• মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯, ১ শ্রাবণ ১৪২৬  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন

নেতৃত্বে দরকার সঠিক ব্যবস্থাপনার 

  রহমান মৃধা

১০ জুলাই ২০১৯, ১৯:০৬
রহমান মৃধা
সুইডেন প্রবাসী রহমান মৃধা

বহু বছর ধরে নেতৃত্বে এবং ব্যবস্থাপনার ওপর কাজ করেছি তাই কেন যেন মনে হলো এর ওপর কিছু লিখি। নেতৃত্ব কি? কেন নেতৃত্বের প্রয়োজন? নেতৃত্ব কেমন হওয়া উচিত? ইন্ডাস্ট্রি বা খেলাধুলার নেতৃত্বের সঙ্গে একটি দেশ পরিচালনার জন্য যে নেতৃত্বের দরকার, তার মধ্যে তফাৎ রয়েছে কি? কি অবস্থা বাংলাদেশের সর্বক্ষেত্রে নেতৃত্বের? 

নেতার কাজ নেতৃত্ব দেওয়া। নেতার উৎপত্তি নানা ভাবে হতে পারে। ইন্ডাস্ট্রি বা খেলাধুলায় সাধারণত দক্ষ এবং পরিপক্ষ ব্যক্তিকে নেতৃত্বের দায়ীত্ব দেওয়া হয়ে থাকে।  দেশ পরিচালনার ক্ষেত্রে যে জনদরদি, যার হয়ত নেই দেশ পরিচালনা করার মত দক্ষতা বা পরিপক্ষতা তবুও জনগণের ভোটে নিযুক্ত বিধায় তাকে নেতা বলে মান্য করা হয়। তবে এ ক্ষেত্রে দরকার ন্যায়নিষ্ঠা, নীতিবান, দায়ীত্বশীল এবং পরিপক্ষ ম্যানেজমেন্টের, যারা নেতাকে সহযোগিতা করে তার নেতৃত্বেকে সঠিক ভাবে পরিচালনা করতে সাহায্য করবে। 

খেলাধুলায় সচারাচর তাকেই নেতৃত্বের ভার দেওয়া হয় যে সাধারণত নিজের যোগ্যতায় টিম বা গ্রুপের থেকে সাপোর্ট পেয়ে থাকে। পরিকল্পনা এবং অনুপ্রেরণায় যার অসাধারণ ক্যাপাবিলিটি, ক্যাপাসিটি এবং হলিস্টিক ভিউ রয়েছে ৩৬০ ডিগ্রী নেতৃত্বের উপর। ইন্ডাস্ট্রির ব্যবস্থাপক হতে কর্মীর সাপোর্টের সাথে বিষয় ভিত্তিক দক্ষতা এবং পরিপক্ষতা থাকা দরকার। 

এখন একজন নেতা অথবা ব্যবস্থাপকের নেতৃত্বের ধরণ কেমন হওয়া উচিত? নেতা কি তার সিদ্ধান্তে ’management by objectives’ নাকি তার সিদ্ধান্তে ‘management by threats’ কনসেপ্ট ব্যবহার করবে? একটি সংগঠন, অর্গানাইজেশন, টিম বা দেশ পরিচালনায় দরকার নেতৃত্বের। এখন দেখতে হবে প্রয়োজন কিসের, নেতার দক্ষতার, নাকি তার নেতৃত্বের? দেখতে হবে নেতৃত্বের ধরণ যেমন হাইরারকি, নাকি ক্রস ফাংশনাল লিডারশিপ? নাকি দুটোর সমন্বয়। নেতার নেতৃত্বের কৌশল এবং কারিশমার উপর নির্ভর করে পরিবার, সমাজ, জাতি ও দেশের ভবিষ্যত।

যে অর্গানাইজেশনে যত বেশি বিশৃঙ্খলা সেখানে ততবেশি দিক নির্দেশনার অভাব। অনেকের ধারণা ব্যক্তি স্বার্থে নেতৃত্বের ব্যাঘাত ঘটে। ধারণা সত্য যদি সেই স্বার্থ ‘bad will’ হয়। কিন্তু যদি ব্যক্তি স্বার্থ এমন হয় যে আমি আরো বড় নেতা হতে চাই, আমি আমার দায়ীত্ব আরো প্রসারিত করতে চাই সে ক্ষেত্রে ব্যক্তি স্বার্থে ‘goodwill’ এর সমন্বয় ঘটে।

একজন আদর্শ নেতার গুনাগুন সাধারণত তাঁর অনুকরণ, অনুসরণ, অনুপ্রেরণা, অনুশোচনা, অনুভব, অনুভুতির মাধ্যমে প্রকাশ পেয়ে থাকে। যে বা যারা ম্যানেজমেন্ট বাই অবজেক্টিভসের উপর বিশ্বাসী এবং সেই ভাবে নেতৃত্ব দেয়, তারা খেলাধুলায়, শিল্প কলখারনায় এবং দেশ পরিচালনায় সাফল্য লাভ করে থাকে। যে বা যারা ‘management by threats’ এর  উপর বিশ্বাসী তারা শুধু নিজের নয় সমাজ, শিল্প কলকারখানা, খেলাধুলা বা দেশ পরিচালনায় ব্যর্থ হয়ে থাকে। যখন সব কিছুর সিদ্ধান্তে এক নায়কতান্ত্রিক নেতার আবির্ভাব ঘটে তখন কর্মীর মোটিভেশন, ক্রিয়েটিভিটি, দায়ীত্ব এবং কর্তব্য বোধের অবসান ঘটে। এর ফলে ধ্বংস হয় নেতৃত্ব, জাতি অবং দেশের। 

দুর্ভাগ্যবসত আমার পর্যবেক্ষণে যততুটু লক্ষ্য করেছি তাতে মনে হচ্ছে বাংলাদেশে নেতৃত্বের ভাঙ্গন লাগার পেছনে আমাদের সকলের অবদান রয়েছে। ছোটখাটো সব সিদ্ধান্তে মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছে পুরো দেশ। এটা দেশের জন্য সত্যিই ভয়ংকর এবং অধঃপতনের লক্ষণ। এই কঠিন সময়ে নেতা, বাবা-মা, সহ সকলের সতর্ক হওয়া আশু প্রয়োজন দেশ, জাতি এবং নিজের স্বার্থে। 

সর্বোপরি একটি জিনিষ লক্ষ্যনীয় বাংলাদেশে তা হলো বাবা-মার নেতৃত্বের গাফিলতি। নতুন প্রজন্মের মাদকে আসক্তি, খুন খারাপি, অসৎ রাজনীতির সংস্পর্শ, রাতের আঁধারে আড্ডা এবং তাদের দৈনন্দিন জীবনের খোঁজখবর নেবার দায়ভার কিন্তু বাবা-মার। সন্তানের কুকর্মের দায়ভার সমাজের ঘাড়ে চাপিয়ে দিলে সমস্যার সমাধান হবে না। বাবা-মাই হলো একটি পরিবার, সমাজ এবং দেশের বড় নেতা। বাংলাদেশের বর্তমান অন্ধকার পরিবেশের জন্য শুধু রাষ্ট্রের উপর দোষ না চাপিয়ে বাবা-মাকে সঠিক ব্যবস্থাপনা এবং নেতৃত্ব গ্রহণের দায় ভার নিতে হবে।

 

চলমান আলোচিত ঘটনা বা দৃষ্টি আকর্ষণযোগ্য সমসাময়িক বিষয়ে আপনার মতামত আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। তাই, সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইলকরুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড