• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ২১ আষাঢ় ১৪২৯  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

মালয়েশিয়ায় পর্দা নামছে ১২তম গিফ্ট ফেয়ারের

  আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া প্রতিনিধি

২৪ জুন ২০২২, ১৫:৩৯
মালয়েশিয়ায় পর্দা নামছে ১২তম গিফ্ট ফেয়ারের
গিফ্ট ফেয়ার অনুষ্ঠিত হচ্ছে (ছবি : অধিকার)

মালয়েশিয়ায় আজ শেষ হচ্ছ ৩দিন ব্যাপি ১২তম গিফ্ট ফেয়ার। এই ইভেন্টের সাফল্য দেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের সাথে যুক্ত মালয়েশিয়ার পণ্য তৈরিতে স্থানীয় প্রিমিয়াম উপহার শিল্পের জন্য ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে।

মালয়েশিয়া গিফ্ট ফেয়ার প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে সাংস্কৃতিক উপহার প্রচারের অংশীদারিত্বের উপর নির্মিত বিশ্বব্যাপী প্রচারাভিযান শুরু করতে প্রস্তুত জানালেন, দেশটির দেশটির পর্যটন, শিল্প ও সংস্কৃতি মন্ত্রী দাতুক সেরি ন্যান্সি শুকরি।

এ দিকে গিফ্ট ফেয়ারে প্রথমবারের মতো অংশ নিয়েছে বাংলাদেশ। গত ২২ জুন কুয়ালালামপুর কনভেনশন সেন্টারে শুরু হওয়া গিফ্ট ফেয়ার আজ ২৪ জুন শুক্রবার শেষ ওচ্ছে। ফেয়ারে বাংলাদেশের শোয়াদ ফ্যাশন, জিহান প্লাষ্টিক ইন্ডাষ্ট্রি, বসুন্ধরা গ্রুপ, লাইট অফ হোপ লিমিটেড, মৈত্রী ইনফেনিটি, কাউ এ্যাপেরেলস, ওম রিসোর্সেস, ফোরস্কয়ার রিসোর্স ও এলোরা হ্যান্ড ষ্টিক্যাড ওয়ার্ক এন্ড হ্যান্ডিক্রাফ্ট। বাংলাদেশ ছাড়াও সিঙ্গাপুর, হংকং ও মালয়েশয়ার প্রায় শতাধিক ব্যবসায়ি শিল্প প্রতিষ্টাণ গিফ্ট ফেয়ারে অংশ নিয়েছেন।

ফেয়ারে অংশ গ্রহণকারী বাংলাদেশি ব্যবসায়িরা বলছেন, বাংলাদেশ রফতানি ব্যুরো ও বাংলাদেশ হাই কমিশনের সার্বিক তওাবদানে প্রথম বারের মতো মেলায় অংশগ্রহণ করে মালয়েশিয়ান ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে ভাল রেসপন্স পাওয়া গেছে। তারা আগ্রহ নিয়ে স্টলে এসেছেন।

এর মধ্যে শোয়াদ ফ্যাশন কয়েকটি ওয়ার্ডারও পেয়েছে। বাংলাদেশ ও মালয়েশিয়ার মধ্যকার বাণিজ্য সম্প্রশারনে এফটিএ চুক্তি দ্রুত বাস্তবায়নের দাবি জানিয়েছেন, ফেয়ারে অংশগ্রহণকারী বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা। ৩ দিনব্যাপী গিফ্ট ফেয়ারে মালয়েশিয়াস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনের কাউন্সিলর বাণিজ্যি মো. রাজিবুল আহসান স্টল পরিদর্শন করেছেন এবং বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের খোজঁ খবর নিয়েছেন।

এ সময় তিনি বলেন, মালয়েশিয়া বাংলাদেশের ঘনিষ্ঠ বন্ধু রাষ্ট্র। মুসলিম রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে মালয়েশিয়া প্রথম বাংলাদেশকে স্বীকৃতি প্রদান করে। মালয়েশিয়ার সঙ্গে বাংলাদেশের বাণিজ্যিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। মালয়েশিয়ার সঙ্গে বাংলাদেশের বাণিজ্যিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক বাড়ানোর অনেক সুযোগ রয়েছে। এ সুযোগকে কাজে লাগাতে হবে।

এফটিএর মতো বাণিজ্য চুক্তি স্বাক্ষরের মাধ্যমে বাংলাদেশ বিভিন্ন দেশের সঙ্গে টেকসই বাণিজ্য সুবিধা সৃষ্টির চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। মালয়েশিয়ার সঙ্গে এফটিএ স্বাক্ষরের জন্য বাংলাদেশ কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

এ ছাড়া প্রতিযোগিতামূলক বিশ্ববাণিজ্যে এগিয়ে যাওয়ার জন্য বাংলাদেশ বাণিজ্য সহজীকরণের সব পদক্ষেপ আমাদেও সরকার গ্রহণ করেছে জানিয়ে রাজিবুল আহসান বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে বাংলাদেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্খানে ১০০টি স্পেশাল ইকোনমিক জোন গড়ে তোলার কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে। অনেকগুলোর কাজ এখন চূড়ান্ত পর্যায়ে।

পৃথিবীর অনেক দেশ এ ইকোনমিক জোনে বিনিয়োগের জন্য এগিয়ে এসেছে। আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে ব্যবসা-বাণিজ্য করার সুযোগ সৃষ্টি করতে বাংলাদেশ কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, মালয়েশিয়ার সঙ্গে বাংলাদেশের এখন পর্যন্ত দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য চুক্তি ১৯৭৭, সমুদ্র পরিবহন চুক্তি ১৯৮৩, অর্থনৈতিক ও কারিগরি সহযোগিতা চুক্তি ১৯৯২ এবং দ্বৈত কর পরিহার চুক্তি ১৯৯৪ রয়েছে। এফটিএ বা পিটিএ হলে তা হবে দেশটির সঙ্গে পঞ্চম বাণিজ্য চুক্তি।

ওডি/কেএইচআর

প্রবাস জীবন, আকাঙ্খা, প্রত্যাশা-প্রাপ্তির সমীকরণ সবই লিখুন দৈনিক অধিকারকে [email protected] আপনার প্রবাস জীবনের প্রতিটি ক্ষুদ্র অনুভূতিও আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড