• বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০১৯, ১১ বৈশাখ ১৪২৬  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন

স্বপ্নের দুয়ারে যখন নবীনরা

  আহমেদ ইউসুফ ০২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:১৩

সম্পাদিত
ছবি : সম্পাদিত

জীবনের প্রতিনিধিত্ব করতে নাকি স্বপ্ন দেখতে হয়। স্বপ্ন দেখলে আপনি বাস্তবতা দেখতে পারেন, কোন দোষ নেই তাতে। কথিত আছে, হিটলার নাকি ছোট বেলায় রাস্তায় হাটতে তার বন্ধুকে বলতেন তার পিছনে স্লোগান দিতে। বন্ধুরা ও নাকি তাই করতেন। একদিন হিটলার ঠিকই প্রেসিডেন্ট হয়েছিলেন। হিটলার সাহেব ভালো কি মন্দ সে বিতর্কে নাই গেলাম।

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে উচ্চ মাধ্যমিক পাসের পর প্রায় সব শিক্ষার্থীর স্বপ্ন থাকে একটি ভালো সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়ন। আবার তাদের বাবা মায়েদের ও একই আশা থাকে সন্তান যেনও একটি ভালো পরিচয় ধারণ করে। আর সেই পরিচয় নির্ধারণে শিক্ষার্থীরা প্রস্তুতি নেন ভর্তি যুদ্ধের।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শুরু করে মেডিকেল, বুয়েট, রুয়েট, চুয়েট ইত্যাদি সরকারি সব বিশ্ববিদ্যালয়ে একেকটা আসন যেনও সোনার হরিণ!

এখানেই কি শেষ! না, বরং ভর্তি যুদ্ধে যে সকল মেধাবী মুখগুলো উত্তীর্ণ হয় তার পরেই শুরু হয় এ সকল শিক্ষার্থীর জীবনের মূল মোড়কের প্রতিস্থাপন।

বিশ্ববিদ্যালয় জীবনেই মূলত শিক্ষার্থীরা তাদের জীবনকে পরিচালনা করার চাবিকাঠি রপ্ত করে। অনেকে আবার বিশ্ববিদ্যালয়ের মত উন্মুক্ত পরিবেশে এসে হারিয়ে যায় উল্টো পথে। অনেকে চলে যায় মাদক কিংবা অন্য কোনও জীবন ধ্বংস করার মত ভয়াবহ ট্র্যাজিডিতে। এই পরিবেশে নতুন করে নিজেকে মানিয়ে নেয়া এবং অনেক সময় সঠিক দিকনির্দেশনার অভাবে অনেকে হারিয়ে যায় ভিন্ন জগতে। হারায় তাদের জীবনের চলার রপ্ত করা সোনালী মূল মন্ত্র।

তবে সব বাধা প্রতিকূলতাকে ছাপিয়ে জীবনের সফলতা রক্ষা করে যারা তাদেরকেই আমরা বাস্তব স্বপ্ন বাজ বলে থাকি। এরাই সফল। এরাই আমাদের আগামী দিনের সোনার বাংলাদেশ গড়ার রঙ্গিন প্রতিচ্ছবি। কারণ ভারতের প্রয়াত রাষ্ট্রপতি এ পি জে আবুল কালামের একটা বিখ্যাত উক্তি রয়েছে- 'স্বপ্ন সেটা নয় যেটা তুমি ঘুমিয়ে দেখ, স্বপ্ন সেটা যেটা তোমায় ঘুমাতে দেয় না'।

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের এমন সব নবীন স্বপ্ন বাজদের জীবন নদীর গল্পকালে তারা জানায় তাদের জীবনের গল্প নিয়ে। তাদের জীবনের উদ্দেশ্য এবং নবীন হিসাবে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে তাদের লালিত স্বপ্নের কঠিন বাস্তবতা রক্ষায় এই ক্যাম্পাস কতটুকু সহযোগী এবং সামনের দিন গুলোয় তাদের পরিকল্পনা নিয়ে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি বিভাগের নবীন শিক্ষার্থী মেহের নিগার আলম বলেন, 'আমি এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৩তম আবর্তনের একজন ক্ষুদ্র নবীন। আমার জীবনে স্বপ্ন ছিল একদিন অনেক বড় প্রোগ্রামার হব। কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে যখন পরীক্ষা দিয়ে জানতে পারি আমার মেধা তালিকা অনুযায়ী আইসিটি আসতে পারে, তখন সৃষ্টিকর্তার কাছে অনেক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছিলাম। কারণ আমি পিছিয়ে পড়া আমার এই সোনার দেশকে আলোর মুখ দেখাতে চাই, প্রযুক্তি খাতে একজন দক্ষ প্রোগ্রামারের ভূমিকা রেখে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই। এখন আমি সকলের কাছে দোয়াপ্রার্থী, আমি যেন আমার স্বপ্নকে সুন্দর ভাবে বাস্তবায়ন করতে পারি'।

একই বিভাগের অন্য আরেক নবীন শিক্ষার্থী জানায় তার অনুভূতির কথা। 'আমি গার্গী রায় তুষি, আমার স্বপ্ন ছিল এই প্রিয় বাংলাদেশকে একদিন প্রযুক্তির বিশ্বে দম্ভের সাথে উপস্থাপন করাব। কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি বিভাগে ভর্তি হতে পেরে সেই স্বপ্নের দুয়ারে পা রাখলাম মনে হচ্ছে। আমাদের শ্রদ্ধেয় শিক্ষক মহোদয়গণ এবং বিভাগের বড়দের সহযোগিতা কামনা করছি। আমার স্বপ্ন যেনও বাস্তবায়ন করতে পারি'।

স্বপ্ন এবং বাস্তবতা নিয়ে কথা বলতে গেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ এর নবীন শিক্ষার্থী সাকিব হাসান দ্বীপ বলেন, 'সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শুধু দুটি শব্দ নয়, বরং আমার দশ বছরের লালন করা পুরো স্বপ্ন। কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পেয়ে সেই স্বপ্নের কিছুটা স্বাদ পাচ্ছি মনে হচ্ছে। আমি স্বপ্নকে শুধু নীরবে দেখতে নয় বরং কাজে বিশ্বাস করি। আমার স্বপ্ন এ দেশকে সুশৃঙ্খল এক উন্নত মানদণ্ডে নিয়ে যাওয়া। যতদিন তা করতে পারব না আমার সত্যিকারের স্বপ্ন পূরণ হবে না। সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসরে আমার স্বপ্নকে আরও পরিপূর্ণ মনে হচ্ছে। তাই আগামী পথ পাড়ি দেয়ার জন্য সকলের কাছে দোয়া কামনা করছি'।

মনের ছোট্ট কোটরে লালিত স্বপ্নের বাস্তবতায় অনুভূতি জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন বিভাগের নবীন আরেক শিক্ষার্থী সানিয়া হোসেন বলেন, 'ছোট বেলা থেকেই আমার মানুষের সেবা করতে ভালো লাগে। আমি চাই এমন একটি বাংলাদেশ যেখানে একটি মানুষ ও জীবন ধারণে কিংবা চলার পথে এতটুকু কষ্ট পাবে না। প্রতিটি মানুষই তার প্রাপ্য অধিকারের সম্পূর্ণটা ভোগ করবে। এগুলো আমার ছোট বেলার স্বপ্ন। আমার মনে হয় লোক প্রশাসন এমনি একটি বিষয় যেখানে মানুষের সেবা করার জন্য একজন দক্ষ নাগরিক গড়ে তোলা হয়। এই বিভাগে ভর্তি হতে পেরে আমার স্বপ্নের নিশানা খুঁজে পাচ্ছি মনে হচ্ছে'।

নিজের স্বপ্নকে বাঁচিয়ে সমুদ্দুর যেতে লোক প্রশাসন বিভাগের আরেক নবীন প্রত্যয়ী মাসুম বিল্লাহ বলেন, 'আমি স্বপ্ন দেখতে ভালোবাসি। একদিন স্বপ্ন ছিল সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়বো। এতটুকু এসে এখন স্বপ্ন একটাই, বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় নিজেকে একদিন নিয়োজিত করা। বিশ্বাস করি, কঠোর পরিশ্রম করে একদিন ওই জায়গাটি অর্জন করতে পারব'।

এদিকে, নবীন শিক্ষার্থীদের সকল স্বপ্ন-আশা বাস্তবায়নে এবং তাদের লক্ষে পৌছা নিয়ে কথা বলতে গেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জনাব ফিরোজ আহমেদ বলেন, 'সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি শিক্ষার্থী মেধার স্বাক্ষর রেখেই ক্যাম্পাসে আসে। তাদেরকে লক্ষে পৌছে দিতে প্রয়োজন হয় সঠিক দিক-নির্দেশনা। সে জায়গাটি থেকে আমার এবং আমাদের দুয়ার প্রতিটি মুহূর্তে শিক্ষার্থীদের জন্য উন্মুক্ত। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের মত জায়গায় একজন শিক্ষার্থীর অ্যাকাডেমিক বিকাশের সঙ্গে মানসিক বিকাশের দিকে ও গুরুত্ব দেয়া প্রয়োজন। সে জন্য বিভিন্ন সাংস্কৃতিক, আবৃত্তি, বিতর্ক মূলকসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সংগঠনে তারা যুক্ত হলে তাদের মানসিক বিকাশেও ভূমিকা রাখবে। সর্বোপরি নবীনদের জন্য কল্যাণ কামনা করছি, তারা যেনও সফল হতে পারে'।

নবীনদের স্বপ্নকে সাজিয়ে সুন্দর ভবিষ্যৎ গড়ার লক্ষে পরামর্শ দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের লোকপ্রশাসন বিভাগের শ্রদ্ধেয় শিক্ষক নাজমুল হক। তিনি বলেন, 'আমি বিশ্বাস করি, যারা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ পায় তারা দারুণ সম্ভাবনাময় এবং প্রত্যয়ী। তাদের জন্য সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জিং বিষয় হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা জীবনে দৃঢ় প্রত্যয়ী মনোভাব ধরে রেখে স্বপ্নের দিকে অগ্রগামী হওয়া। যদি তারা এই চ্যালেঞ্জটাকে প্রতিহত করতে পারে তাহলে তাদের সফল হওয়া প্রায় নিশ্চিত। সকল নবীন শিক্ষার্থীদের প্রতি আমার নিরন্তর শুভকামনা রইল। সবশেষে আমি বলতে চাই বাংলাদেশ তোমাদের দিকে চাতকের মত চেয়ে আছে, আশাহত করা যাবে না তাঁকে'।

ভারতের প্রয়াত প্রেসিডেন্ট এ পিজে আব্দুল কালাম এর আরেকটি উক্তি দিয়ে শেষ করতে চাই- 'সূর্যের মতো দীপ্তমান হতে হলে প্রথম তোমাকে সূর্যের মতই পুড়তে হবে। তাই স্বপ্ন পূরণে বাধা আসবেই, বাধাকে জয় করেই আপনাকে পাড়ি দিতে হবে সুদীর্ঘ পথ'।

চলমান আলোচিত ঘটনা বা দৃষ্টি আকর্ষণযোগ্য সমসাময়িক বিষয়ে আপনার মতামত আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। তাই, সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইলকরুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
SELECT id,hl2,parent_cat_id,entry_time,tmp_photo FROM news WHERE ((spc_tags REGEXP '.*"location";s:[0-9]+:"কুবি".*')) AND id<>43932 ORDER BY id DESC LIMIT 0,5

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড