• সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১ আশ্বিন ১৪২৬  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন

সর্বশেষ :

নিজ দেশে ফিরে যেতে রোহিঙ্গাদের দুই শর্ত||এ পি জে আব্দুল কালামের স্মৃতিতে ভূষিত প্রধানমন্ত্রী  ||উদ্বেগ থাকলেও ভারতের ওপর বিশ্বাস রাখতে চাই : পররাষ্ট্রমন্ত্রী ||ছাত্রলীগের চাঁদাবাজি ঢাকতেই ছাত্রদলের কাউন্সিল বন্ধ : রিজভী ||কাশ্মীরে জঙ্গি অনুপ্রবেশের অভিযোগে সীমান্তে‌ হাই অ্যালার্ট||ভারতের পর এবার বিশ্বকে পরমাণু যুদ্ধের হুঁশিয়ারি পাকিস্তানের||সোমবার আনুষ্ঠানিক দায়িত্ব নেবেন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক||মেক্সিকোয় কুয়া থেকে ৪৪ মরদেহ উদ্ধার করল বিজ্ঞানীরা||অন্যায় করলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না : কাদের    ||সৌদির তেল স্থাপনাতে হামলায় ইরানকে দায়ী করল যুক্তরাষ্ট্র

গণশুনানির জন্য বিটিআরসির কাছে ১৬০০ প্রশ্ন উত্থাপন

  প্রযুক্তি ডেস্ক

১০ জুন ২০১৯, ১১:৫৭
বিটিআরসি

টেলিযোগাযোগ সেবা এবং নিয়ন্ত্রক সংস্থার কার্যক্রম নিয়ে দ্বিতীয়বার গণশুনানির আয়োজন করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।

রাজধানীর রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ (আইইবি) অডিটরিয়ামে আগামী ১২ জুন বেলা ১১টায় ‘টেলিযোগাযোগ সেবা ও নিয়ন্ত্রক সংস্থার কার্যক্রম’ বিষয়ে গণশুনানি অনুষ্ঠিত হবে।

সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষ বিটিআরসির গণশুনানির জন্য ১৬০০ প্রশ্ন পাঠিয়েছেন।

তবে গণশুনানিতে এর মধ্যে মাত্র ১২০টি উত্তরের জন্য উপস্থাপন করা হবে। প্রশ্নের পুনরাবৃত্তি, সম্পূর্ণ  নয়, প্রাসঙ্গিকতা ও গুরুত্ব বিবেচনায় বাকি প্রশ্নগুলো বাদ পড়েছে। 

গণশুনানিতে ১৬৫ জন নিবন্ধন করে উপস্থিত থাকার আগ্রহের কথা জানিয়েছেন। 

তবে শুনানিতে ১২০টি প্রশ্নেরই উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করা হবে। আর সময় না পেলে অবশিষ্ট প্রশ্নের উত্তর অনলাইনে দিয়ে দেওয়া হবে।

গ্রাহকরা যেসব প্রশ্ন করেছেন, তার অধিকাংশ এসেছে কলড্রপ, ডেটা প্রাইস, সার্ভিস কোয়ালিটি সম্পর্কিত। 

বিটিআরসি ঈদের ছুটির পর প্রথম কর্মদিবসে এই গণশুনানির বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে বৈঠকে বসে।বিটিআরসির চেয়ারম্যান মো.জহুরুল হক এতে সভাপতিত্ব করেন।

প্রস্তুতিমূলক এই বৈঠকে গণশুনানিতে আসা প্রশ্ন, উপস্থিতি ইত্যাদি বিষয়ে আলোচনা হয়। যেখানে প্রশ্নের উত্তর কী বা কেমন হবে সেসব রয়েছে।
গণশুনানিতে অংশগ্রহণের জন্য সরকারি, আধাসরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা, মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী, টেলিযোগাযোগ সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান, ভোক্তা সংঘ, সংশ্লিষ্ট পেশাজীবীসহ আগ্রহী যে কোনো ব্যক্তি নিবন্ধন করতে পারবেন।

গণশুনানিতে অংশগ্রহণের সময় বিটিআরসি থেকে পাঠানো নিশ্চিতকরণ ইমেইল এবং জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি সাথে আনতে হবে।

এর আগে ২০১৬ সালের ২২ নভেম্বর মোবাইল অপারেটরদের সেবার মান নিয়ে সরাসরি ভোক্তা সাধারণের মতামত জানতে প্রথমবারের মতো বিটিআরসি গণশুনানির আয়োজন করে।

গণশুনানিতে মোবাইল ফোন অপারেটরদের সেবার মান বিশেষ করে কল ড্রপ, ভয়েস কল ও ইন্টারনেটের বিভিন্ন প্যাকেজ ও মূল্য সম্পর্কে জনগণের সরাসরি মতামত নেওয়া হবে।

পাশাপাশি মোবাইল ফোনে হুমকি, সাইবার অপরাধ, মোবাইল অপারেটরদের কলসেন্টারের মাধ্যমে সেবা সংক্রান্ত অভিযোগ ফেসবুক ব্যবহারে নিরাপত্তা, এবং সংশ্লিষ্ট অন্যান্য টেলিকম সেবা প্রদানকারীদের প্রদত্ত সেবার বিষয়ে জনসাধারণ অভিযোগ ও এ সম্পর্কিত বিভিন্ন মতামত গ্রহণ করা হবে।

বিটিআরসির চেয়ারম্যান মো. জহুরুল হকসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, মোবাইল ফোন অপারেটর ও বিভিন্ন টেলিযোগাযোগ সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানসমূহের দায়িত্বপ্রাপ্ত পদস্থ কর্মকর্তারা গণশুনানিতে অংশগ্রহণকারীদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেবেন।

ওডি/টিএফ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড