ইয়াবামুক্ত টেকনাফ চায় শহরবাসী

প্রকাশ : ০২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৪:৪০

  মোহাম্মদ রানা

বাংলাদেশের সর্ব দক্ষিণ প্রান্তে একপাশে বঙ্গোপসাগর, অন্যপাশে নাফ নদী। এর মধ্যখানেই অপূর্ব প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যে ভরা টেকনাফ শহর। যেখানে একটা সময় সাধারণ মানুষের আয়ের একমাত্র উৎস ছিল কৃষি, পানের বরজ, সুপারি, আর লবন চাষ। আর কিছু মধ্যবিত্ত শ্রেণির বেশিরভাগই ছিল প্রবাসী।

গেল ১০ থেকে ১২ বছর আগেও বর্তমানে সবচাইতে আলোচিত মাদক ইয়াবার সঙ্গে তেমন একটা পরিচিতও ছিল না এই অঞ্চলের মানুষদের সঙ্গে, কিন্তু হাতে গোনা কতিপয় কিছু অসাধু লোকের যোগসাজশে পার্শ্ববর্তী দেশ মায়ানমার থেকে প্রবেশ করতে থাকে বর্তমান সময়ের বহুল আলোচিত মাদক ইয়াবা। বদলে যেতে থাকে এই জনপদের জীবন যাত্রার মান।

উল্লেখ্য, কিছু রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের ছত্রছায়ায় বদলে যায় এই নগরীর চেহারা। সমাজের নিম্নবিত্ত, থেকে শুরু করে মধ্যবিত্ত আর উচ্চবিত্ত সকলেই হুমড়ি খেয়ে নেমে পড়ে অল্প সময়েই কোটিপতি হওয়ার নেশায়! বড় ধরনের সামাজিক বিপর্যয় নেমে আসে পান সুপারি খ্যাত এই টেকনাফ নগরীর। পুরো দেশব্যাপী পরিচিত হয়ে যায় মাদকের স্বর্গরাজ্য হিসেবে।

মিয়ানমার সীমান্তবর্তী হওয়ায় খুব সহজেই নানা কৌশলে সর্বনাশা মাদক ইয়াবা ঢুকে পড়ে টেকনাফ অঞ্চল হয়েই দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে। এক দশকের ব্যবধানেই বদলে যায় এই জনপদের দৃশ্যপট! ক’দিন আগের দেখা সেই ছোট্ট কুঁড়েঘরটি এখন সুবিশাল অট্টালিকায় শোভা পায়!

কতিপয় কিছু অসাধু লোভী মানুষের কারণেই প্রাকৃতিক অপূর্ব সৌন্দর্যের লীলাভূমি টেকনাফ আজ দেশের ১ নাম্বার মাদক স্পট হিসেবে পরিচিত একটি নাম! যার ভুক্তভোগী এই অঞ্চলের সাধারণ মানুষগুলা, বিশেষ করে পড়াশোনা ও বিভিন্ন উদ্দেশ্যে ঢাকা শহরে বসবাসরত রয়েছেন তারা। নিজের এলাকার পরিচয় দিতেও এরা লজ্জাবোধ করেন। এমনকি কিছু বাড়িওয়ালা পর্যন্ত ও বাসা ভাড়া দিতে নারাজ শুধু টেকনাফের বাসিন্দা হওয়ার কারণে! কে বা কারা দায়ী এই দুর্দশার জন্য?

এই অবস্থা থেকে মুক্তি চায় এখানকার সাধারণ জনতা। বর্তমান সরকার দশক পেরিয়ে এক যুগ পাড়ি দেওয়ার পথে। এই জনপদের সাধারণ আপামর জনতার বর্তমান সরকারের কাছে একটাই চাওয়া, যেন ইয়াবার দুর্নাম ঘুচিয়ে টেকনাফ তথা পুরো দেশ রক্ষা পায়। বর্তমান সরকারের নেওয়া পদক্ষেপ মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি অব্যাহত থাকুক, নিপাত যাক কতিপয় তথাকথিত রাজনৈতিক নেতারা, যাদের হাত ধরেই মাদকের অঙ্কুরোদগম হয়েছিল এই জনপদে।

সব দুর্নাম ঘুচিয়ে নতুন আলোয় এই জনপদের তরুণ প্রজন্ম বলে উঠুক টেকনাফ এখন মাদকমুক্ত পর্যটন নগরী।

লেখক : শিক্ষার্থী, প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম