• বুধবার, ২৩ জুন ২০২১, ৯ আষাঢ় ১৪২৮  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

প্রবাসী অধিকার পরিষদ গঠনে বাধাগ্রস্ত হয়েছি এবং হচ্ছি

  মো. তারেক রহমান

০৭ জুলাই ২০২০, ২৩:৩৪
তারেক রহমান
প্রবাসী অধিকার পরিষদের লোগো ও মো. তারেক রহমান

প্রবাসী অধিকার পরিষদ গঠনে পদে পদে বাঁধাগ্রস্ত হয়েছি, এখনো বাঁধাগ্রস্ত হচ্ছি। বাপ-মা তুলেও গালি দিয়েছে দেশ থেকে রাজনৈতিক কারণে নির্বাসিত রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য কিছু লোক। বরাবরই এদেরকে আমি জাত প্রবাসী বলতে নারাজ।

বরাবরের মতই প্রবাসীভাইদের নিয়ে উদ্বিগ্ন আমি, একের পর এক ভয়ংকর কিছু বের হয়ে আসছে। সিলেটে চাপাতি দিয়ে এমেরিকান প্রবাসী ভাই এর বিচার চাইতে না চাইতেই, প্রবাসীদের নিয়ে কটুক্তি করলেন অর্থমন্ত্রী, এর পর লিবিয়ায় দালা কর্তৃক ২৭ প্রবাসীকে হত্যা, সেই প্রবাসীদের লাশ গলে পঁচে গেলেও দেশে না নিয়ে আসা ভয়ংকর ভাবে নাড়া দেয় আমায়, ভাবছিলাম এই দেশে সন্ত্রাসী, বাংক ডাকাত দেশ হতে পালাতে থাইল্যান্ডে চ্যাটার্ড বিমান অবতরণ করে মমন্ত্রণালয়ের চিঠি পাঠানোর ঘটনা অস্বাভাবিক নয়। অস্বাভাবিক হলো প্রবাসীর লাশ বিদেশ হতে সরকারি খরচে দেশে আনা।

এর পর এল বাজেট, যেখানে প্রবাসীদের স্বার্থ পুরাটায় এভোয়েড করা হয়েছে। পুরো সংগঠনকে এক সাথে কোন বিষয়ে রাজি করানো এত অল্পসময়ে সহজ ছিল না। হুটা করে প্রেসক্লাবে নিজেই হাজির হই, তৈয়ব ভাই, সোহরাবসহ কয়েকজনকে নিয়ে তৎক্ষনাৎ প্রবাসী বান্ধব বাজেট এর দাবিতে প্রোগ্রাম করি। যদ্যপি আমি ভাল বক্তা না, তারপরেও প্রবাসী ভাইদের দাবীগুলো প্রেসক্লাবে চিৎকার করে বলতে থাকি।

একজন অনির্বাচিত স্বঘোষিত ছাত্র প্রতিনিধি হিসাবে আমার মাঝে আদর্শিক গুন তেমন তৈরী হয় নাই, যেটা দেখে কেউ আমাকে অনুসরণ করবে। এর পড়েও যা কিছু ন্যায়, যা কিছু অধিকার আদায়ের বার্তা বহন করে তা বলার চেষ্টা করে আসছি।

টঙ্গীতে সৌদি প্রবাসীকে হত্যা করে ঝুলিয়ে রাখা আমাকে খুব ভয় পাইয়ে দেয়, এমন বিভৎস লাশ আমার আগে দেখা হয় নাই। কিভাবে কি করব ভেবে পাচ্ছিলাম না; আমি ছোট মানূষ -কিইবা করব আমি। তৈয়ব ভাই বলল অবশ্যই প্রতিবাদ করতে হবে। অল্প-সময়ে কাকে কি ভাবে জানাব ভেবে না পেয়ে, আমার পাশের দুজন দোকানদার বন্ধুকে বুঝিয়ে নিয়ে গেলাম আমরা তিনজন আর তৈয়ব ভাই এর পরিবারকে নিয়েই প্রতিবাদের জন্য একত্রিত হলাম। এর মাঝে আবার জানতে পারলাম, একজন প্রবাসীর স্ত্রীর ধর্ষিত হবার খবর। সব কিছু এলোমেলো ভাবেই অল্প কয়েকটা ফেস্টুন লিখে প্রতিবাদ শুরু করলাম। সে প্রতিবাদ লাইভে প্রচারিত হয়েছিল আমার একাউন্ট হতে।

সব শেষে, মাত্র ১ মাসের ব্যবধানে ৬-৭ টি ধাক্কা সামাল দেয়ার পথেই চলে আসে ভিয়েতনাম প্রবাসী ভাইদের ২৭ জন মানব পাচার চক্রের ফাঁদে পড়ার বিষয়টি সামনে আসে। এই ২৭ বাংলাদেশি ভিয়েতনামে যায় বলে ভুক্তভোগীদের বক্তব্য থেকে জানা যায়।

গত ৬ মাসে তাদের কোনও কাজে নিযুক্ত না করে নানাভাবে হয়রানি, নির্যাতন ও নিপীড়নের পর আটক করে রাখা হয় এবং মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হয়। সেখান থেকে তারা কৌশলে পালিয়ে গত ৩ জুলাই দেশে ফিরে যাওয়ার আকুতি জানিয়ে ভিয়েতনামে বাংলাদেশ মিশনের দ্বারস্থ হোন। বাংলাদেশ মিশন ভুক্তভোগীদের সহায়তা না করলে নিরুপায় হয়ে তারা মিশনের বাইরে সড়কে অবস্থান নেয়। পরে ভিয়েতনাম পুলিশের সহায়তায় দুটি হোটেলে ২৭ জনকে দুটি রুমে রাখা হয় বলে আমরা জানতে পারি।

প্রথম হতেই আমাদের প্রবাসী অধিকার পরিষদের নেতৃবৃন্দ তাদেরকে উদ্ধারে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষনের চেষ্টা করছিল। আমি নিজেও তাদের সাথে লাইভে যুক্ত হয় তাদেরকে আশ্বস্ত করি যে, আমরা বাংলাদেশ হতে তাদের পাশে আছি, দরকার হলে রাজপথের কর্মসূচী দেয়ার মত কাজও করব আমরা।

নারায়ণগঞ্জের ছাত্রলীগ নেতা, শুভ রায় এর প্রবাসী ভাইদের হুমকিও বেশ গুরুত্বের সাথে দেখা হয়, যদিও সে হ্যাক নাটক করে ভুল স্বীকার করেছে।

অবস্থা যে কতটা লেজে গবরে তা বলার অপেক্ষা রাখে না মোটেও। গতকাল সারাদিনই আলোচনায় ছিল ২১৯ জন অরবাসীকে নিজ মাতৃভূমিতে গ্রেপ্তার করার বিষয়টি। যে ৫৪ ধারায় তাদের গ্রেপ্তার দেখিয়েছে সেই ৫৪ ধারা উচ্চ আদালতের আদেশে স্থগিত আছে আজ বেশ কিছুদিন হল। মামলার কপি তুলতে গিয়ে শেখ রাসেদ ভাই যে হয়রানি পোহাইছেন তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

আর মামলার বিশদ পত্রিকাগুলোও সামনে আনে নাই। মামলার কপি হাতে পেয়েই চোখ চরক গাছ আমার; আপনারা জেনে আশ্চার্য হবেন যে, এই ২১৯ জনের মেজরিটিই কুয়েত হতে আগত, আর এই কুয়েতেই বর্তমান সরকারের এমপি পাপলু মানব পাচারের অভিযোগে গ্রেপ্তার হয়েছে। ২১৯ জন প্রবাসী এক সাথে এর আগে কখনোই গ্রেপ্তার হয় নাই।

আর ২১৯ জন প্রবাসী চুরী ডাকাতি, খুন, পারিবারিক সহিংসতা, জঙ্গী কার্যক্রম করবেন বলে সন্দেহ পোষন করা হয়েছে। আর সেই সন্দেহের ভিত্তিতেই এই মামলা করা হয়েছে। আমার ভয়ংকর খারাপ লেগেছে কোন রাজনৈতিক সংগঠন তাদের জন্য আওয়াজ তুলছেনা। প্রবাসী অধিকার পরিষদ যতটুকু প্রতিবাদ জানাচ্ছে দেশে রাজপথে প্রতিবাদ ছাড়া এর প্রতিকার সম্ভব নয়। ভাবছি কি করা যায় তাদের জন্য...

এর মাঝে আবার পরাষ্ট্রমন্ত্রী তার মত দায়িত্বশীল জায়গার কথা ভুলে কিছু মনগড়া মনতব্য করছেন ছাত্র অধিকার পরিষদের ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন প্রবাসী অধিকার পরিষদের বিরুদ্ধে। এই মন্তব্য আর ২১৯ জন প্রবাসীকে গ্রেপ্তারকে ছোট করে না দেখতে অনুরোধ করব প্রবাসী অধিকারের দায়িত্বশীল ভাইদের। হতে পারে প্রবাসী ভাইদেরকে এই সংগঠনকে থামিয়ে দিতে নতুন এই চক্রান্ত অথবা, এরা কুয়েতে মানব পাচারে জড়িত বর্তমান সরকারের সাংসদ পাপলুর অপকর্মের সাক্ষী বা তার প্রতারণার সাক্ষী। হতে পারে তাদের মুখ বন্ধ রাখতেও এদের কারাগারে অন্তরীন রাখা জরুরি।

এত কিছুর পড়েও আমি খুব বেশি হতাশ না এখনো, আমার ভরসা একটায় প্রবাসী ভাইরা একত্রিত হয়েছে আজ। আমি প্রচণ্ড বিশ্বাস করি এই সহজ সরল মানুষগুলোকে, আর ভালোও বাসি। আমি বিশ্বাস করি, এই ভাইগুলো এতটায় ভাল মানুষ, তাঁরা সেই সকল প্রবাসী ভাইদের বিপদেও চুপ থাকবে না, যারা এই প্রবাসী অধিকার পরিষদ গঠনে আমাকে পদে পদে বাঁধা দিয়েছিল , আমাকে জারজ সন্তান বলেছিল, চোর বাটপার- ভিক্ষুক বলেছিল।

লেখক : যুগ্ম আহবায়ক, বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ
চলমান আলোচিত ঘটনা বা দৃষ্টি আকর্ষণযোগ্য সমসাময়িক বিষয়ে আপনার মতামত আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। তাই, সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইলকরুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড