• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১৩ কার্তিক ১৪২৮  |   ৩১ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

মোবাইল জার্নালিজমে ভবিষ্যৎ দেখি

  মামুন সোহাগ

১২ জুলাই ২০২১, ১৬:২৩
মতামত
ছবি : সংগৃহীত

বিশ্ব আজ হাতের মুঠোয়। মোবাইল সাংবাদিকতার ফলে তা আরও সহজ থেকে সহজতর হয়েছে। মুহূর্তেই এক জায়গা থেকে লাইভ বা ভিডিয়ো করে তা গোটা বিশ্বে ছড়িয়ে দেওয়া যায়। আজকালের নিকনেম ‘ভাইরাল’ বনে যায়। তবে ‘মোবাইল সাংবাদিক’ বা মোজোর জন্য দরকার বেশকিছু টুলস। আর সাথে চাই তার সঠিক ব্যবহার।

একজন মোবাইল জার্নালিস্ট সহজে বহনযোগ্য অন্য কোনো ডিজিটাল ডিভাইস ব্যবহার করতে পারেন মোজো করার জন্য। যেমন ধরুন, ছবি তোলার জন্য তিনি স্মার্টফোনের বদলে ডিএসএলআর ক্যামেরাও ব্যবহার করতে পারেন। কারণ এই ক্যামেরা অনায়াসে যত্রতত্র ব্যবহার করা যায়। তবে মোবাইল সাংবাদিকতায় মূলত প্রাইমারি ডিভাইস হিসেবে স্মার্টফোন ব্যবহার করা হয়।

ছবি তোলা, ছবি এডিটিং, ভিডিয়ো করা, মানুষের ইন্টারভিউ নেওয়া এসব কাজের জন্য আধুনিক স্মার্টফোনগুলো বেশ পারদর্শী। অবশ্য অনেক মোবাইল জার্নালিস্ট ল্যাপটপ ব্যবহার করেন তার সংবাদটি সম্পাদনা করার জন্য। কিন্তু এতকিছু সত্ত্বেও মোবাইল জার্নালিজমের মূল কেন্দ্রবিন্দু হচ্ছে একটি স্মার্টফোন।

করোনাকালে গোটা বিশ্ব এখন ঘরবন্দি। মারা যাচ্ছে লাখ লাখ মানুষ। আর এই তালিকায় কিন্তু সাংবাদিকরাও রয়েছে। তথ্য আদান-প্রদানে মোবাইল ফোন বা স্মার্টফোন সাংবাদিকতা গণমাধ্যমের জন্য একটি অপরিহার্য উপকরণ হয়ে উঠেছে। তাই একজন ক্ষুদ্র গণমাধ্যমকর্মী হিসেবে আমি মনে করি দিন থাকতেই মোবাইল সাংবাদিকতায় প্রবেশ করা উচিত। এখানেই তরুণদের ভবিষ্যৎ, তাদের সুদিন।

বাংলাদেশেও নোভেল করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে অফিস-আদালত বন্ধ, আবার রোগটি ছোঁয়াচে হওয়ায় হকারের মাধ্যমে আসা ছাপানো সংবাদপত্রও এড়িয়ে চলছেন অনেকে। ফলে ঢাকায় সংবাদপত্রের বিক্রি প্রায় অর্ধেকে নেমে এসেছে বলে হকারদের কাছ থেকে তথ্য মিলেছে সম্প্রতি গণমাধ্যমে পরিবেশিত এক তথ্যে। আকারে ছোট হওয়ায় বড় ধরনের কোনো ঘটনা কিংবা সংকটময় পরিস্থিতিতে মোবাইল ফোন সাংবাদিকতার ব্যবহার অতুলনীয়। আর দেশে এখন শুধু স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যাই দুই কোটির ওপরে। ফলে এই সময়ে সুদিন ফেরাতে দরকার ‘মোবাইল সাংবাদিকতা’।

মোবাইল সাংবাদিকেরা বড় ভুল করেন, যখন টেলিভিশন সাংবাদিকতার পদ্ধতি নকল করতে চান। তারা মনে করেন, টেলিভিশনের মতো করে কাজটা করতে পারলে, টেলিভিশন উপস্থাপকের মতো বলতে পারলে সফল হবেন। কিন্তু মোবাইল সাংবাদিকতা তা নয়। আসল কথা হলো আপনাকে সৃজনশীল হতে হবে। সাংবাদিকতার কাজে, বিশেষ করে সম্প্রচার গণমাধ্যমের জন্য পেশাদার মিডিয়া কনটেন্ট তৈরি করতে হলে ‘স্মার্টফোন ফিল্মিং’-এর বাস্তব শিল্প সম্পর্কে জ্ঞান থাকা প্রয়োজন। সিএনএন, বিবিসি কিংবা আল-জাজিরার মতো প্রভাবশালী গণমাধ্যমগুলো মোবাইল সাংবাদিকতা-বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালার আয়োজন করে।

আমাদের দেশে মোবাইল সাংবাদিকতা এখনো পুরোপুরি পরিচিতি লাভ করতে পারেনি। কারণ এটার জন্য যে পরিমাণ যত্ন দরকার সেটা কিন্তু কোনো অংশে দেশে এখনো শুরু হয়নি। প্রচুর পরিমাণে মোবাইল সাংবাদিক তৈরি করতে হলে গুণগত মান বাড়ানোর লক্ষ্যে এ বিষয়ে নিয়মিত প্রশিক্ষণ কর্মশালার আয়োজন করতে হবে। পরে তারাই ইউটিউব কনটেন্ট, ফেসবুক কনটেন্ট প্রচুর তৈরি করার ফলে সেখান থেকেও ডলার আয় করবে। তবেই দেশে সাংবাদিকতার সংকট দূর হবে। এমনটাই বিশ্বাস করি, ভরসা রাখি।

লেখক: মাল্ডিমিডিয়া রিপোর্টার, বাংলাদেশ জার্নাল।

ওডি/আইএইচএন

চলমান আলোচিত ঘটনা বা দৃষ্টি আকর্ষণযোগ্য সমসাময়িক বিষয়ে আপনার মতামত আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। তাই, সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইলকরুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড