাযোগ সেবা সরবরাহের কার্যক্রম পরিচালনায় ফেডারেল কমিউনিকেশন কমিশনের (এফসিসি) অনুমতি নাও পেতে পারে। অবশেষে সেটি বাস্তবায়িত হলো। ভোটের মাধ্যমে এফসিসির সদস্যরা সর্বসম্মতিক্রমে চীনা কোম্পানিটির আবেদন প্রত্যাখ্যান করেন।

এফসিসি জানিয়েছে, জাতীয় নিরাপত্তায় হুমকি সৃষ্টির আশঙ্কা থেকেই চায়না মোবাইলকে যুক্তরাষ্ট্রে কার্যক্রম পরিচালনার অনুমতি দেওয়া হয়নি।

এফসিসির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, চায়না মোবাইল কোম্পানি যুক্তরাষ্ট্রে কার্যক্রম শুরু করলে এর নিয়ন্ত্রণ থাকবে চীনা সরকারের হাতে। এজন্য যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে কোম্পানিটিকে কার্যক্রম পরিচালনার অনুমতি দিলে তা জাতীয় নিরাপত্তা ও আইনের শাসন বাস্তবায়নকে ঝুঁকির মুখে ফেলবে। আর এ সিদ্ধান্তের মধ্য দিয়েই চায়না মোবাইলের যুক্তরাষ্ট্রের বাজার ধরার আট বছরের দীর্ঘ প্রচেষ্টার অবসান ঘটল। তবে এরকম ঘটনা যে ঘটবে, সেটা সবাই আগের থকেই অনুমান করেছিল। কেননা গত মাসে এফসিসির চেয়ারম্যান অজিত পাই জনসম্মুখেই চায়না মোবাইলের আবেদন প্রত্যাখ্যান করলে এর ভবিষ্যৎ সম্পর্কে আভাস পাওয়া গিয়েছিল।

ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বিশ্বের বৃহত্তম মোবাইল অপারেটর কোম্পানি চায়না মোবাইলের মোট গ্রাহকের সংখ্যা ৯৩ কোটিতে পৌঁছেছে। ২০১১ সালে কোম্পানিটি যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে কার্যক্রম পরিচালনার অনুমতি চেয়ে সর্বপ্রথম আবেদন করে। দীর্ঘদিন তাদের এ আবেদন ঝুলে থাকার পর অবশেষে ভোটের মাধ্যমে এফসিসির পাঁচ সদস্য তা প্রত্যাখ্যানের পক্ষে মতামত দেন।

এদিকে এফসিসির পক্ষ থেকে বিবৃতিতে বলা হয়, জাতীয় নিরাপত্তা ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর সঙ্গে ‘ব্যাপক পর্যালোচনা’ এবং ‘গভীর পরামর্শের’ পর সিদ্ধান্তটি নেওয়া হয়েছে। কমিশনার ব্রেন্দান কার বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে চায়না ইউনিকন ও চায়না টেলিকমসহ চীন সরকারের আরও কিছু মোবাইল কোম্পানি কার্যক্রম পরিচালনা করছে। ২১৪ ধারার অধীনে কোম্পানিগুলোর এখানে মালিকানা রয়েছে, চায়না মোবাইলও এমনটা চেয়েছিল।

এ প্রসঙ্গে কমিশনার বলেন, ‘আমাদের জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থাগুলো এ ২১৪ ধারা রদ করা যায় কি না এ বিষয়টি পর্যালোচনা করে দেখবে।’

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রে হুয়াওয়ে ও জেডটিই চীনের টেলিকমিউনিকেশন কোম্পানিগুলো তীব্র প্রত্যাখ্যানের মুখে পড়ছে। জাতীয় নিরাপত্তায় হুমকি সৃষ্টি করতে পারে এমন আশঙ্কা থেকে কোম্পানিগুলোর জন্য যুক্তরাষ্ট্রের দ্বার বন্ধ করে দিচ্ছে।

সূত্র : টেলিকম এশিয়া ও এএফপি

ওডি/টিএফ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড