• বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০১৯, ১১ বৈশাখ ১৪২৬  |   ৩১ °সে
  • বেটা ভার্সন

ব্রেকিং :

কিরগিজস্তান ২-১ গোলে সংযুক্ত আরব আমিরাতকে হারানোয় বঙ্গমাতা অনূর্ধ্ব-১৯ নারী আন্তর্জাতিক ফুটবলের সেমিফাইনালে উঠেছে বাংলাদেশ||শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলায় নিহত শিশু জায়ান চৌধুরীর জাতীয় সংসদে শোক প্রস্তাব গৃহীত; সপ্রতি বিশিষ্টজনদের মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়ে সংসদে এক মিনিট নিরবতা পালন||ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্ধিত বেতন ফি প্রত্যাহারের দাবিতে অবস্থান কর্মসূচি প্রশাসনের আশ্বাসে প্রত্যাহার করেছে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা; সকালে আটক ২২ শিক্ষার্থীকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ||শ্রীলঙ্কায় ধর্মীয় অনুষ্ঠানে বোমা হামলা করে শিশু জায়ান চৌধুরীরসহ নিরপরাধ মানুষ হত্যাকারীরা মানবতার শত্রু : সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা; এ ধরনের ঘৃণ্য হামলার নিন্দা জানানোর ভাষা নেই||শিশু জায়ান চৌধুরীর জানাজা বনানী ক্লাব মাঠে অনুষ্ঠিত; দাফন করা হবে বনানী কবরস্থানে

ক্ষতিকর গ্রাফিক্যাল ছবি সরাবে ইনস্টাগ্রাম

  অধিকার ডেস্ক    ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২০:২৬

ইনস্টাগ্রাম
ছবি শেয়ারিং মাধ্যম ইনস্টাগ্রাম

ছবি শেয়ারিং মাধ্যম ইনস্টাগ্রাম এক নতুন ঘোষণা দিয়েছে। ব্যবহারকারীর ক্ষতির কারণ হয় এমন ছবি সরিয়ে ফেলতে তারা কাজ শুরু করেছে। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান অ্যাডাম মিসৌরি এমন কথা জানিয়েছেন।

ইনস্টাগ্রামে ব্যবহার করা গ্রাফিক্স ছবি যেগুলো ব্যবহারকারীর ক্ষতির কারণ হয় তা সরিয়ে ফেলা হবে বলে জানান তিনি।

১৪ বছরের কিশোরী মলি রাসেল ২০১৭ সালে এমন গ্রাফিক্যাল ছবি দেখে ভয় পেয়ে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়। তার মৃত্যুর কারণেই প্রতিষ্ঠানটি এমন পদক্ষেপ নিচ্ছে বলে জানিয়েছে।

অ্যাডাম মিসৌরি বলেন, ইনস্টাগ্রাম এখন একটা ভারসাম্যের চেষ্টা করছে। এখন একটি আইন এবং আইনের যথাযথ প্রয়োগের প্রয়োজন। কেননা আমরা চাই না আমাদের কোনো কনটেন্ট দেখানোর ফলে কারও কোনো ক্ষতি হোক।

মিসৌরি বলেন, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব, তত তাড়াতাড়ি এই ছবি সরানোর কাজ শুরু করেছি আমরা- বলছিলেন ইনস্টাপ্রধান।

এ দিকে ইনস্টাগ্রামের এমন পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছেন মলির বাবা ইয়ান রাসেল। তিনি প্রত্যাশা করেন, খুব শিগগির ইনস্টাগ্রাম তাদের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করবে।

মলির বাবা বলেন, এখন সময় এসেছে সামাজিক মাধ্যমগুলোর তাদের ব্যবহারকারীদের দিকে নজর দেবার। তারা যেন ইন্টারনেটে নিরাপদে থাকতে পারে সেটা নিশ্চিত করার দায়িত্ব তাদের।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালে মলি ইনস্টাগ্রামে গ্রাফিক ছবি দেখে ভয় পায়। ফলে সে প্রতি রাতেই দুঃস্বপ্ন দেখতে থাকে এবং এক পর্যায়ে সে আত্মহত্যা করে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড