• মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০১৯, ৮ শ্রাবণ ১৪২৬  |   ৩১ °সে
  • বেটা ভার্সন

শেষ ধাপে ২০ উপজেলায় ভোটগ্রহণ চলছে

  অধিকার ডেস্ক

১৮ জুন ২০১৯, ০৯:০২
উপজেলা নির্বাচন
ফাইল ছবি

পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের পঞ্চম ও শেষ ধাপের ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। বিগত সময়ে সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ হলেও মঙ্গলবার (১৮ জুন) সকাল ৯টা থেকে দেশের ২০টি উপজেলায় এ ভোটগ্রহণ শুরু হয়। বিকাল ৫টা পর্যন্ত বিরতিহীন চলবে এ ভোটগ্রহণ।

গ্রীষ্মকালীন সময় বিবেচনায় ও আগের রাতে ব্যালটে সিল মারা ঠেকাতে ভোটের সময় ১ ঘণ্টা পেছানো হয়েছে। দুটি উপজেলায় আজ সকালে ব্যালট পেপার পাঠানো হয়েছে। বাকি ১৮টি উপজেলার কেন্দ্রে কেন্দ্রে সোমবারই ব্যালট পৌঁছে গেছে। এ ধাপে চারটি উপজেলায় ইভিএমে ভোটগ্রহণ করা হবে। এদিকে শেষ ধাপের নির্বাচনে কয়েকটি উপজেলায় প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের মধ্যে সহিংসতার ঘটনায় ইসি উদ্বিগ্ন নয় বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব মো. আলমগীর।

তিনি বলেন, নির্বাচনের সহিংসতা নিয়ে উদ্বেগের কিছু নেই। ইসি তার দায়িত্ব পালন করবে। ইসি সচিব বলেন, সহিংসতার কারণে এক প্রার্থীর (বরগুনার তালতলী উপজেলায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী রেজবি-উল-কবির জমাদ্দার) প্রার্থিতা বাতিল করা হয়েছিল। কিন্তু তিনি হাইকোর্টের রায়ে প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন। আর অন্য একটি উপজেলায় অনিয়মের প্রমাণ মেলায় স্থানীয় প্রশাসনকে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালনের জন্য এবং সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে নির্বাচন কমিশন সব প্রস্তুতি নিয়েছে। ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাগুলোয় অতিরিক্ত বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। কাজেই আশা করি, ভোটার উপস্থিতি বাড়বে। এদিকে ইসি সূত্রে জানা গেছে, এ ধাপে চারটি উপজেলার সব কেন্দ্রে ইভিএম ব্যবহার করে ভোটগ্রহণ করা হবে।

সেগুলো হচ্ছে- গাজীপুর সদর, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর, নোয়াখালী সদর ও নারায়ণগঞ্জ বন্দর। ঝুঁকিপূর্ণ বিবেচনায় বিজয়নগর উপজেলায় ৫ প্লাটুন এবং রাঙ্গাবালী, মঠবাড়িয়া ও তালতলী উপজেলায় ৩ প্লাটুন করে অতিরিক্ত বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। আর কামারখন্দ ও তালতলী উপজেলায় আজ সকালে ব্যালট পেপার পাঠানো হবে।

যে ২০ উপজেলায় ভোট হবে : নাটোরের নলডাঙ্গা, গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ, সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ, বরগুনার তালতলী, গাজীপুর সদর, সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ বন্দর, রাজবাড়ীর কালুখালী, মাদারীপুর সদর, শেরপুরের নকলা, হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর, নোয়াখালী সদর, রাজশাহীর পবা, নেত্রকোনার পূর্বধলা, ফেনীর ছাগলনাইয়া, কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী, পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া, পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী ও খুলনার ডুমুরিয়া।

পাঁচ ধাপে অনুষ্ঠিত পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রথম ধাপ হয় ১০ মার্চ। দ্বিতীয় ধাপ ১৮ মার্চ, তৃতীয় ধাপ ২৪ মার্চ এবং চতুর্থ ধাপে ৩১ মার্চ ভোটগ্রহণ হয়। এর মধ্যে চতুর্থ ধাপে ছয়টি উপজেলায় এবং তৃতীয় ধাপে চারটি উপজেলায় ইভিএমে ভোটগ্রহণ করে ইসি। জাতীয় নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ তুলে বিএনপিসহ সমমনা দলগুলো প্রথমবারের মতো দলীয়ভাবে অনুষ্ঠিত এ নির্বাচন বর্জন করেছে। ফলে বিভিন্ন উপজেলায় মূলত আওয়ামী লীগের প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ প্রার্থীই।

মার্চ মাসের ১০ তারিখে পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রথম ধাপের ভোট অনুষ্ঠিত হয়। এরপর দ্বিতীয় ধাপে ১৮ মার্চ, তৃতীয় ধাপে ২৪ মার্চ ও চতুর্থ ধাপে ৩১ মার্চ ভোটগ্রহণ হয়। প্রথমবারের মতো দলীয়ভাবে অনুষ্ঠিত এই ভোটে জাতীয় নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ তুলে বিএনপিসহ সমমনা দলগুলো উপজেলা নির্বাচনের ভোট বর্জন করেছে।

ওডি/এএস

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড