• শুক্রবার, ১৮ জানুয়ারি ২০১৯, ৫ মাঘ ১৪২৫  |   ১৯ °সে
  • বেটা ভার্সন

ইসলামে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা ও পবিত্রতা (প্রথম অংশ)

  অধিকার ডেস্ক    ১১ জানুয়ারি ২০১৯, ১১:৫৩

ইসলাম
ছবি : প্রতীকী

ইসলাম পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার ধর্ম। মানুষের প্রাকৃতিক পবিত্রতা অর্জনের ক্ষেত্রেও ইসলামের সুস্পষ্ট বিধিবিধান রয়েছে। বিভিন্ন হাদীসে রাসূলুল্লাহ (সা.) পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতামূলক কাজগুলোকে “ফিতরাত” বা মানবীয় প্রকৃতি নির্দেশিত ইসলামের প্রয়োজনীয় কাজ বলে উল্লেখ করেছেন। সামগ্রিকভাবে দেহ, পোশাক, বাড়িঘর সবকিছু পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে বিভিন্নভাবে নির্দেশ দিয়েছেন। 

দেহে বা পোশাকে অপরিচ্ছন্ন অবস্থায় কাউকে দেখলে রাসূলুল্লাহ (সা.) বলতেন, তোমরা তোমাদের বাড়ির আঙিনার সর্বদিক পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখবে। ইহুদীদের অনুকরণ করবে না। কেননা ইহুদীরা তাদের বাড়ির আঙিনা পরিষ্কার করে না, তারা বাড়িতে আবর্জনা জমা করে রাখে। (মাজমাউয যাওয়াইদ- ১/২৮৬)

উল্লেখ্য যে, দুঃখজনক হলেও সত্য, ইহুদীদের বাড়িঘর, দেহ, পোশাক আজ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন, আর মুমিন মুসলমানদের বাড়ী ঘরের চতুর্দিক সবই নোংরা। পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা ও পবিত্রতার অন্যতম দিক হলো মল-মুত্র ত্যাগ করা। এ বিষয়ে ইসলামে বিশেষ নির্দেশনা রয়েছে। মল-মুত্র ত্যাগের অন্যতম আদব হল অন্যের দৃষ্টি থেকে সতর বা লজ্জাস্থান আবৃত রাখা। এ জন্য সর্বদা চেষ্টা করতে হবে, কেননা সাধারণ মানুষের অসুবিধা হতে পারে এরূপ স্থানে মল-মুত্র ত্যাগ করতে কঠোরভাবে নিষেধ করা হয়েছে।

রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, তোমরা তিনটি অভিশাপের স্থান বর্জন করে চলবে। তখন বলা হলো, হে আল্লাহর রাসূল! অভিশাপের স্থানগুলো কি কি? তিনি বলেন, মানুষ বিশ্রাম/আশ্রয় গ্রহণ করে এরূপ ছায়াময় স্থান, রাস্তায় কিংবা জলাধারে বা জলাশয়ের মধ্যে (নদীর ঘাটে বা পুকুর পাড়ে) মল-মুত্র ত্যাগ করতে বসা। (সহীহুত তারগীব- ১/৩৫, মাজমাউয যাওয়াইদ- ১/২০৪)

আরও পড়ুন : ইসলামে সাক্ষরতা, শিক্ষা ও জ্ঞান অর্জনের গুরুত্ব

অত্যন্ত দুঃখজনক হলেও সত্য যে, আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত ও অশিক্ষিত সকল লোক রাস্তা-ঘাটে, ফুটপাতে ও মানুষের বিশ্রামের স্থানে ও আশেপাশে দাঁড়িয়ে যত্রতত্র মুত্র ত্যাগ করে অভিশপ্ত জীবনযাপন করছে। যা একজন মুমিন মুসলিমের জন্য অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় এবং নিজেকে সংশোধন করা অত্যন্ত জরুরি।

সেনিটারী টয়লেটে মল-মুত্র ত্যাগ করলে তা ভালভাবে পরিষ্কার করা প্রয়োজন। কোনো পাত্রে, পটে, প্যানের মধ্যে পেশাব জমা থাকলে সেই বাড়িতে/ফ্ল্যাটে ফেরেশতা প্রবেশ করেন না। রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, বাড়ির মধ্যে কোনো পাত্রে যেন পেশাব জমা না থাকে। কারণ যে বাড়িতে কোনো পাত্রে বা প্যানে পেশাব/মল-মুত্র জমা থাকে সেই বাড়িতে ফেরেশতা প্রবেশ করেন না। (মাজমাউয যাওয়াইদ- ১/২০৪)

লং কমোড, হাই কমোট, সেনিটারি প্যান বা সাধারণ টয়লেটে মল-মুত্র ত্যাগের সময় সতর্ক থাকতে হবে। পেশাবের বা প্যানে জমে থাকা অপবিত্র পানির ছিটা থেকে পবিত্র রাখা মুমিন/ মুসলিমের অন্যতম দায়িত্ব। 

কেননা- রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘কবরের আজাব অধিকাংশ ক্ষেত্রে পেশাবের ছিটের কারণেই হয়। কাজেই তোমরা পেশাব থেকে পবিত্র থাকবে, অর্থাৎ পেশাবের ছিটে লাগা থেকে সতর্ক থাকবে। (সহীহুত তারগীব-১/৩৮)

চলবে...

লেখক : মাওলানা আখতারুজ্জামান খালেদ, ইমাম ও খতীব। 
 

প্রচলিত কুসংস্কারের বিরুদ্ধে ধর্মীয় ব্যখ্যা, সমাজের কোন অমীমাংসিত বিষয়ে ধর্মতত্ত্ব, হাদিস, কোরআনের আয়াতের তাৎপর্য কিংবা অন্য যেকোন ধর্মের কোন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, সর্বপরি মানব জীবনের সকল দিকে ধর্মের গুরুত্ব নিয়ে লিখুন আপনিও- [email protected]
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড