• বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪ আশ্বিন ১৪২৯  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বঙ্গবন্ধু’ ও ‘বাংলাদেশ’ দুটি নাম, একটি ইতিহাস

  এফ এম শরিফুল ইসলাম শরিফ

১৫ আগস্ট ২০২২, ১৫:৪৪
ছাত্রলীগ

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একজন সার্বভৌম ব্যক্তিত্ব। বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক দর্শন ও লালিত স্বপ্ন ছিল স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করা। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একজন দার্শনিক, রাজনীতিবিদ। বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক দর্শন জগৎ বিখ্যাত গ্রিক দার্শনিক সক্রেটিসের সাথে তুলনা করা যায়। সক্রেটিসের বিশ্ব বিখ্যাত উক্তি ‘আই টু ডাই, এন্ড ইউ টু লিভ. হুইচ ইজ বেটার অনলি গড নোজ’। গ্রিক দার্শনিক সক্রেটিসকে হেমলেট লতার বিষপান করিয়ে গ্রিকরাজ হত্যা করেছিলেন। শুধুমাত্র গ্রিক সভ্যতার নয়, পৃথিবীর রাজনৈতিক দর্শনের ক্ষেত্রে এত বড় শূন্যতা আর কাউকে দিয়ে পূরণ করা সম্ভব হয়নি। এমনকি এটা প্লেটো বা এরিস্টটলের মত দার্শনিকরাও পূরণ করতে পারেনি। ঠিক একই ভাবে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষের শক্তির মদদে ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের কতিপয় বিপথগামী সেনা সদস্য সপরিবারে হত্যা করেন। বঙ্গবন্ধু হত্যা বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে নিষ্ঠুরতম এবং দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা। এটি নিছক কোনো দূর্ঘটনা ছিল না, রাষ্ট্রক্ষমতা দখলই এই মর্মান্তিক হত্যাকাণ্ডের লক্ষ্য ছিল না। এটি ছিল মূলত একাত্তরের পরাজিত শক্তি ও তাদের আন্তর্জাতিক দোসরদের সুগভীর চক্রান্তে সুপরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। যার মূল লক্ষ্য ছিল এই দেশ থেকে চিরতরে বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, মহান মুক্তিযুদ্ধের গৌরবময় ইতিহাস—সব মুছে দেশকে পাকিস্তানি ভাবধারায় পরিচালিত করা, একটি ইসলামী প্রজাতন্ত্র ঘোষণা করে একাত্তরের পরাজয়ের চরম প্রতিশোধ গ্রহণ করা। আর তাই বঙ্গবন্ধুকে হত্যার প্রত্যুষেই কুলাঙ্গার খুনি মেজর ডালিম সদম্ভে ঘোষণা দিয়েছিল ‘ইসলামী রিপাবলিক অব বাংলাদেশ’ বলে। তার পর একে একে ৩০ লাখ শহীদের রক্তে লেখা পবিত্র সংবিধানের চার মূল স্তম্ভ থেকে মুছে দেওয়া হয় ধর্মনিরপেক্ষতা, সমাজতন্ত্র ও বাঙালি জাতীয়তাবাদ।

বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের স্থপতি, আমাদের জাতির পিতা। তাঁর জন্ম আমাদেরকে একটি স্বাধীন আবাস বাংলাদেশকে দিয়েছে, বিশ্ব মানচিত্রে বাংলাদেশের অবস্থানকে সুনির্দিষ্ট করেছে।সুতরাং ‘বঙ্গবন্ধু’ ও ‘বাংলাদেশ’ দুটি নাম, একটি ইতিহাস। এক এবং অভিন্ন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের ইতিহাসে এমন এক চরিত্র, যাকে বাদ দিলে বাংলাদেশ মানচিত্রে কল্পনা করা অসম্ভব। বঙ্গবন্ধু, জাতির জনক, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, বাংলাদেশের স্থপতি, বিশ্ববন্ধু (ফ্রেন্ড অব দ্যা ওয়ার্ল্ড) ইত্যাদি বিশেষণ বিশ্লেষণ করলেই প্রতীয়মান হয়, তিনি বাংলাদেশের জন্য কী করেছেন। স্বনামধন্য লেখক আহমদ ছফা শেখ মুজিবুর রহমান নামক প্রবন্ধে লিখেছেন, ‘বাংলাদেশের স্বাধীনতা এবং শেখ মুজিবুর রহমান এ দুটো যমজ শব্দ, একটা আরেকটার পরিপূরক এবং দুটো মিলে আমাদের জাতীয় ইতিহাসের উজ্জ্বল-প্রোজ্জ্বল এক অচিন্তিত পূর্ব কালান্তরের সূচনা করেছে।’

তবে আশার কথা হলো, বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ পুনরায় বিজ্ঞান ভিত্তিক শিক্ষা ডিজিটাল যুগে প্রবেশ করেছে। জাতির পিতার সোনার বাংলা গড়ার অন্যতম প্রধান মাধ্যম ছিল সু-শাসন প্রতিষ্ঠা ও জনগণের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা।প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরণের মাধ্যমে জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠা ফলশ্রুতিতে অর্থনৈতিক উন্নয়ন নিশ্চিত করা এটি ছিল বঙ্গবন্ধুর চেতনা।সে চেতনা বাস্তবায়নে তারই সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশের উন্নয়নে কাজ করে চলেছেন। বাংলাদেশ করোনা পরিস্থিতি সামলে অর্থনৈতিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে চলেছে। দেশে স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি অপপ্রচারে সক্রিয় থাকলেও এটি অস্বীকার করার সুযোগ নেই যে,আজ বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশ।সুতরাং আসুন আমরা বঙ্গবন্ধুকে হারানোর শোককে শক্তিতে রূপান্তর এবং দেশ গঠনে আত্মনিয়োগ করি। জাতির জনক ‘সোনার বাংলা’র স্বপ্ন দেখেছিলেন। আমাদের দায়িত্ব হবে দেশকে একটি সুখী ও সমৃদ্ধ দেশে পরিণত করে জাতির জনকের সেই স্বপ্ন পূরণ করা। তা হলেই তার আত্মা শান্তি পাবে এবং আমরা এই মহান নেতার প্রতি যথাযথ সম্মান প্রদর্শন করতে পারবো।

লেখক: সাবেক সভাপতি, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ ও বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক,

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ।

চলমান আলোচিত ঘটনা বা দৃষ্টি আকর্ষণযোগ্য সমসাময়িক বিষয়ে আপনার মতামত আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। তাই, সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইলকরুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড