• সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৩ আশ্বিন ১৪২৭  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

করোনা পরীক্ষায় প্রবাসীদের নিকট ৪৫০০ টাকা গ্রহণ কী বৈধ?

  মো. তারেক রহমান

২১ জুলাই ২০২০, ১৯:১৬
লেখক মো. তারেক রহমান
লেখক মো. তারেক রহমান

২০২০ সাল না এলে আমরা বুঝতাম না প্রবাসীদের কি দৃষ্টিতে দেখে সরকার কি দৃষ্টিতে দেখে দেশের মানুষ। এ এক জন্মের শিক্ষা হয়ে গেছে তাদের। জায়গায় জায়গায় সরকারের অব্যবস্থাপনার দায় নিতে হয়েছে প্রবাসীদেরকে।

ডিসেম্বর মাসে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা করোনা ভাইরাস বিষয়ে সতর্ক করলেও তা আমলে নেয় নি সরকার।

সারাটা সময় মুজিব বর্ষের তাবিজ জপেছে। মার্চ নাগাদ ছাত্র অধিকার পরিষদের নেতা কর্মীরা তোড় জোড় করতে থাকে সরকারের প্রতি বিশ্বব্যাপী এলার্মিং অবস্থা জাড়ি করায়। সেই সময়টাতেও প্রস্তুতি না নিয়ে সরকার প্রধান সহ মন্ত্রীরা মিডিয়ার ভাঙ্গা রেডিও বাজিয়েছে তাদের সর্বোচ্চ প্রস্তুতি আছে।

নিজের জীবন বাঁচাতে প্রবাসীরা নিজ মাতৃভূমিতে ফিরে আসতে থাকলে সবাই সমালোচনা করতে থাকে প্রবাসীরা কেন দেশে আসে। সরকার সারাক্ষণ প্রচার করেছে তাদের সর্বোচ্চ প্রস্ততি আছে। কিন্তু বাস্তবতা এটাই দেখেছি যে, বিমানবন্দরে ৪ টি থার্মাল স্ক্যানের মাঝে ৩টিই নষ্ট ছিল। অবশিষ্ট একটি সেটিও অধিকাংশ সময় হ্যাং ছিল।

এটা অস্বীকার করতে পারবে না যে, সরকার পরীক্ষা না করেই আক্রান্ত অনাক্রান্ত প্রবাসীদের হজক্যাম্পের গণরুমে এক সাথে রেখেছিল। আমরা জেনেছি সেখানে খাবার সমস্যা, পানীয় জলের সমস্যার পাশাপাশি স্যানিটেশন সমস্যা প্রকট ছিল।

ফলে পরীক্ষা নিরীক্ষা ছাড়া আশকোনা হজ্ব ক্যাম্প যেন করোনার হটস্পট বানিয়ে রেখেছিল সরকার। প্রবাসীদের কিছু অংশ খুব জোড়ের সাথে প্রতিবাদ করেছিল। বলেছিল, "আই ফাক দিস কান্ট্রি সিস্টেম।"

আরও পড়ুন- খোকসার আলোকবর্তিকা কুতুব উদ্দিন স্যারের স্মৃতি!

ইদানিং র‍্যাবের ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার ভাইকে অনেকে সুপার হিউম্যান বানিয়ে দিছে। রিজেন্ট হসপিটাল সাম্প্রতিক সিলগালা করেছেন তিনি। এ দিকে অনলাইনে লাল-লাল, নীল-নীল বস্ত্র নিয়ে হাজির সাবরিনা ও আরিফ। সাবরিনার টিম গত কিছুদিন আহে তিতুমীর কলেজের কর্মচারীদের মারপিট করে।

তখন সরকার সমর্থক টকশো কাপানো হিরোরা ধিক্কার দিচ্ছিল তিতুমীর কলেজের কর্মচারীদের, সাবরিনার কাজে বাঁধা দেয়ার কারনে। তীতুমীর কলেজের কর্মচারীদের অভিযোগ ছিল সাবরিনা করোনা টেস্টের নামে নাচ গানের আসর বসায়।

সে সময় সরকার দলীয় বুদ্ধিজীবীদের তোপে কেউ তিতুমীর কলেজের কর্মচারীদের বিশ্বাস করে নাই। এখন তো আমরা সবই জানি সাহেদ এর রিজেন্ট হসপিটাল ও সাবরিনার করোনা টেস্টের নামে জালিয়াতির কথা।

সবাই বাহাবা দিচ্ছে র‍্যাবকে তাদের গ্রেপ্তার করায় যখন, তখন চ্যানেল আই এ সারওয়ার সাহেবকে জিজ্ঞাস করা হলো, সাহেদ সাবরিনাকে যারা এই পর্যায়ে নিয়ে এল তাদেরকে ধরা হবে কি না.? ম্যাজিস্ট্রেট সাহেব কৌশলে এড়িয়ে গেলেন।

যদি একটু খারাপ করেই বলি, এই রিজেন্ট হাসপাতাল বা সাবরিনা কে গ্রেপ্তারে প্রাথমিক প্রশাসনের কোনই ভূমিকা ছিল না তাহলে কি ভুল হবে.?

তিতুমীর কলেজে যখন সাবরিনা নিয়ে সমালোচনা আলোচনা হলো, তখনো প্রশাসন তাকে লুকিয়ে রেখেছে বা সামনে আনার চেষ্টা করে নাই। বরং ইতালীর প্রথম শ্রেনীর গণমাধ্যম গুলো ফলাও করে প্রচার করে বাংলাদেশে ভুয়া করোনা পরীক্ষার সনদ দেওয়া হয়। তখন বিষয়টি সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। কারন ২১ জন করোনা নেগেটিভকে করোনা পজিটিভ হিসাবে পেয়েছিল ইতালী। সেম কাজটি হয়েছে জাপানে।

আজ বিশ্বব্যাপী বাংলাদেশের বিমান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা চলছে। এমন অবস্থায় বাধ্য হয় রিজেন্ট হসপিটাল ও সাবরিনাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে।

কিন্তু নতুন তথ্য হাতে এসেছে, যে ২১ জনের করোনা সনদ ভুয়া বলে পাওয়া গেছে, তাদের সনদ না কি রিজেন্ট বা সাবরিনার হসপিটাল হতে নয়। তাহলে কি দাঁড়াচ্ছে বিষয়টি। এমন সহজেই বুঝা যাচ্ছে যে, সাহেদের রিজেন্ট বা সাবরিনার প্রতিষ্ঠানই একমাত্র প্রতিষ্ঠান নয় যারা এই প্রতারণার সাথে জড়িত। আফসোসের বিষয় হলেও এটাই সত্য যে, এদের সবার সাথে স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয় চুক্তি করেছে। এটা কতটা ভয়ংকর যে স্বাস্থ্য সেবা দেবার অনুমদন না থাকা রিজেন্ট হসপিটালকে করোনা চিকিৎসার ডেডিকেটেড হসপিটালের স্বীকৃতি দিয়েছে।

এ সবই দিয়েছেন আমাদের মাননীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী মহোদয়, যিনি একটা ভয়ংকর কথা বলছেন যে, এই চুক্তি না পড়েই তিনি স্বাক্ষর করেছেন। অথচ চুক্তি করার সময় আমরা তাকে ও তার আশে পাশের মানুষের ছবিকে বেশ হাস্যজ্বল মনে হয়েছে। আমার ভাবতে অবাক লাগে মন্ত্রী সাহেব চুক্তি না পড়ে এভাবেই দেশের স্বাস্থ্য খাতের ভরা ডুবি দেখিয়ে দিলেন।

অথচ প্রধানমন্ত্রীর আশীর্বাদে তিনি এখনো স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ে বহাল তবিয়াতে রয়ে গেছেন। করোনা সংকটের এই নাজুক অবস্থা যখন চলছে, তখন প্রবাসীদের করোনা পরীক্ষার সনদ নিতে ৪৫০০ টাকা করে নেবে বলে প্রস্তাব দিয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়। আমরা এই সিদ্ধান্তকে বৈধ বলব কি না অবৈধ বলব তা বলার আগে বলতে চাই।

বৈশ্বিক মহামারি করোনা সংকটে সরকার প্রবাসীদের সুরক্ষার জন্য কি কি ব্যবস্থা গ্রহন করতে পেরেছে। বিবিসি নিউজের বাংলা এডিশনে এসেছে, প্রায় দুই লাখ লোক ফেরত এসেছে এবং বিদেশে থাকা এক কোটি লোকের মধ্যে অন্ততপক্ষে ৫০ লাখ লোকের এই মুহূর্তে কোনো কাজ নেই।

এই প্রবাসীদের সুরুক্ষার জন্য কি করতে পেরেছে সরকার। সরকারিভাবে বলা হচ্ছে ৫ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে প্রবাসীদের জন্য, আমি তারেক জানতে চাই, " সেই ৫ কোটি টাকায় কোন প্রবাসী সহযোগীতা পেয়েছে কি না।

এই তো কয় দিন হলো, ২৬ জন প্রবাসী লিবায়ায় মানব পাচারকারীদের হাতে খুন হল, সেখানে হতে লাশগুলোও আনল না সরকার। গলে পঁচে রস গড়িয়ে পড়ছিল লাশ হতে। আমার একটা প্রশ্ন আছে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে। আপনার সরকার ব্যাংক ডাকাতকে থাইল্যান্ডে চার্টার বিমানে অবতরণের আনেদন জানাতে পারল, লিবিয়ায় খুন হওয়া আমার প্রবাসী ভাইদের লাশ আনার কোন উদ্যোগ নিতে পারল না।

ভিয়েতনামে মানবপাচারকারীদের হাত থেকে বাঁচতে যারা দূতাবাসে এল, আপনার দ্যুতাবাস সেবা না দিয়ে বের করে দিল তাদের। ভারতেও দেশে ফেরার জন্য কিছু লোক আটকে আছে।

সারা বিশ্বব্যাপী যত দূতাবাস আছে বাংলাদেশের দালালদের সাথে আঁতাত করে কার্যক্রম পরিচালিত করছে। ফলে দেশে দেশে সহজ শর্তে প্রবাসীদের যে সেবা দেয়ার কথা ছিল তা হতে বঞ্চিত করছে।

এই যখন অবস্থা চলমান, এমন অসংখ্য সমস্যায় যখন জর্জরিত প্রবাসীরা, যেখানে তাদের সুরক্ষা দিত।

লেখক : যুগ্ম আহ্ববায়ক, বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ
চলমান আলোচিত ঘটনা বা দৃষ্টি আকর্ষণযোগ্য সমসাময়িক বিষয়ে আপনার মতামত আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। তাই, সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইলকরুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: +8801721978664

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড