• রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩১ ভাদ্র ১৪২৬  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন

সর্বশেষ :

নিজ দেশে ফিরে যেতে রোহিঙ্গাদের দুই শর্ত||এ পি জে আব্দুল কালামের স্মৃতিতে ভূষিত প্রধানমন্ত্রী  ||উদ্বেগ থাকলেও ভারতের ওপর বিশ্বাস রাখতে চাই : পররাষ্ট্রমন্ত্রী ||ছাত্রলীগের চাঁদাবাজি ঢাকতেই ছাত্রদলের কাউন্সিল বন্ধ : রিজভী ||কাশ্মীরে জঙ্গি অনুপ্রবেশের অভিযোগে সীমান্তে‌ হাই অ্যালার্ট||ভারতের পর এবার বিশ্বকে পরমাণু যুদ্ধের হুঁশিয়ারি পাকিস্তানের||সোমবার আনুষ্ঠানিক দায়িত্ব নেবেন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক||মেক্সিকোয় কুয়া থেকে ৪৪ মরদেহ উদ্ধার করল বিজ্ঞানীরা||অন্যায় করলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না : কাদের    ||সৌদির তেল স্থাপনাতে হামলায় ইরানকে দায়ী করল যুক্তরাষ্ট্র

দাঁত তুলতে হবে না, ৪৮ ঘণ্টায় ব্যথা সারবে

  স্বাস্থ্য ডেস্ক

১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২২:০১
দাঁত
(ছবি : প্রতীকী)

একটা সময় ছিল দাঁতে ব্যথা হলে ওই দাঁত ফেলে দিতে হতো। কিন্তু অত্যাধুনিক চিকিৎসার কারণে যখনই দাঁতে তীব্র ব্যথা হয়, ওই সময় দাঁতের কন্ডিশন বুঝে ডাক্তাররা দাঁতকে সংরক্ষণ করার জন্য একটি চিকিৎসা দিয়ে থাকেন। সেটা হলো- রুট ক্যানাল চিকিৎসা।

একটা প্রবাদ আছে- ‘দাঁত থাকতে দাঁতের মর্ম বোঝে না’। বলা যায়, বর্তমান সময়ের প্রেক্ষিতে এই কথাটি আংশিক সত্য। প্রত্যেক দিন নিয়ম করে ব্রাশ, মুখ পরিষ্কার করার পরও কিন্তু দাঁতের সমস্যা হয়। দেখা দেয় ক্যাভিটি বা অ্যানামেল ক্ষয়ে যাওয়ার মতো সমস্যা। ব্যাস, দাঁতে কোনো রকম সমস্যা হলেই আমরা বেশিরভাগই দাঁত তুলে ফেলার পক্ষে। এখন অবশ্য অনেকেই রুট ক্যানাল করিয়ে থাকেন।

সম্প্রতি এই ভেঙে যাওয়া দাঁত রক্ষা করতে নতুন জেল আবিষ্কার করেছেন চীনের একদল গবেষক। এই জেল ক্ষতিগ্রস্ত দাঁতে লাগালে আর দন্ত চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার কোনো প্রয়োজন পড়বে না। ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই দাঁতের ব্যথা সারবে। এমনটাই দাবি ওই গবেষক দলের।

শুধু তাই নয়, এই জেল দাঁতের অ্যানামেলকেও ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে।

চীনা গবেষকরা আরও বলেছেন, দাঁতের ফিলিং না করে তুলে ফেলা ভালো। কেননা, ফিলিং করলে তাতে যে রাসায়নিক ব্যবহার করা হয় সেটি দাঁতের প্রচণ্ড ক্ষতি করে।

ওডি/টিএএফ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড