• বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩ আশ্বিন ১৪২৬  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন

ভুয়া পদে দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন কে এই টিনা জাবিন

  অধিকার ডেস্ক

১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৬:৪০
টিনা জাবিন
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়, ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এবং তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সঙ্গে একটি অনুষ্ঠানে টিনা জাবিনকে দেখা যাচ্ছে।(ছবি : সংগৃহীত)

নারী উদ্যোক্তা টিনা জাবিন। নিজেকে পরিচয় দিচ্ছেন স্টার্টআপ বাংলাদেশের ইনভেস্টর অ্যাডভাইজর হিসেবে। এই পরিচয়ে রীতিমতো দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন তিনি। তার ফেসবুক প্রোফাইলেও দেখা গেছে একই পরিচয়। যুক্তরাষ্ট্রে একটি সরকারি সফরে তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের বহরেও ছিলেন তিনি।

স্টার্টআপ বাংলাদেশের ওয়েবসাইটে অ্যাডভাইজর বোর্ডে রয়েছে ১৫ জনের নাম। সিলেকশন কমিটিতেও ১৫ জন। কিন্তু কোনোটিতেই টিনা জাবিনের নাম নেই।

গত বছর প্রকল্প শুরু হওয়ার সময় টিনা জাবিনকে আইডিয়া প্রজেক্টের সিনিয়র কনসালটেন্ট হিসেবে অস্থায়ীভাবে ৬ মাসের জন্য নিয়োগ দেওয়া হয় বলে জানিয়েছে তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের ইনভেস্টমেন্ট ডিজাইন অ্যান্ড এন্টারপ্রেনারশিপ একাডেমি (আইডিয়া) প্রজেক্ট সূত্র।

নিয়োগের পর টিনার বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ ওঠে। নিয়ম মতে, কনসালটেন্টদের প্রতিবেদন দেওয়ার বিষয়ে স্পষ্ট করে উল্লেখ করা হলেও তিনি সেটি কখনোই করেননি। তিনি কোনোরকম অনুমতি না নিয়েই দেশের বাইরে যেতেন। এগুলোর জন্য ৬ মাস পর তার নিয়োগ পুনরায় অনুমোদন করা হয়নি।

তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রীর উপস্থিতিতে অনেক অনুষ্ঠানে টিনাকে দেখা যায়। বিদেশে প্রতিমন্ত্রীর বহরে সরকারি সফরেও তাকে দেখা গেছে। টিভি টকশো ও নানা প্রোগ্রামে টিনা নিজেকে স্টার্টআপ বাংলাদেশের ইনভেস্টর অ্যাডভাইজর হিসেবে পরিচয় দিচ্ছেন।

টিনা জাবিনের স্টার্টআপ বাংলাদেশের ইনভেস্টর অ্যাডভাইজর পরিচয়ের বিষয়ে আইডিয়া প্রকল্পের পরিচালক (পিডি) সৈয়দ মজিবুল হক বলেন, টিনা জাবিনকে ৬ মাসের জন্য কনসালটেন্ট হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তার বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ ওঠার কারণে ৬ মাস পর তাকে পুনরায় নিয়োগ দেওয়া হয়নি। তার স্থলাভিষিক্ত নতুন কনসালটেন্ট নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, এই প্রতিষ্ঠানে ৬ মাসের জন্য কনসালটেন্ট নিয়োগ দেওয়া হয়। টিনাও সেভাবেই নিয়োগ পান। কিন্তু তিনি ভালো পারফরম্যান্স করতে পারেননি। তাই তাকে পুনরায় নিয়োগ দেওয়া হয়নি। নতুন কনসালটেন্ট নিয়োগের আবেদন নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু সেখানে উপযুক্ত কাউকে না পাওয়ার কারণে আবারও এই পদের জন্য আবেদন নেওয়া হচ্ছে। এই পদ এখনো খালি আছে।

যুক্তরাষ্ট্রে একটি সরকারি সফরে প্রতিমন্ত্রীর বহরে টিনা জাবিন (ছবি : সংগৃহীত)

টিনা প্রকাশ্যেই নিজেকে স্টার্টআপ বাংলাদেশের ইনভেস্টর অ্যাডভাইজর হিসেবে পরিচয় দিচ্ছেন। টিনা সেখানে নতুন কোনো পদে যোগ দিয়েছেন কি না, এ প্রশ্নে সৈয়দ মজিবুল হক বলেন, এই নামে আমাদের প্রতিষ্ঠানে কোনো পদই নেই। তিনি কীভাবে আমাদের এখানে আছেন তা আমার জানা নেই।

টিনা এখন তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের কোনো পদে রয়েছেন কি না, এ ব্যাপারে আইসিটি বিভাগের সচিব এন এম জিয়াউল আলম বলেন, তিনি এখন মন্ত্রণালয়ের কোনো পদে নেই। তবে তিনি মন্ত্রণালয়কে নানাভাবে পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

আইসিটি মন্ত্রণালয়ের কী দায়িত্ব পালন করছেন, এমন প্রশ্নে টিনা জাবিন বলেন, ‘একদম শুরু থেকেই আমি আইডিয়া প্রজেক্টে রয়েছি। আমি স্টার্টআপ বাংলাদেশের ইনভেস্টর অ্যাডভাইজর হিসেবে আছি।’ তবে এই নামে কোনো পদই নেই, এ প্রসঙ্গ আসলে তিনি কিছুক্ষণ চুপ থাকেন।

আপনি আইডিয়া প্রজেক্টের সিনিয়র কনসালটেন্ট হিসেবে ৬ মাস ছিলেন, আপনার পারফরমেন্স ভালো না হওয়ার পুনরায় নিয়োগ দেওয়া হয়নি বলে মন্ত্রণালয় সূত্র বলেছে। এ ব্যাপারে কী বলবেন? এ প্রশ্নে টিনা বিরক্তি প্রকাশ করে বলেন, আমি বিষয়টি মন্তব্য করতে চাই না। আপনার কিছু জানার থাকলে তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন।

স্টার্টআপ বাংলাদেশ লিমিটেড নামে গত ১৯ আগস্ট সম্পূর্ণ সরকারি মালিকানাধীন একটি সরকারি ভেঞ্চার ক্যাপিটাল কোম্পানির নীতিগত অনুমোদন করেছে মন্ত্রিপরিষদ। কোম্পানিটি প্রতিষ্ঠার পর স্টার্টআপ মূল্যায়নের প্রেক্ষিতে সিড স্টেজে সর্বোচ্চ ১ কোটি এবং গ্রোথ গাইডেড স্টার্টআপ রাউন্ডে সর্বোচ্চ ৫ কোটি টাকা বিনিয়োগ করতে পারবে।

তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক স্টার্টআপ বাংলাদেশের অ্যাডভাইজর বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবে রয়েছেন। বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) সভাপতি ড. রুবানা হক রয়েছেন সিকেলশন কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে।

ওডি/এমআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড