• সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ৪ ভাদ্র ১৪২৬  |   ৩৪ °সে
  • বেটা ভার্সন

নতুন ল্যাপটপ কিনছেন, এই বিষয়গুলো মাথায় আছে তো?

  প্রযুক্তি ডেস্ক

০৩ আগস্ট ২০১৯, ১০:৩৭
ল্যাপটপ
(ছবি: সংগৃহীত)

তথ্যপ্রযুক্তির এই যুগে বর্তমান মানুষের অন্যতম অনুষঙ্গ হচ্ছে ল্যাপটপ। ঈদের আগে অনেকে গ্যাজেটের সাথে সাথে ল্যাপটপও কিনে থাকেন। কেননা ঈদকে কেন্দ্র করে প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলো নানা ধরনের ছাড় দিয়ে থাকে। এজন্য এই ঈদে যাদের টার্গেট ল্যাপটপ কেনা, ডিভাইসটি কেনার আগে কিছু জিনিসের দিকে তাই বিশেষ লক্ষ রাখতে হবে।   

ল্যাপটপ কেনার আগে আপনাকে ঠিক করতে হবে, আপনি মূলত কোন কাজের জন্য ল্যাপটপ কিনবেন। কেননা সবার কাছে ল্যাপটপের চাহিদা এক ন্য। কেউ ল্যাপটপ দিয়ে গেম খেলতে, কেউবা অফিসের কাজে আবার কেউ শুধু মুভি দেখার জন্য ল্যাপটপ ব্যবহার করে। এজন্য ল্যাপটপ কিনতে গেলে তাই সবার আগে প্রয়োজনটা ঠিক করতে হবে।

বর্তমান সময়ে বাজারে নানা ব্র্যান্ডের ল্যাপটপ পাওয়া যায়। সাথে আছে নানা ধরনের কনফিগারেশনও। তাই নিজের কাজের ধরন অনুযায়ী ল্যাপটপ বাছাই করতে করতে হবে। 

সবশেষে বাছাইয়ের ক্ষেত্রে এই বিষয়গুলোর দিকে বিশেষ খেয়াল রাখতে হবে।   

আকার ও ওজন 

কাজের প্রয়োজনে ল্যাপটপের আকার ও ওজন বাছাই করতে হবে। তাই এই দিকটির দিকে বাড়তি নজর দিতে হবে। যারা এক জায়গায় অর্থাৎ বাসায় বা অফিসে বসে ল্যাপটপ ব্যবহার করতে চান, তাদের জন্য আকার এবং ওজন তেমন কোনো ব্যাপার না।

আকার ও ওজন (ছবি: সংগৃহীত)  

কিন্তু যারা ল্যাপটপ সাথে নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় যান, তাদের কিছুটা ছোট আকারের, পাতলা গড়ন ও হালকা ওজনের ল্যাপটপ বাছাই করা উচিত। 

প্রসেসর

ল্যাপটপ কিনতে গেলে প্রসেসর নির্বাচন করেয়া অতীব জরুরি। কেননা এটি ল্যাপটপের গতি নির্ধারণ করে। এজন্য ল্যাপটপের প্রসেসর নির্বাচনের ক্ষেত্রে বাজারে আসা সর্বশেষ ৮ম কিংবা ৯ম প্রজন্মের মডেলগুলোকে প্রাধান্য দিতে হবে।

প্রসেসর (ছবি: সংগৃহীত)  

আর যারা হালকা কাজের জন্য ল্যাপটপ কিনতে চান, তারা কোর আই ৩ কিংবা এমডি, মাঝারি কাজে কোর আই ৫ আর ভারি কাজের জন্য কোর আই ৭ মডেলের প্রসেসর বিবেচনায় রাখতে পারেন। 

র‍্যাম 

ল্যাপটপের আরেক অনুষঙ্গ অংশ হচ্ছে র‍্যাম। কেননা এটি মাধ্যমে ল্যাপটপের গতি নির্ধারণে বিশেষ ভূমিকা রাখে। যারা ল্যাপটপ দিয়ে গেইমিং কিংবা ভারি মানের ব্যক্তিগত বা পেশাগত কাজ ক্রতে চান,তাদের অবশ্যই অধিক র‍্যামের ল্যাপটপ বাছাই করবেন।  

র‍্যাম (ছবি: সংগৃহীত)  

 

বর্তমানে বাজারে ১৬ কিংবা ৩২ গিগাবাইট র‍্যাম সম্বলিত ল্যাপটপ পাওয়া যায়। আপনার পছন্দের তালিকায় এই ল্যাপটগুলো রাখতে পারেন। আর যারা হালকা মানের কাজ করতে চাল, তাদের জন্য ৪ থেকে ৮ গিগাবাইট র‍্যাম যথেষ্ট। 
    
স্টোরেজ

ল্যাপটপ কিনতে গেলে অবশ্যই নিজের প্রয়োজন বুঝে স্টোরেজ বেছে নিতে হবে। হার্ডডিস্ক  স্টোরেজের পাশাপাশি এসএসডি থাকাকে প্রাধান্য দিতে হবে।

স্টোরেজ (ছবি: সংগৃহীত)  

কেননা এসএসডি থাকলে ল্যাপটপের গতি স্বাভাবিকের চাইতে বাড়িয়ে নেওয়া যাবে।    

ডিসপ্লে ও গ্রাফিক্স 

যারা ল্যাপটপে মুভি দেখেন, হাই গ্রাফিক্স গেইম খেলেন কিংবা গ্রাফিক্সের নানা কাজ করেন তাদের জন্য অবশ্যই ভালো রেজুলেশনের ডিসপ্লে বাছাই করতে হবে। আর ডিসপ্লের ধরন সম্পর্কেও  জেনে নিতে হবে। বাজারে বর্তমানে টাচ সুবিধাসহ কিছু ল্যাপটপ পাওয়া যায়। এগুলোকে নজরে রাখতে পারেন। 

ডিসপ্লে ও গ্রাফিক্স (ছবি: সংগৃহীত)  

সাধারণ কাজে যারা ল্যাপটপ ব্যবহার করতে চান, তাদের জন্য গ্রাফিক্স তেমন জরুরি না হলেও গেমার কিংবা যারা ডিসপ্লের ভালো পারফরমেন্স চান, তাদের ডেডেকেটেড গ্রাফিক্স সুবিধাসম্বলিত ল্যাপটপ নির্বাচন করতে হবে।  
 
কীবোর্ড ও টাচপ্যাড

টাচপ্যাড ভালো মানের না হলে ল্যাপটপ ব্যবহার করতে বেশ বেগ পেতে হয়। এজন্য ল্যাপটপ কেনার আগে অবশ্যই ভালো মানের টাচপ্যাড যাচাই করে নিতে হবে। 

 কীবোর্ড ও টাচপ্যাড (ছবি: সংগৃহীত)  

আর যারা এক্সট্রা কীবোর্ড ব্যবহার করতে চান না, তাদের জন্য ভালো মানের কীবোর্ড সংবলিত ল্যাপটপ নির্বাচন করতে হবে। এছাড়া ব্যাকলিট সংবলিত কীবোর্ডে বাছাই করতে পারেন, যাতে অন্ধকারেও আপনি কাজ করতে পারবেন। 

ব্যাটারি

যারা দীর্ঘক্ষণ ধরে বাইরে কাজ করেন, তাদের জন্য ব্যাটারির সক্ষমতার দিকে বিশেষ নজর দিতে হবে। বাজারে কিছু ল্যাপটপ আছে যেগুলো একবার ফুল চার্জ করেই সর্বোচ্চ ১০-১২ ঘণ্টা পর্যন্ত ব্যবহার করা যায়।

    

ব্যাটারি (ছবি: সংগৃহীত)  

এই ল্যাপটপগুলো পছন্দের তালিকায় রাখতে পারেন। 

ইউএসবি পোর্ট ও অন্যান্য 

পেনড্রাইভ কিংবা অন্যান্য যন্ত্রাংশ বা গ্যাজেট সংযোগের জন্য ইউএসবি পোর্ট খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আর ডেটা ট্রান্সফারে ভালো গতি পেতে ইউএসবি ৩.০ পোর্টেসম্বলিত ল্যাপটপ নেওয়া উচিত। পাশাপাশি হালের ক্রেজ ইউএসবি টাইপ-সি পোর্ট ও মাথায় রাখা যেতে পারে। 

ইউএসবি পোর্ট (ছবি: সংগৃহীত) 

পাশাপাশি ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানার সুবিধা, ভালো মানের ওয়েবক্যাম কিংবা এইচডিএমআই বা ভিজিএ পোর্টের দিকেও বিশেষ নজর দিতে হবে। 

বিক্রোত্তর সেবা

বাজারে ল্যাপটপগুলোতে ব্র্যান্ড ও মডেল ভেদে ১-৩ বছরের ওয়ারেন্টি সুবিধা পাওয়া যায়। তবে ব্র্যান্ড কিংবা মডেল ভেদে কিছুটা হেরফের থাকতে পারে। এজন্য ল্যাপটপ কেনার আগে অবশ্যই বিক্রয়োত্তর সেবার বিস্তারিত নীতিমালা জেনে ও বুঝে নিতে হবে।

ওডি/টিএফ   

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড