• শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯, ৯ ভাদ্র ১৪২৬  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন

প্রবাসীদের সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা সরকারের দায়িত্ব : প্রধানমন্ত্রী 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্রুনাইয়ে বাংলাদেশ হাইকমিশনের নতুন চ্যান্সেরি ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন। (ছবি : পিআইডি)

বাংলাদেশের অর্থনীতিতে প্রবাসীদের অবদান গুরুত্বপূর্ণ। বৈদেশিক মুদ্রা রিজার্ভে তাদের বিশেষ ভূমিকা রয়েছে। তাই তাদের সুযোগ-সুবিধা ও কল্যাণ নিশ্চিত করা সরকারের দায়িত্ব বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।  

মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) ব্রুনাইয়ের রাজধানীর জালান কেবাংসানের কূটনৈতিক জোনে বাংলাদেশ হাইকমিশনের নতুন চ্যান্সেরি ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনকালে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

বাংলাদেশি প্রবাসীদের সেবা বৃদ্ধির জন্য বিদেশের প্রত্যেকটি দেশে বাংলাদেশ মিশনে নিজস্ব ভবন থাকবে বলেও জানান শেখ হাসিনা। তিনি জানান, বিদেশের মাটিতে-যেখানে বাংলাদেশি প্রবাসীরা বেশি রয়েছেন, সেখানে অন্তত একটি স্কুল প্রতিষ্ঠার জন্য ইতোমধ্যে সব নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। যাতে করে বাংলাদেশি প্রবাসীরা তাদের সন্তানদের সঠিকভাবে পড়াশোনা শেখাতে পারেন।

ব্রনাইকে খুব সুন্দর দেশ আখ্যায়িত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ব্রুনাইয়ের মতো এমন অনেক জায়গা রয়েছে, যা বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা অন্বেষণ করতে পারে। এগুলো হবে আমাদের ব্যবসা ও বাণিজ্যের জন্য নতুন নতুন এলাকা। ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনকালে প্রস্তাবিত চ্যান্সেরি ভবন ও বাসস্থানের স্থাপত্য নকশার ভূয়সী প্রশংসাও করেন তিনি।

এ সময় বাংলাদেশি মিশন ও চ্যান্সেরি ভবন নির্মাণের সময় স্থানীয় পরিবেশ, আবহাওয়ার পাশাপাশি বাংলাদেশের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য প্রতিফলিত করার বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন তিনি।

এর আগে গতকাল সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ব্রুনাইয়ের সুলতান হাজী হাসানাল বলকিয়ার মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে দুদেশের মধ্যে কৃষি, সংস্কৃতি ও শিল্প, যুব ও ক্রীড়া, মৎস্য, পশু সম্পদ, জ্বালানি খাতে ছয়টি সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে। এ ছাড়া দুই দেশের কূটনৈতিক ও সরকারি কর্মকর্তাদের ভিসা ছাড়া ভ্রমণ বিষয়ে একটি কূটনৈতিক নোট বিনিময় হয়েছে। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফিং করে এসব বিষয় জানান পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক। 

কৃষিক্ষেত্রে বৈজ্ঞানিক ও কারিগরি সহযোগিতা বিষয়ক সমঝোতা স্মারকে সই করেন বাংলাদেশের কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক ও ব্রুনেইয়ের প্রাইমারি রিসোর্স ও পর্যটনমন্ত্রী হাজি আলি বিন আপং। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদের সম্পদ সেক্টরে সহযোগিতা বিষয়ে দুটি সমঝোতা স্মারক সই করেন বাংলাদেশের মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু ও হাজি আলী বিন আপং।

শিল্প ও সংস্কৃতির ক্ষেত্রের সহযোগিতা বিষয়ক সমঝোতায় সই করেন বাংলাদেশের শিল্প ও সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ এবং ব্রুনেইয়ের সংস্কৃতি, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী হাজি আমিনুদ্দীন ইহসান। যুব ও ক্রীড়া খাতের সহযোগিতা বিষয়ে সমঝোতা স্মারকে সই করেন বাংলাদেশের যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল ও হাজি আমিনুদ্দীন ইহসান।

এলএনজি ও এলপিজি সরবরাহ সহযোগিতা বিষয়ক সমঝোতা স্মারকে সই করেন বাংলাদেশে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু এবং ব্রুনেইয়ের জ্বালানি, জনশক্তি ও শিল্পমন্ত্রী হাজি মাত সানি।

এছাড়া দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় অঞ্চলে ইসলামী সহযোগিতা সংস্থার (ওআইসি) সদস্য পাঁচটি দেশের সমন্বয়ে আঞ্চলিক অর্থনৈতিক ফোরাম গঠনের প্রস্তাব দিয়েছে বাংলাদেশ। প্রস্তাবিত আঞ্চলিক অর্থনৈতিক ফোরাম দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া কো-অপারেশন অর্গানাইজেশনের (সিয়াকো) সদস্য হবে দক্ষিণ এশিয়া থেকে বাংলাদেশ ও মালদ্বীপ এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া থেকে ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া ও ব্রুনাই। বাংলাদেশের এই প্রস্তাবে সাড়া দিয়েছেন ব্রুনাইয়ের সুলতান হাজী হাসানাল বলকিয়া। তিনি বিষয়টি নিয়ে অনুকূল বিবেচনা করবেন বলে আশ্বস্ত করেছেন। 

এছাড়া দ্বিপাক্ষিক এই আলোচনায় রোহিঙ্গা সংকটসহ দ্বিপক্ষীয় স্বার্থ ও আন্তর্জাতিক উদ্বেগ সংক্রান্ত বিষয়গুলো স্থান পায়। রোহিঙ্গা ইস্যুতে, বলকিয়া রোহিঙ্গা সংকটের ‘সঠিক ও স্থায়ী সমাধান’ করার ওপর জোর দেন। তিনি বলেন, ‘আমাদের সব ধরনের প্রচেষ্টা গ্রহণ করা উচিত যাতে রোহিঙ্গারা ফিরে যেতে পারে’। এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী আসিয়ানের বড় ধরনের অংশগ্রহণ কামনা করেন। এছাড়া সুলতানের সহযোগিতাও কামনা করেন। আসিয়ান সম্পর্কে সুলতান আশ্বাস দেন যে, বাংলাদেশ এবং আঞ্চলিক ফোরামের সহযোগিতাকে শক্তিশালী করতে ব্রুনাই সহায়তা প্রদান করবে। 

বাংলাদেশ ও ব্রুনাইয়ের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক ও সহযোগিতা আরও জোরদার করার জন্য প্রধানমন্ত্রী আরও কিছু প্রস্তাব করেছেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের মধ্যে পারস্পরিক যোগাযোগ বৃদ্ধি এবং এ লক্ষ্যে একটি অগ্রাধিকার বাণিজ্য ব্যবস্থার সম্ভাব্যতা যাচাই করার প্রস্তাব করেছেন। এছাড়া শেখ হাসিনা দুদেশের মধ্যে যৌথ কমিশন গঠনের বিষয়ে আলোচনা করার প্রস্তাব দেন।

প্রধানমন্ত্রী পাট ও পাটজাত পণ্য, সফটওয়্যার, কৃষি পণ্য, সিরামিক ও টেবিলওয়্যার, জাহাজ নির্মাণ শিল্প ও পর্যটন ক্ষেত্রে সহযোগিতার উপর গুরুত্বারোপ করেন। শেখ হাসিনা বলেন, সরকার শিল্প পার্ক স্থাপন করছে যেখানে ব্রুনাইয়ের উদ্যোক্তারা বিনিয়োগ করতে পারে। তিনি দ্বৈত কর পরিহার করার পাশাপাশি পারস্পরিক প্রচার এবং বিনিয়োগের সুরক্ষার ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী ব্রুনাইয়ের প্রেক্ষাপটে স্বাস্থ্য ও কৃষি খাতে অগ্রাধিকার দেন এবং বলেন, দুই দেশের মধ্যে স্বাস্থ্য পেশাজীবী ও ফার্মাসিউটিক্যালসের ক্ষেত্রে বড় ধরণের সহযোগিতা গড়ে তোলা যেতে পারে। এছাড়া দুই রাষ্ট্রের মধ্যে যোগাযোগ বাড়াতে সরাসরি বিমান চলাচল শুরুর বিষয়টিও আলোচনায় গুরুত্ব পেয়েছে। এই বিষয়ে পররাষ্ট্র সচিব বলেন, প্রধানমন্ত্রী ও সুলতান উভয়ই বাংলাদেশ ও ব্রুনাইয়ের মধ্যে সরাসরি বিমান চলাচল শুরুর কথা বলেছেন।

প্রধানমন্ত্রী মানবিক কর্মসূচি ও জ্ঞান বিনিময়ের মতো অস্ত্রশস্ত্রবিহীন ক্ষেত্রে সামরিক সহযোগিতার প্রস্তাব দেন। এ প্রসঙ্গে সুলতান বিশ্বজুড়ে সমস্যাক্রান্ত অঞ্চলে শান্তি বজায় রাখার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের শান্তিরক্ষী বাহিনীর ভূমিকার প্রশংসা করেন।

ওডি/এআর 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড