• রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৭ আশ্বিন ১৪২৬  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন

২১ আগস্ট হামলায় জড়িতদের বিচারে উদ্যোগ নেবে সরকার : মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী  

  নিজস্ব প্রতিবেদক

২১ আগস্ট ২০১৯, ১৭:২১
মোজাম্মেল হক
মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক (ছবি : ফাইল ফটো)

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট ভয়াবহ গ্রেনেড হামলায় জড়িতদের বিচারের আওতায় আনতে সরকার উদ্যোগ নেবে বলে জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। 

বুধবার (২১ আগস্ট) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে জাতীয় শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদত বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ কথা জানান। তবে অসুস্থতার কারণে মন্ত্রী কথা বলতে না পারায় তার পক্ষ থেকে সাংবাদিকদের কাছে লিখিত বক্তব্য তুলে দেওয়া হয়। 

লিখিত বক্তব্যে মন্ত্রী ২১ আগস্ট নিহতদের বিদেহী আত্মার শান্তি ও মাগফেরাত কামনা করেন।

এছাড়া সভায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি মো. সাইফুল আলম বলেন, বাঙালি জাতিসত্তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছিল ১৯৪৭ সালে। পাকিস্তানের জন্ম ১৪ আগস্ট। সেই থেকেই শুরু বাঙালি জাতিকে দমিয়ে রাখার ষড়যন্ত্র। 

অনেকগুলো আগস্ট দেখেছি বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করা হয়। ১৭ আগস্ট বাংলাদেশের ৬৩ জেলায় বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে বাংলাদেশকে অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত করার চেষ্টা চালানো হয়। 

সবশেষ ২১ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনাকে নিশ্চিহ্ন করার চেষ্টা চালানো হয় বলে জানিয়ে সাইফুল আলম বলেন, ১৯৪৭ সালে শুরু হওয়া সেই ষড়যন্ত্র এখনো বিদ্যমান আছে। 

দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রে বঙ্গবন্ধুকে হারিয়েছি বলে মন্তব্য করে প্রেস ক্লাবের সভাপতি বলেন, একাত্তরের পরাজিত শক্তির ষড়যন্ত্রে বঙ্গমাতাসহ ২৬ জনকে হারিয়েছি। এ গ্লানি, এ লজ্জা আজও ভুলতে পারি না। এ ঘটনা আজও আমাদের কলঙ্কিত করে রেখেছে।

১৯৭৫ সালের হত্যাকাণ্ড ও ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার সম্পূর্ণ বিচারের দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, সম্পূর্ণ বিচার ছাড়া ওই শক্তিকে নিঃশেষ করা যাবে না। 

রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় এসব হত্যাকাণ্ড হয়েছিল বলে অভিযোগ তুলে সাইফুল ইসলাম বলেন, এতে অংশগ্রহণকারীদের চিহ্নিত করে বিচার করা হোক। যেদিন বাংলার মাটিতে এসব হত্যাকাণ্ডের সম্পূর্ণ বিচার হবে, সেদিন বঙ্গবন্ধুর আত্মা শান্তি পাবে। আমাদের গ্লানিও কিছুটা কমবে।

বিজেআরএফ সভাপতি আজিজুল ইসলাম ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ উপ-কমিটির সদস্য বলরাম পোদ্দার, জাতীয় মহিলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক বেগম শামসুন নাহার ভূঁইয়া, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন, বাংলাদেশ উপজেলা অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মো. হারুন-অর-রশীদ হাওলাদার প্রমুখ।

ওডি/এআর 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড