• বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১৬ আষাঢ় ১৪২৯  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

মিশিগানে মৃধা বেঙ্গলি কালচারাল সেন্টারের উদ্বোধন

  কামরুজ্জামান হেলাল, যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি

১৫ জুন ২০২২, ১১:০৬
মিশিগানে মৃধা বেঙ্গলি কালচারাল সেন্টারের উদ্বোধন
অনুষ্ঠানে উপস্থিত অতিথিরা (ছবি : অধিকার)

যুক্তরাষ্ট্রের মিশিগান অঙ্গরাজ্যের ওয়ারেন সিটিতে বেলুন উড়িয়ে এবং মঙ্গল প্রদীপ জ্বালিয়ে বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে মৃধা বেঙ্গলি কালচারাল সেন্টারের উদ্বোধন করা হয়েছে। শনিবার (১১ জুন) আয়োজনটিকে ঘিরে বাংলা উৎসবের এই মেলাটি প্রবাসী বাংলাদেশিদের মিলনমেলায় পরিণত হয়।

চিনু মৃধা, মৃদুল কান্তি সরকার ও মির রসির সার্বিক তত্ত্বাবধানে সেদিন দুপুর ১২টায় নগরীর ২২০২১, মেমফিস এভিনিউস্থ কালচারাল সেন্টারে চিত্রাঙ্কন ও ম্যাথ অলিম্পিয়াড প্রতিযোগিতার মধ্যে দিয়ে জমজমাট বাংলা উৎসব শুরু হয়।

দুপুর ১টা ৩০ মিনিটে ছিল ঘুড়ি উৎসব প্রতিযোগিতা। বিদেশের মাটিতে বেড়ে উঠা নতুন প্রজন্মকে বাঙালি ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি সম্পর্কে ধারণা দেওয়ার জন্য ঘুড়ি ওড়ানো প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। সবার অংশগ্রহণে আয়োজনটি উৎসবে পরিপূর্ণতা পেয়েছে।

বিকাল ৪টায় কালচারাল সেন্টারের মাঠে বেলুন উড়িয়ে উৎসবের উদ্বোধন করেন প্রতিষ্ঠাতা মৃধা বেঙ্গলি কালচারাল সেন্টারের বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মার্কিন চিকিৎসক এবং দার্শনিক ড. দেবাশীষ মৃধা ও তার সহধর্মিণী চিনু মৃধা। এরপর মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্বলন ও প্রবেশদ্বারের ফিতা কেটে অতিথিদের নিয়ে কালচারাল সেন্টারের প্রবেশ করেন তারা।

এ পর্যায়ে মৃদুল কান্তি সরকারের উপস্থাপনায় এবং সুপ্রভাত মিশিগানের সম্পাদক চিনু মৃধার সভাপতিত্বে আলোচনা সভা শুরু হয়। সভায় ড. দেবাশীষ মৃধা প্রধান অতিথি এবং ডা. সুলতানা গজনবী বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- পূর্ণেন্দু চক্রবর্তী অপু, বাংলা প্রেসক্লাব অব মিশিগানের সম্পাদক মোস্তফা কামাল, কবি ও গীতিকার ইশতিয়াক রুপু আহমেদ, শিব মন্দির টেম্পল অব জয়ের কো অর্ডিনেটর রতন হাওলাদার, অজিত দাশ, শারমিন তানিম, সুপ্রভাত মিশিগানের সম্পাদক চিন্ময় আচার্য্য, রাজর্ষি চৌধুরী গৌরব প্রমুখ।

আরও পড়ুন : শেষ হচ্ছে মালয়েশিয়া থেকে অবৈধদের দেশে ফেরার সুযোগ

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. দেবাশীষ মৃধা বলেন, আমাদের অন্য পরিচয় থাকতে পারে। যেমন- আমরা বাংলাদেশি, হিন্দু কিংবা মুসলিম। কিন্তু আমাদের আসল পরিচয় আমরা বাঙালি। সকলেরই এমন একটা আসল পরিচয় থাকে। আপনি আমেরিকান হতে পারেন, এরপরও সবাই বলবে আপনি একজন বাঙালি। আপনি জানেন, যারা এদেশের নেটিভ আমেরিকানরা বলে থাকেন আমরা ২০% বা ১০% নেটিভ আমেরিকান। এ জন্য তারা গর্ব করে।

উদাহরণ টেনে তিনি বলেন, আমি একজন রাশিয়ানকে জানি, যার বয়স ৮০ বছর, তার স্ত্রীও একজন আমেরিকান। তিনি আমেরিকান হয়ে গেছেন, রাশিয়ান ভাষা ও সংস্কৃতি জানেন না। তাকে আমি জিজ্ঞেস করেছিলাম, তোমার পরিচয় কি উনি বললেন আমি রাশিয়ান। সেই ৮০ বছর বয়সেও তিনি নিজের ভাষা, সংস্কৃতি শিখতে দেশে গিয়েছিলেন।

তিনি আরও বলেন, সুতরাং, আপনি পৃথিবীর যেখানেই থাকুন না কেন, যেভাবে বিশ্বাস করুন বা যে দেশে বাস করুন আপনার একটাই পরিচয়। আসল পরিচয় আপনি বাঙালি। বাংলা সংস্কৃতি আপনার পরিচয়কে তুলে ধরবে। সংস্কৃতিকে রবীন্দ্র নাথ ঠাকুর হীরকখণ্ডের বিচ্ছুরিত আলোর সাথে সাথে তুলনা করেছেন। আমরা সেই আলো সমগ্র পৃথিবীতে ছড়িয়ে দিতে চাই।

সভাপতির বক্তব্যে চিনু মৃধা উৎসবে অংশগ্রহণকারী সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে আগামীতেও এ ধরণের মেলার আয়োজনের প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

এরপর ঘুড়ি উড়ানো উৎসবে দক্ষতা ও আকর্ষণীয় উপস্থাপনের ভিত্তিতে তিনজনকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। বিজয়ীরা হলেন- অরচিত চৌধুরী, মাহিকা সরকার এবং শ্রেয়সী পাল। প্রতিযোগিতাটি পরিচালনা করবেন- রাজর্ষি চৌধুরী গৌরব। অতিথিবৃন্দ বিজয়ীদের মধ্যে ট্রফি ও সার্টিফিকেট বিতরণ করেন। এছাড়াও এসব প্রতিযোগিতায় সকল অংশগ্রহণকারীদের সার্টিফিকেট দেওয়া হয়। পুরষ্কার বিতরণ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন- সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সৌরভ চৌধুরী।

পুরষ্কার বিতরণ শেষে আমেরিকান ন্যাশনাল এনথেম (জাতীয় সংগীত) পরিবেশন করেন অমিতা মৃধা। বাংলা স্কুল অব মিউজিক কিডস পরিবেশন করে বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত। দুই দেশের জাতীয় সঙ্গীতের মাধ্যমে শুরু হয় সাংস্কৃতিক উৎসব। সঙ্গীতানুষ্ঠানে গান পরিবেশন করেন- আকরাম হোসেন, আজমল হোসেন, তপন প্রভু, শিমুল দত্ত, মারুফ সৌরভ, ডা. সুলতানা গজনবী, জ্যোৎস্না বিশ্বাস, অজিত দাস, সুস্মিতা চৌধুরী, সঙ্গীতা পাল, কামরুন হায়দার, মিতা মান্নান, কাবেরি দে, আয়েশা চৌধুরী, উর্মি বাসেত, শ্রদ্ধা হাওলাদার, পূর্ব রায়, অদিতি রায়,রুমকি সেন। যন্ত্রে ছিলেন অতুল দস্তিদার, অসিত বরন চৌধুরী। তবলায় সহযোগিতা করেন রতন হাওলাদার, জেফরি কাদরিও ও শিমুল দত্ত।

শিব মন্দির কালচারাল গ্রুপের শিল্পীরা পরপর তিনটি সমবেত সঙ্গীত পরিবেশন করেন। এতে অংশ নেন- অজিত দাশ, চিনু মৃধা, সুস্মিতা চৌধুরী, নীলিমা রায়, সঙ্গীতা পাল, প্রতিভা কপালী, সুপর্ণা চৌধুরী, জ্যোৎস্না বিশ্বাস, মিতা চৌধুরী, রূপাঞ্জলী চৌধুরী, সুমা দাশ, রাজশ্রী শর্মা, অপূর্ব চৌধুরী, স্মৃতি কর, গৌরি আচার্য্য বেবী। তবলায় ছিলেন রতন হাওলাদার।

আরও পড়ুন : পদ্মা সেতু নির্মাণে জড়িতদের সঙ্গে ছবি তুলবেন প্রধানমন্ত্রী

দ্বৈত নৃত্য পরিবেশন করেন- চিনু মৃধা ও অমিতা মৃধা এবং মৃত্তিকা সরকার ও অর্পিতা সেন, তিনটি গ্রুপ ড্যান্সে অন্তরা অন্তি ও তার দল, অনিকা, মৌমিতা ও অস্মিতা হাওলাদার এবং মহুদা দাশ মিষ্টি অংশ নেন। একক নৃত্য পরিবেশন করেন- শারমিন তানিম ও অন্তরা অন্তি। ভায়োলিন বাজান সামান্তা চৌধুরী। কবিতা পাঠ করেন- দেবাশীষ দাশ। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন- চিনু মৃধা, আকরাম হোসেন, আয়েশা চৌধুরী, মৌসুমি দত্ত ও সুপর্ণা চৌধুরী। অনুষ্ঠানে সাউন্ড সিস্টেমের দায়িত্বে ছিলেন- রাজর্ষি চৌধুরী গৌরব।

প্রবাস জীবন, আকাঙ্খা, প্রত্যাশা-প্রাপ্তির সমীকরণ সবই লিখুন দৈনিক অধিকারকে [email protected] আপনার প্রবাস জীবনের প্রতিটি ক্ষুদ্র অনুভূতিও আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড