• মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ৫ ভাদ্র ১৪২৬  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন

ওই মামু গাড়ি ঘুরাও ঢাকা যাইগা...!

  টাঙ্গাইল প্রতিনিধি

১০ আগস্ট ২০১৯, ১৯:২১

রাজধানীতে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন মো. রিপন মিয়া। তার গ্রামের বাড়ি কুড়িগ্রামে। শনিবার (১০ আগস্ট) ভোরে রাজধানী থেকে গ্রামের উদ্দেশে একটি বাসের যাত্রী হয়েছেন তিন। পরিবার-স্বজনদের সঙ্গে ঈদ করতে রওনা হওয়া রিপনের মাথায় শুধুই দুশ্চিন্তা। বাসটি ভোর থেকে দুপুর পর্যন্ত সময়ে মাত্র ঢাকা-টাঙ্গাইল বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের টাঙ্গাইল অংশের নগরজালফৈ বাইপাসে যেতে পেরেছে।

যানজটে আটকে থাকা রিপন এক পর্যায়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে বাসের চালকের উদ্দেশে বলেন, ‘ওই মামা গাড়ি ঘুরাও ঢাকা যাইগা...।’ এ সময় যানজটে বাস নিয়ে আটকে পড়া চালকও বিরক্ত হয়ে বলেন, ‘হ... মামা, ঠিকই কইছেন, ফিরে যাওয়াই ভালো।’ যদিও এসব ছিল ক্ষোভের কথা। বাসের সব যাত্রীরা রয়েছেন যাটজট কমার অপেক্ষায়। সবাই কষ্ট সহ্য করছেন আপনজনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ উপভোগ করবেন বলে।

যাত্রী রিপন মিয়া বলেন, ভোরে ঢাকা থেকে রওনা দিয়েছি কিন্তু এখন দুপুর পার হয়ে গেল। এই সময়েও যানজটে আটকা আছি এখানে (টাঙ্গাইলের বাইপাস নগরজালফৈ)। তাহলে কুড়িগ্রামে কখন পৌঁছাব এ নিয়ে চরম দুশ্চিন্তায় আছি।

মহাসড়কের রাবনা বাইপাস এলাকায় যানজটে আটকা থাকা ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা শাহজাদপুর ট্রাভেলসের বাসযাত্রী পোশাক শ্রমিক পারভীন বলেন, বৃহস্পতিবার ছুটি হলেও যানজটমুক্ত বাড়ি ফেরার আশায় ভোরে ঢাকা থেকে দুই শিশু কন্যাকে নিয়ে যাত্রা শুরু করেছি কিন্তু আজও দেখছি ভয়াবহ যানজট। ভোরে রওনা হয়ে এখন বিকাল, যানজটে আটকা আছি। কখন বাড়ি ফিরব ঠিক নেই। গরমের মধ্যে ছোট দুই বাচ্চা নিয়ে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছি।

কুড়িগ্রামগামী হানিফ পরিবহনের একটি বাসের চালক আবদুর রহিম বলেন, ভোরে ঢাকা থেকে রওনা দিলেও যানজটে আটকা পড়তে পড়তে এই বিকালে কেবল পৌঁছেছি টাঙ্গাইলের নগরজালফে বাইপাসে। সেতু পর্যন্ত পৌঁছাব কখন আর সেতুর পশ্চিম অংশে যানজটের কী অবস্থা তা নিয়েই ভাবছি। ঘণ্টার পর ঘণ্টা এভাবে যানজটে আটকে থেকে বাস চালাতে চরম বিরক্ত লাগছে।

রংপুরগামী এসআর ট্রাভেলসের একটি বাসের চালক মতিন মিয়া জানান, তিনি ঢাকা থেকে ভোরে রওনা হয়েছেন। তিনি বলেন, এখন বিকাল হয়ে গেছে। মাত্র পৌঁছেছি টাঙ্গাইল। রংপুর কখন পৌঁছাব চিন্তায় আছি। আর আজ গরম বেশি। গরমে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছি।

ঢাকা-টাঙ্গাইল বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের তারুটিয়া আন্ডারপাস এলাকায় দায়িত্বরত এসআই মো. শরীফ বলেন, সেতুর পশ্চিম অংশের সিরাজগঞ্জের নলকা ব্রিজ, হাটিকুমরুল আর কড্ডা মোড়ে পরিবহন টানতে না পারার কারণে সেতুর পূর্ব অংশ টাঙ্গাইল মহাসড়কে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। তবে টাঙ্গাইল অংশের পাকুল্লা, নগরজালফৈ, রাবনা ও এলেঙ্গা বাইপাস ছাড়া প্রায় সব অংশেই যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক।

তিনি জানান, মহাসড়কের যানজট নিরসনে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশের ৬৭০ সদস্য, আনসারের ১৯০ সদস্য কাজ করছেন। সন্ধার দিকে যান চলাচল স্বাভাবিক হবে। এছাড়াও মহাসড়কে মলমপার্টি ও ছিনতাইয়ের কবলমুক্ত ঘরমুখো মানুষের বাড়ি ফেরা নিশ্চিতে তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন সাদা পোশাকের পুলিশ ও র‌্যাবের সদস্যরা।

ওডি/এমআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড