• সোমবার, ১৪ জুন ২০২১, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

তৃণমূল ছাত্রলীগ সংগঠনের প্রাণ : সাদ

  এস এম ইউসুফ আলী, ব্যুরো প্রধান' ফেনী

১১ জুন ২০২১, ১৩:২৫
তৃণমূল ছাত্রলীগ সংগঠনের প্রাণ : সাদ
ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক সাদ বিন কাদের চৌধুরী (ছবি : সংগৃহীত)

তৃণমূলে ছাত্রলীগের কর্মকাণ্ড নিয়ে আক্ষেপ প্রকাশ করেছেন দলটির কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক সাদ বিন কাদের চৌধুরী। ফেনীর এই যুবকের মতে, তৃণমূলে বাড়ছে ধর্মান্ধ গোষ্ঠীর আস্ফালন। এদের রুখে দিতে এবং সংগঠনের গতিশীলতা বৃদ্ধির জন্য কমিটিগুলো গঠনের কোনো বিকল্প নেই!

মঙ্গলবার (৮ জুন) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক আইডিতে স্ট্যাটাস দেন ডাকসুর সদ্য সাবেক স্বাধীনতা, সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক সাদ। মহামারি করোনা ভাইরাসের সংকট কাটাতে বিনামূল্যে জয় বাংলা নামে অক্সিজেন সেবা চালু করেও আলোচিত ফেনীর এ মেধাবী সন্তান। তার দেওয়া স্ট্যাটাসটিতে সহমত প্রকাশ করে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের নেতাকর্মীরা তাদের জেলা, উপজেলা এমনকি ইউনিয়ন পর্যায়ের চিত্র তুলে ধরেছেন।

সাদ লিখেছিলেন, তৃণমূল ছাত্রলীগ সংগঠনের প্রাণ। দীর্ঘ সময় ধরে তৃণমূলের কমিটি হয় না। অনেক জায়গায় জেলা কমিটি হলে পূর্ণাঙ্গ নেই, পূর্ণাঙ্গ হলে উপজেলা নেই, উপজেলা হলে পৌর নেই, ইউনিয়ন নেই, ওয়ার্ড নেই আবার কোথাও কিছু নেই। সেন্ট্রাল, বিশ্ববিদ্যালয় বা মহানগর মাঝে মধ্যে দেড়িতে হলেও নতুন কমিটি হয়, কিন্তু উপেক্ষিত থাকে একবারে তৃণমূল।

তিনি লিখেছেন, কোনো কমিটি যুগ অর্ধযুগ আবার কোনো কমিটি আরও দীর্ঘসময় ধরে চলমান! যার ফলে সংগঠন ধীরে ধীরে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে, যার ফলাফল সুদূর প্রসারী। তৃণমূলের কমিটিগুলা গঠন এখন সময়ের দাবি। এগুলা গঠনের জন্য কেন্দ্র থেকে জোর নির্দেশনা প্রয়োজন! যেহেতু বেশিরভাগ কমিটির মেয়াদ যুগ-অর্ধযুগ পার হয়েছে তাই অনেক ইউনিটের প্রেসিডেন্ট সেক্রেটারি বিয়ে করেছেন। তারা নিজেরাই দায়িত্ব ছেড়ে দিতে চান। অনেকের সুন্দর ফুটফুটে বাচ্চা রয়েছে। আবার অনেকের সন্তান স্কুলে অধ্যয়নরত।

সাদের দাবী, তাদের কমিটিগুলা অন্তত গঠন করা হোক। তাই তাদের সম্মানজনক বিদায়ের মাধ্যমে নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টি করা হোক। আর যাদের গোপনে আছে তাদের হিসেব না হয় বাদই দিলাম। গোপনের উপরতো আর কারো হাত নেই। এক্ষেত্রে সাক্ষীও দুর্বল!

স্ট্যাটাসে উল্লেখ করা হয়, সংগঠন সবার জন্য পবিত্র আমানত। যারা সংগঠনের সাথে জড়িত তারা যৌবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সময়গুলো সংগঠনের জন্য ব্যয় করে। এদের বাঁচাতে হবে, উদ্ধার করতে হবে। অন্তত পদে না আসলেও নিজের ভবিষ্যতের দিক এগিয়ে যেতে পারবে! তৃণমূলে বাড়ছে ধর্মান্ধ গোষ্ঠীর আস্ফালন। এদের রুখে দিতে এবং সংগঠনের গতিশীলতা বৃদ্ধির জন্য এই কমিটিগুলা গঠনের কোনো বিকল্প নেই।

সাদের দাবী, করোনায় আমাদের অনেক সীমাবদ্ধ করে দিয়েছে এই কথা অস্বীকারের সুযোগ নেই। তবে করোনার যে পরিস্থিতি আগামী কয়েকবছর এর মধ্য দিয়েই হয়ত আমাদের থাকতে হবে এবং যেতে হবে।

করোনা পরিস্থিতি কখন ভালো হবে, আবার কখন খারাপ হবে সে বিষয়ে নিশ্চিত করে কোনো কিছু বলা মুশকিল। আমাদের বিকল্প কর্মপরিকল্পনা ঠিক করতে হবে। অনলাইন প্লাটফর্মকে কাজে লাগাতে হবে। তাই বাকি কাজ গুলা বন্ধ না রেখে সময়ের সাথে এগিয়ে নিতে হবে। অন্যথায় সময় আমাদের পিছিয়ে দিবে!

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সহ সভাপতি ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার বাসিন্দা নাজমুল হাসান রনি লিখেছেন, আমাদের উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক কমিটি ১০/১২ বছর ধরে। তাদের বাচ্চারা ক্লাস ৪/৫ এ পড়ে।

ওনারা দায়িত্ব ছাড়তে চাই কিন্তু সাংগঠনিকভাবে কোনো পদক্ষেপ পাচ্ছে জেলা থেকে এমনি সেন্ট্রালে এসেও ঘুরে গেল অনেকদিন তাও কিছু হচ্ছে না। এমন চলতে থাকতে এলাকার ইয়ং ছেলে পেলে রাজনীতির প্রতি উৎসাহ হারিয়ে ফেলবে…।

সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক মাসুদ আহমেদ স্ট্যটাসটিতে লিখেছেন, সিলেট জেলা কমিটি নেই ৪ বছর ধরে মহানগর নেই ৩ বছর ধরে। সাবেক ছাত্রদল আর শিবির সুযোগে বিভিন্ন গ্রোপে জায়গা পাকাপোক্ত করছে। এই ভাবে চলতে থাকলে, আমাদের জন্য ভবিষ্যতে এই অঞ্চলে রাজনীতি করা কঠিন হবে।

ময়মনসিংহ সদর উপজেলার সিরতা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহবায়ক মাসুদ রানা বিজয় লিখেছেন, ২১ বছর ধরে ময়মনসিংহের সদর উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি নেই… এইভাবে চলতে থাকলে ছাত্রলীগ অস্তিত্বের সম্মুখীন হবে...।

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগ সদস্য শেখ ফরিদ লিখেছেন, রামগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি এক বছর হলেও ছয় বছর পেরিয়ে গেল।

চাঁদপুরের মতলব উপজেলার এক ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি এসএম সেলিম রেজা লিখেছেন, চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগের অন্তর্গত অধিকাংশ ইউনিট আজকে ১২/১৫ বছর ধরে চলছে। আমাদের মতলব উত্তর/দক্ষিণ উপজেলার আহবায়ক কমিটির মেয়াদ ১২ বছর। আমি নিজে ইউনিয়ন ছাত্রলীগ এর সভাপতি ২০১৪ সাল থেকে।

চাইলেও সম্মেলন করে নতুনদের দায়িত্ব বুজিয়ে দিতে পারছি না। আমাদের মতলবের কমিটির জন্য মাননীয় সাবেক মন্ত্রী মহোদয় ও বর্তমান সাংসদের অসংখ্যবার সেন্ট্রালে ও জেলায় যোগাযোগ করার পরও কোনো কমিটি হচ্ছে না। ছাত্রলীগের নিয়ম শৃঙ্খলা এখন আজব মনে হচ্ছে! কখন যে কি হতে যাচ্ছে কিছু বুজায় না। এক অনিশ্চিত ভবিষ্যতের দিকে ছাত্রলীগের রাজনীতি ধাবিত হচ্ছে।

ফেনীর ফুলগাজী উপজেলার জিএমহাট ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি কেফায়েত উল্লাহ লিখেছেন, মনের কথা বলার জন্য ধন্যবাদ ভাই,তবে একটা কথা রয়ে যায় পদে থাকলে তাদের জন্য গঠনতন্ত্র মানা ফরজ না হলেও পদ প্রত্যাশীর জন্য এটা ফরজ কেন, ছাত্রলীগে এই বৈষম্য দূর করতে হবে।

ওডি/কেএইচআর

jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড