• শনিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৬ ফাল্গুন ১৪২৬  |   ২০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

‘ইসলাম শান্তির ধর্ম’ বলে অমুসলিমরা কী বোঝাতে চায়?

  ড. ইয়াদ কুনাইবি

১২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১২:০৫
ইসলাম
লেখক, ড. ইয়াদ কুনাইবি (ছবি: সংগৃহীত)

‘ইসলাম শান্তির ধর্ম’ কথাটা শুনতে শুনতে আমরা বড় হয়েছি। ইসলামের সমর্থনে কথা বলার সময়ে আমরা প্রায়ই এটা বলি। বিশেষ করে কাফেরদের সাথে ইসলাম নিয়ে কথা বলার সময়ে পশ্চিমা বিশ্বে অবস্থান করা মুসলিমরা এ কথাটা খুব বেশি ব্যবহার করেন। কিন্তু এ কথা বলার পর অনেক সময় কাফেররা বলে বসে, ‘ইসলাম যদি শান্তির ধর্মই হয় তাহলে তোমাদের কুরআনের ঐসব আয়াতের কী হবে যেখানে কাফেরদের বিরুদ্ধে লড়াই করতে বলা হয়েছে?’ এ পর্যায়ে এসে মনে হতে শুরু করে যে, মুসলিমরা তাদের ধর্মের কিছু কিছু বিষয় লুকোতে চাচ্ছে। এসব ক্ষেত্রে মুসলিমরা তর্কে জড়িয়ে যায়, পাল্টা জবাব দিয়ে বলে, ‘তোমাদের কিতাবেও তো হত্যা আর যুদ্ধের কথা আছে!’

আমাদের বোঝা উচিত যে, ইসলাম নিয়ে লজ্জিত হওয়ার কিছু নেই। আর এই উপলব্ধির জন্য আগে ইসলাম নিয়ে, ইসলামের সত্যতা নিয়ে আমাদের ভালোভাবে জানতে হবে। দৃঢ় বিশ্বাস আসার পরই কেবল আমরা এই দীন নিয়ে পরিপূর্ণভাবে গর্বিত হতে পারব। এ দীনের সত্যতার ঘোষণা দিতে পারব গর্বের সাথে। সারা দুনিয়ার সামনে দাঁড়িয়ে, স্পষ্টভাবে।

আমরা যদি বলতে চাই, ইসলাম শান্তির ধর্ম, ইসলাম ভালোবাসার ধর্ম, বা অন্য কোনো মূল্যবোধের ধর্ম- তাহলে প্রথমে দেখতে হবে, এই মূল্যবোধটি ইসলামের সব শিক্ষার মধ্যে বিদ্যমান কি না। এমন কোনো আয়াত বা হাদিস আছে কি না যা এর বিরুদ্ধে যায়। তাই ইসলামের শিক্ষাকে এক কথায় প্রকাশ করার জন্য ‘ইসলাম শান্তির ধর্ম’ বলাটা তেমন যুতসই না। কারণ ইসলাম সব ক্ষেত্রে শান্তির কথা বলে না। অনেক ক্ষেত্রে আল্লাহ আমাদের যুদ্ধের আদেশ দিয়েছেন। এমন অনেক আয়াত এবং হাদিস আছে যেখানে কাফিরদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার কথা বলা হয়েছে।

কাজেই ইসলাম শান্তির ধর্ম কথাটা সব ক্ষেত্রে খাটে না। কিন্তু আমরা যদি বলি, ইসলাম হল হক ও আদলের ধর্ম, সত্য ও ন্যায়বিচারের ধর্ম– তাহলে সেটা সব অবস্থায় প্রযোজ্য হবে। ইসলামের সব শিক্ষার ক্ষেত্রে এ দুটো বৈশিষ্ট্য প্রযোজ্য। সত্য ও ন্যায়বিচারের মূল্যবোধ অন্তর্নিহিত ইসলামের সব বিধান ও শিক্ষায়। এমন কোনো আয়াত নেই যেখানে হকের বিপরীত নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এমন কোনো আয়াত পাবেন না যেখানে অবিচারের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তায়ালা বলেন,

‘তিনিই আল্লাহ, যিনি সত্য ও মিজান (ন্যায়-অন্যায়ের মানদন্ড) সহকারে কিতাব অবতীর্ণ করেছেন।’ [সুরা আশ-শূরা, ১৭]

তিনি আরও বলেন,

‘এ কুরআনকে আমি সত্যতা সহকারে নাযিল করেছি আর সত্যতা সহকারেই তা নাযিল হয়েছে।’ [সুরা আল ইসরা, ১০৫]

‘আমি আমার রাসুলদের সুস্পষ্ট প্রমাণসহ পাঠিয়েছি আর তাদের সঙ্গে অবতীর্ণ করেছি কিতাব ও (সত্য মিথ্যার) মানদন্ড যাতে মানুষ ইনসাফ ও সুবিচারের ওপর প্রতিষ্ঠিত হতে পারে।’ [সুরা আল-হাদিদ, ২৫]

তাই ইসলাম হল হক ও আদলের দীন। সত্য ও ন্যায়বিচারের ধর্ম। ইসলামের সকল শিক্ষায় এ দুটো মূল্যবোধ বিদ্যমান। অন্যদিকে শান্তির শিক্ষা সব ক্ষেত্রে প্রযোজ্য না। এমন অনেক পরিস্থিতি আছে যেখানে কাফিরদের সাথে শান্তি স্থাপন করাটাই অবিচার, অন্যায়। বরং ওই পরিস্থিতিতে তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করাটাই হলো সত্য ও ন্যায়বিচারের দাবি।

একই কথা প্রযোজ্য, মুক্তি বা স্বাধীনতার ক্ষেত্রে। আমরা বলতে পারি না যে ‘ইসলাম স্বাধীনতার ধর্ম’। কারণ তখন বলা হবে, ‘ইসলাম যদি স্বাধীনতার ধর্মই হয় তাহলে কেন তোমরা ব্যক্তির সমকামী হবার স্বাধীনতায় বিশ্বাস করো না’? দেখুন, স্বাধীনতা মানেই ভালো, এমন না। এমন অনেক স্বাধীনতা আছে যা অন্যায় ও অবিচারে পূর্ণ। এমন অনেক স্বাধীনতা আছে যার স্বীকৃতি ইসলাম দেয় না।

একইভাবে এটাও ঢালাওভাবে বলা সম্ভব না যে ‘ইসলাম সাম্যের ধর্ম’। তখন বলা হবে, ‘ইসলাম যদি সাম্যের ধর্ম হয় তাহলে কেন সামাজিক ভূমিকা, অধিকার এবং দায়িত্বের ক্ষেত্রে নারী ও পুরুষের সমান অধিকার ইসলাম দেয় না?’ কিন্তু আমরা বলি, সাম্য অনেক সময় অন্যায় এবং অন্যায্য হয়ে থাকে। শান্তি, স্বাধীনতা, সাম্য - এ সবই ইসলামে আছে। কিন্তু সেটা প্রযোজ্য সুনির্দিষ্ট প্রেক্ষাপটে, নির্দিষ্ট মাত্রায়। ঢালাওভাবে ইসলামের সব বিধানের ভিত্তি শান্তি, স্বাধীনতা কিংবা সাম্য না।

তাহলে প্রশ্ন হলো, কীভাবে সব ক্ষেত্রে সত্য ও ন্যায়বিচারকে চেনা যাবে?

চেনার উপায় হলো, সব ক্ষেত্রে একনিষ্ঠভাবে আল্লাহর আনুগত্য ও গোলামি করা। ইসলাম হলো আল্লাহর প্রতি দাসত্বের ধর্ম। ইসলাম মানুষকে মুক্ত করে কামনা-বাসনার দাসত্ব থেকে। মুক্ত করে ক্ষমতাসীন, সম্পদশালী, মিডিয়া আর গণতন্ত্রের ফেরিওয়ালাদের গোলামি থেকে। ইসলাম সৃষ্টির গোলামি থেকে মানুষকে মুক্ত করে তাদের স্রষ্টার গোলামি করতে শেখায়। আমরা যখন এভাবে ইসলামকে বুঝতে শিখব, তখনই প্রকৃত ইসলামকে মানুষের সামনে উপস্থাপন করতে পারব। মানুষের প্রশ্ন তখন আমাদের বিভ্রান্ত, বিচলিত কিংবা অপ্রস্তুত করবে না।

তাই যারা অমুসলিমদের মাঝে দাওয়াহর কাজ করেন, যারা ইসলামের পক্ষে কথা বলেন, তাদের প্রতি নসিহত হলো, এই ব্যাপারে পরিষ্কার থাকুন। দ্ব্যর্থবোধক কথা না বলে স্পষ্ট কথা বলুন। ইসলাম শান্তির ধর্ম না বলে বলুন, ইসলাম হক ও আদলের ধর্ম। সত্য ও ন্যায়ের ধর্ম। আল্লাহ মানুষের মনে হক ও আদলের প্রতি সহজাত আকর্ষণ তৈরি করে দিয়েছেন। ফিতরাতিভাবে মানুষ এ দুটোর দিকে আকৃষ্ট হয়। যারা এ দুটো মূল্যবোধ গ্রহণ করবে তাদের ইসলামে স্বাগতম। যারা এগুলোকে প্রত্যাখ্যান করবে তারা তা করবে নিজেদের বিকৃত প্রবৃত্তির কারণেই।

আল্লাহ আযযা ওয়া জাল বলেন,

‘তুমি যাকে ভালোবাসো তাকে সৎপথ দেখাতে পারবে না, বরং আল্লাহ যাকে চান সৎ পথে পরিচালিত করেন...।’ [সুরা আল-কাসাস, ৫৬]

আর এটা ইসলামের সম্মান ও মর্যাদার সাথে মানানসই না যে, মানুষকে খুশি করার জন্য আমরা শান্তির শ্লোগান তুলব। কিংবা ইসলামের ব্যাখ্যা দেওয়ার চেষ্টা করব সাম্য, স্বাধীনতা কিংবা অধিকারের আধুনিক সংজ্ঞার সাথে মিলিয়ে মিলিয়ে। আজকের দুনিয়ায় বহুল ব্যবহৃত এ শব্দগুলোর সাময়িক প্রভাব দেখে হন্তদন্ত হয়ে এর সাথে ইসলামের মিল খোঁজার কোনো প্রয়োজন নেই। এগুলো ঠুনকো কিছু বুলি মাত্র। আজকের বিশ্বে শান্তি, সাম্য, স্বাধীনতা আর অধিকারের বুলি ফেরি করে বেড়ানো লোকেরা আর আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর কথা আর কাজে কোনো মিল নেই। বৈশ্বিক পলিসির ক্ষেত্রে নিজেদের আওড়ে যাওয়া এসব আদর্শের লঙ্ঘন তারা করে হরহামেশা।

শেষ করার আগে আবারও সংক্ষেপে বিষয়টা পরিষ্কার করি।
আমরা বলছি না যে, ইসলামের মাধ্যমে শান্তি স্থাপন সম্ভব না। বরং আমরা বলছি ইসলাম যখন প্রতিষ্ঠিত হয় তখন তা সাধারণ মানুষের জন্য শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করে। অন্যদিকে অন্যায়কারী ও অপরাধীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ জারি রাখে। ইসলাম সঠিক ধরনের শান্তির কথা বলে। যা সত্য ও ন্যায়বিচারের ভিত্তির ওপর প্রতিষ্ঠিত। ইসলাম শান্তির পাশাপাশি শক্তির কথাও বলে, যা শান্তির প্রতিরক্ষা করবে। ইসলাম ঐ শান্তির কথা বলে না, যার ভিত্তি হলো বশ্যতা ও দুর্বলতা।

যারা আজ বিশ্বজুড়ে কুফর ও জুলুমের শাসন প্রতিষ্ঠা করেছে, শান্তির নামে পৃথিবী জুড়ে ফাসাদ করছে, তারাও কিন্তু গণতন্ত্র, স্বাধীনতা, সাম্যকে শর্তহীনভাবে বাস্তবায়ন করে না। কখনো শান্তির কথা বলে মুসলিমদের সমালোচনা করে। আবার কখনো শান্তির বুলি বিসর্জন দিয়ে গণতন্ত্রের নামে মুসলিমদের হত্যা করে। তারা এগুলোর ওপর সীমা আরোপ করে নিজেদের খেয়ালখুশি মতো। অন্যদিকে ইসলামও সীমা আরোপ করে। তবে আল্লাহর নাজিলকৃত শিক্ষা অনুযায়ী। হক ও ন্যায়বিচারের কাঠামোর ভেতরে।

কোনো উত্তম মূল্যবোধের ওপর কাফিররা আমাদের চেয়ে বেশি হকদার না। বরং তারা তো শুধু মুখস্থ বুলি আওড়ায় আর শ্লোগান দিয়ে বেড়ায়। আবার যেসব মূল্যবোধের নামে শ্লোগান দিয়ে যায় সেগুলোকে নিজেদের খেয়ালখুশি মতো বদলে ফেলে। অনেকসময় নিজেরাই সেগুলোর বিরুদ্ধাচারণ করে।

বিচক্ষণতার পরিচায়ক হলো ঢালাওভাবে, ইসলামকে শান্তির ধর্ম না বলা। বরং বিষয়টি স্পষ্টভাবে, বুঝিয়ে বলা উচিত।

আল্লাহই সর্বাধিক জ্ঞাত।

লেখক
সহযোগী অধ্যাপক, জেরাশ ইউনিভার্সিটি, জর্ডান। 

প্রচলিত কুসংস্কারের বিরুদ্ধে ধর্মীয় ব্যখ্যা, সমাজের কোন অমীমাংসিত বিষয়ে ধর্মতত্ত্ব, হাদিস, কোরআনের আয়াতের তাৎপর্য কিংবা অন্য যেকোন ধর্মের কোন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, সর্বপরি মানব জীবনের সকল দিকে ধর্মের গুরুত্ব নিয়ে লিখুন আপনিও- [email protected]
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড