• রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

নির্ধারিত স্থানে কুরবানি দিতে মেয়র আতিকের আহ্বান

  অধিকার ডেস্ক

১১ আগস্ট ২০১৯, ২১:২৫
আতিকুল ইসলাম
ছবি : সংগৃহীত

রাজধানীবাসীকে সিটি কর্পোরেশনের নির্ধারিত স্থানে পশু কুরবানি দিতে এবং যত্রতত্র বর্জ্য না ফেলার আহ্বান জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম।

রবিবার (১১ আগস্ট) রাজধানীর ভাষানটেক ও তেজগাঁও পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট খেলার মাঠে পশুর হাট ঘুরে দেখার সময় তিনি এ আহ্বান জানান।

এ সময় ডিএনসিসি মেয়র এলাকাবাসী, পশু ব্যবসায়ী ও ক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলেন এবং কুশল বিনিময় করেন। ব্যবসায়ী, ক্রেতা ও স্থানীয় বাসিন্দারা পশুর হাটের সুন্দর ব্যবস্থাপনা করায় মেয়র আতিকুলকে ধন্যবাদ জানান।

ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, যত দ্রুত সম্ভব আমরা পশুর হাটের আবর্জনা ও অস্থায়ী স্থাপনা পরিষ্কার করে এলাকার বাসিন্দাদের চলাচল নির্বিঘ্ন করবো। পশু কুরবানির বর্জ্য কোনোভাবেই যাতে কেউ ড্রেনে বা ম্যানহোলে না ফেলে সেদিকে স্থানীয়দের সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে।

আপনারা ডিএনসিসি কর্তৃক দেওয়া ব্যাগে বর্জ্য ভরে নির্দিষ্ট জায়গায় রেখে দিন উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, আমাদের কর্মীরা দ্রুততম সময়ে সেটি অপসারণ করবে। কিন্তু ড্রেনে বা যত্রতত্র আবর্জনা ফেললে সেটি পরিষ্কার করা দুরূহ হয়ে পড়বে এবং জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হয়ে উঠবে। নিজেদের এলাকা পরিচ্ছন্ন রাখতে নিজেদের সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই। তিনি সড়কে যত্রতত্র পশু কুরবানি না করে সিটি কর্পোরেশন নির্ধারিত জায়গায় কুরবানি করার জন্য আহ্বান জানান।

ডিএনসিসি মেয়র বলেন, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক কুরবানির জন্য সর্বমোট ১শ জন ঈমাম ও ২শ জন মাংস প্রস্তুতকারীকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া এই প্রথমবারের মতো ডিএনসিসি কর্তৃক মহাখালী পশু জবাইখানায় যারা কুরবানির পশু নিয়ে আসবেন, তাদের পশু জবাই ও মাংস প্রস্তুত বাবদ ২৫% খরচ ডিএনসিসি বহন করবে। নাগরিকদের মাংস পরিবহনে প্রয়োজনে ডিএনসিসির গাড়ি ব্যবহার করে মাংস বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে।

আতিকুল ইসলাম বলেন, কুরবানির বর্জ্য অপসারণে বিশেষ পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রমের আওতায় উত্তর সিটির নিজস্ব ২ হাজার ৪শ জন এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এক হাজার ৪শ ৩৫ জন পরিচ্ছন্নতা কর্মী কাজ করবে। এছাড়া আরও ১ হাজার ১শ জন পরিচ্ছন্নতা কর্মী এবং বাসা-বাড়ি থেকে ভ্যান সার্ভিসের মাধ্যমে বর্জ্য সংগ্রহ করতে প্রায় ৪ হাজার ৫শ জন শ্রমিক কুরবানির বর্জ্য অপসারণে নিয়োজিত করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

পশুর হাট ঘুরে দেখার সময় মেয়রের সঙ্গে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- ডিএনসিসির আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম শফিউল হেমায়েত হোসেন, ভারপ্রাপ্ত প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা খোন্দকার নাজমুল হুদা শামিম, সম্পত্তি কর্মকর্তা সগীর হোসেন প্রমুখ।

ওডি/এএস

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড