• মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ২৮ কার্তিক ১৪২৬  |   ২৪ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বাংলাদেশি আলমের নৌকায় আমিরাতের প্রধানমন্ত্রী

  অধিকার ডেস্ক

০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৮:৫৩
নৌকা ভ্রমণ
(ছবি : ইন্টারনেট)

সংযুক্ত আরব আমিরাতের উপ-রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও দুবাইয়ের শাসক শেখ মোহাম্মদ বিন রাশেদ আল মাকতুমকে দুবাই ক্রিক আবরা ভ্রমণ করালেন বাংলাদেশি নৌকা চালক মোহাম্মদ আলম। দুবাইর শাসক শেখ মোহাম্মদ বিন রাশেদ আল মাকতুমকে নৌকা ভ্রমণ করিয়ে এখন প্রশংসায় ভাসছেন বাংলাদেশি নৌকা চালক মোহাম্মদ আলম। দুবাই ক্রিকের ৬০ নম্বর আবরা বা নৌকা চালক বাংলাদেশি মোহাম্মদ আলম।

সম্প্রতি দুবাই শাসক পায়ে হেঁটে দুবাই গোল্ড সুকে যান, সেখান থেকে নৌকায় করে আবরা লেক পরিদর্শনে যান। আবরা লেক পারাপারের জন্য প্রধানমন্ত্রীর জন্য অনেক নৌকা প্রস্তুত রাখা হয়েছিল। কিন্তু এসব নৌকার মধ্য থেকে দুবাই শাসক বাংলাদেশির নৌকায় চড়ে বসেন। নৌকায় দুবাইয়ের শাসককে পেয়ে নিজেকে সৌভাগ্যবান ব্যক্তি মনে করেন প্রবাসী আলম।

প্রধানমন্ত্রীর নৌকায় পারাপারের এই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড হওয়ার পর তা রীতিমতো ভাইরাল হয়ে যায়। যে ভিডিওতে দুবাইয়ের ঐতিহ্যবাহী এক দিরহামে নৌকা পারাপারের দৃশ্য দেখা যায়। তবে এই ভিডিওতে সর্বাধিক আলোচিত নৌকা চালক বাংলাদেশি আলম।

গত মঙ্গলবার সকালে সেখানে রাখা নৌকা চালকদের মধ্য থেকে কোন নৌকায় চড়ে প্রধানমন্ত্রী লেক পার হবেন তা ছিল জনমনে। কে হবেন সেই সৌভাগ্যবান চালক? এমন গুঞ্জনও বেশ জোরেশোরে শোনা যাচ্ছিল।

খুশিতে মোহাম্মদ আলম আমিরাতের প্রভাবশালী গালফ নিউজকে বলেন, ‌‘গত সোমবার কোনো সাধারণ দিন ছিল না তার কাছে। নিজেকে অনেক ভাগ্যবান মনে করেছি, আমাদের মধ্যে অনেক চালক ছিলেন, আমার বস আমাকে জানিয়েছিলেন যে সড়ক ও পরিবহন কর্তৃপক্ষের (আরটিএ) কিছু অফিসারের জন্য আবরাকে আলাদাভাবে প্রস্তুত রাখতে হবে। জানতাম না শেখ মোহাম্মদও আসছেন, তাই আমি এগিয়ে গেলাম এবং এর চেয়ে বেশি কিছুই ভেবে দেখিনি।’

তিনি আরও বলেন, ‌শেখ মোহাম্মদ যখন নৌকাতে পা রেখেছিলেন, আমি তাকে প্রথমবারের মতো দেখে অবাক হয়েছি এবং খুব খুশি হয়েছি। তিনি আমার সাথে হ্যান্ডসেক করে জিজ্ঞেস করলেন আমি কেমন আছি এবং উত্তরে ভালো আছি জানিয়ে ধন্যবাদ জানালাম। আমি স্বাভাবিক ছিলাম, কারণ আমি সব সময় এই কাজটি করি, তাকে কেবল নৌকায় করে উঠাতে পেরেই আমি আনন্দিত।

৪০ বছর বয়সী আলম দুবাই ক্রিকের আল রাসে থাকেন এবং মাসে ১ হাজার দিরহাম বেতনের পাশাপাশি কমিশনে কাজ করেন তিনি। সকাল ৬টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত কাজ করেন।

২০০৬ সালে তিনি দুবাই আসেন, ১৩ বছরের চাকরি জীবনে এর আগে কখনো কোনো বিখ্যাত ব্যক্তি তার বোটে ভ্রমণ করেননি।

মোহাম্মদ আলমের দেশের বাড়ি কক্সবাজার জেলার উখিয়ায়, বাংলাদেশে তার স্ত্রী, দশ ও চার বছর বয়সী দুই সন্তান রয়েছে।

ওডি/টিএএফ

প্রবাস জীবন, আকাঙ্খা, প্রত্যাশা-প্রাপ্তির সমীকরণ সবই লিখুন দৈনিক অধিকারকে [email protected] আপনার প্রবাস জীবনের প্রতিটি ক্ষুদ্র অনুভূতিও আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড