• রবিবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ৫ ফাল্গুন ১৪২৫  |   ১৯ °সে
  • বেটা ভার্সন

ফিরে দেখা: বার্ট্রান্ড রাসেল

  আরিফুল ইসলাম আরিফ ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২২:১১

রাসেল
বার্ট্রান্ড রাসেল (ছবি : সংগৃহীত)

২ ফেব্রুয়ারি। ইংরেজ গণিতজ্ঞ, শিক্ষাবিদ, দার্শনিক, লেখক এবং নোবেল বিজয়ী সাহিত্যিক বার্ট্রান্ড রাসেল আজকের এই দিনে মৃত্যুবরণ করেন।

ব্রিটিশ দার্শনিক, যুক্তিবিদ, গণিতবিদ, ইতিহাসবেত্তা, সমাজকর্মী, অহিংসাবাদী এবং সমাজ সমালোচক বার্ট্রান্ড আর্থার উইলিয়াম রাসেল। তিনি বার্ট্রান্ড রাসেল নামেই সমধিক পরিচিত। রাসেলকে বিশ্লেষণী দর্শনের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা বিবেচনা করা হয়। বার্ট্রান্ড রাসেল ১৮৭২ সালের ১৮ মে যুক্তরাজ্যের মন মাউথশায়ারের ট্রেলেখে জন্মগ্রহণ করেন। 

প্রথমিক শিক্ষা শেষে ১৮৯০ সালে তিনি কেমব্রিজের ট্রিনিটি কলেজে ভর্তি হন এবং ১৮৯৩ সালে গণিতে প্রথম শ্রেণী অর্জন করে বিএ পাস করেন। রাসেল ছিলেন একজন প্রখ্যাত যুদ্ধবিরোধী ব্যক্তিত্ব এবং জাতিসমূহের মধ্যে মুক্ত বাণিজ্যে বিশ্বাস করতেন। রাসেল ১৯০০ সালের শুরুতে ব্রিটিশদের আদর্শবাদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহে নেতৃত্ব প্রদান করেন। বার্ট্রান্ড রাসেল তার অহিংস মতবাদ প্রচারের জন্যে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় জেলবন্দী হন এবং যুদ্ধবিরোধীর ভূমিকার জন্য তাঁকে ছ'মাস কারাদণ্ড ভোগ করতে হয়। সেই সঙ্গে কেমব্রিজের ট্রিনিটি কলেজের অধ্যাপক পদ থেকে বরখাস্ত করা হয়। 

বার্ট্রান্ড রাসেল মহিলাদের ভোটাধিকারের জন্য সংগ্রাম করেছেন এবং শেষ পর্যন্ত জয়ীও হয়েছিলেন৷ দার্শনিক বার্ট্রান্ড রাসেল রাজনীতিতে এসেছিলেন এবং বহুবার ব্রিটেনের সাধারণ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন৷ কিন্তু কোনো বারই তিনি নির্বাচিত হতে পারেননি৷

তাঁর উল্লেখযোগ্য দুটি বই অটোবায়োগ্রাফি এবং মাই ফিলোসফিক্যাল ডেভেলপমেন্ট। দুটো গ্রন্থই যুক্তি, গণিত, সেট তত্ত্ব, ভাষাতত্ত্ব এবং দর্শনকে গভীরভাবে প্রভাবিত করেছে। তার দার্শনিক নিবন্ধ "অন ডিনোটিং" দর্শনশাস্ত্রে মডেল হিসেবে বিবেচিত হয়। রাসেল ১৯৫০ সালে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার অর্জন করেন, যা ছিল "তার বহুবিধ গুরুত্বপূর্ণ রচনার স্বীকৃতিস্বরূপ" যেখানে তিনি মানবতার আদর্শ ও চিন্তার মুক্তিকে ওপরে তুলে ধরেছেন।

একাধারে দার্শনিক, অঙ্কশাস্ত্রবিদ ও সমাজ সংস্কারক বার্ট্রান্ড রাসেল ৯৭ বছরের দীর্ঘ জীবন শেষে ১৯৭০ সালের ২ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাজ্যের ওয়েলসে পরলোক গমন করেন।

চলমান আলোচিত ঘটনা বা দৃষ্টি আকর্ষণযোগ্য সমসাময়িক বিষয়ে আপনার মতামত আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। তাই, সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইলকরুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড