• বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০১৯, ১১ বৈশাখ ১৪২৬  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন

মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদান রেখেছিলেন যে বিদেশি বন্ধুরা

নাবিলা বুশরা  
২৬ মার্চ ২০১৯, ১০:৩৪

বিদেশি বন্ধু
বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অবদান ছিল বেশ কিছু বিদেশি বন্ধুদের (ছবি: সম্পাদিত)

১৯৭১ সালে বাংলাদেশ পার করছিল কঠিন এক সময়। মানুষের অসহায় আর দুর্বিষহ অবস্থা ছিল বর্ণনাতীত। অসহায় সে সময় এগিয়ে এসেছিলেন বিদেশি অনেক বন্ধু। যুদ্ধে মানুষের সহায়তায় তাঁদের অবদান ছিল অনস্বীকার্য। স্বাধীনতা দিবসের আজকের আয়োজন সে সকল বিদেশি বন্ধুদের নিয়ে।

ইন্দিরা গান্ধী

বাংলাদেশের সবচেয়ে কঠিন সময়ে তাদের সহায়তায় সবচেয়ে আপন হয়ে উঠেছিলেন ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধী।

ইন্দিরা গান্ধী

ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী (ছবি : পিন্টারেস্ট)

পাকিস্তানীদের অত্যাচারের হাত থেকে প্রাণ বাঁচানোর জন্য যখন বাংলাদেশিরা সীমান্তের ওপারে যায় তখন অসংখ্য মানুষকে তিনি আশ্রয় দিয়েছেন ভারতের বিভিন্ন এলাকায়।

ইন্দিরা

ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী ১৯৭১ সালের মে মাসে শিলচর এবং আগড়তলার রিফিউজে ক্যাম্পে শরণার্থীদের সাথে দেখা করতে আসেন। (ছবি : দ্য হিন্দু আর্কাইভস)

সে সময় অসহায় শরণার্থীদের তিনি সহায়তা করেছেন খাদ্য আর বাসস্থান দিয়ে। এমনকি বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সমর্থন আদায়ের জন্যেও তাঁর অবদান ছিল অনস্বীকার্য।

সাইমন ড্রিং

যুদ্ধের সময় বাংলাদেশের মানুষের ওপর অত্যাচার আর নৃশংসতার ভয়াবহ চিত্র ক্যামেরায় ধারণ করেছিলেন ইংরেজ সাংবাদিক সাইমন ড্রিং।

সাইমন

ইংরেজ সাংবাদিক সাইমন ড্রিং (ছবি : ইউটিউব)

জীবন বাজি রেখে তাঁর তোলা এ সকল ছবি পরবর্তীতে গণমাধ্যমের সহায়তায় বিশ্ববাসীর কাছে সে সময়ের ভয়াবহতার চিত্র প্রকাশ করে।

রবিশঙ্কর

মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন ভারতের খ্যাতিমান সেতার বাদক রবিশঙ্কর এ দেশের মানুষের অর্থ সাহায্যের জন্য আমেরিকাতে একটি চ্যারিটি কনসার্টের আয়োজন করেন।

রবিশংকর

ভারতের খ্যাতিমান সেতার বাদক রবিশঙ্কর (ছবি: বিবিসি)

এই কনসার্টটিই ইতিহাসে ‘কনসার্ট ফর বাংলাদেশ’ নামে পরিচিত।

জর্জ হ্যারিসন

'কনসার্ট ফর বাংলাদেশ' এর আয়োজনে রবিশঙ্করের সাথে সায় দেন বিখ্যাত বিটলস ব্যান্ডের অন্যতম সদস্য জর্জ হ্যারিসন। ১৯৭১ সালের ১ আগস্ট নিউইয়র্কের ম্যাডিসন স্কয়ারে বসে পৃথিবীর ইতিহাসে স্মরণীয় এই ঐতিহাসিক কনসার্ট।

হ্যারিসন

বিটলস ব্যান্ডের অন্যতম সদস্য জর্জ হ্যারিসন (ছবি: ডিরেস ট্রেইটস ব্লগ)

এই কনসার্টে হ্যারিসন গেয়েছিলেন বিখ্যাত গান 'বাংলাদেশ'। কনসার্টটিতে গিটার বাজিয়েছিলেন কিংবদন্তি গিটারিস্ট এরিক ক্ল্যাটন। তাঁর সাথে গেয়েছিলেন রিঙ্গো স্টার, লিওন রাসেল, বিলি প্রিস্টন আর কিংবদন্তি গায়ক বব ডিলানও।

অ্যাডওয়ার্ড কেনেডি

মুক্তিযুদ্ধের সঙ্গে একাত্মতা পোষণকারী বাংলাদেশিদের অকৃত্রিম বন্ধু যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটর অ্যাডওয়ার্ড কেনেডি। ১৯৭১ সালে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের শুরুর দিকে গণহত্যার বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ করেছিলেন তিনি।

কেনেডি

বাংলাদেশিদের অকৃত্রিম বন্ধু যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটর অ্যাডওয়ার্ড কেনেডি (ছবি: সংগৃহীত)

ভারতে বাংলাদেশি শরণার্থীদের অসহায় অবস্থা নিজ চোখে দেখে এসে কেনেডি সিনেট জুডিশিয়ারি কমিটির কাছে বিস্তারিত রিপোর্ট করেছিলেন ‘ক্রাইসিস ইন সাউথ এশিয়া’ নামে। ইতিহাসে এই রিপোর্টটির গুরুত্ব অনেক। কেনেডি যুক্তরাষ্ট্র ছাড়াও তিনি বিভিন্ন দেশে গিয়ে বাংলাদেশের শরণার্থীদের জন্য সাহায্য চেয়েছেন।

জোসেফ ও’কনেল

জোসেফ ও’কনেল টরেন্টো বিশ্ববিদ্যালয়ে ধর্ম গবেষণা বিভাগের প্রফেসর ছিলেন। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে টরেন্টো বিশ্ববিদ্যালয়ে জনমত গড়ে তোলার ক্ষেত্রে তাঁর অসামান্য অবদান ছিল।

জোসেফ

জোসেফ ও’কনেল (ছবি: সংগৃহীত)

বাংলাদেশের সংস্কৃতি, ভাষার প্রতি সত্যিকারে দরদ দেখানোর প্রতি যে কয়জন বিদেশি মানুষের নাম আছে তাঁদের মাঝে অন্যতম এক নাম জোসেফ ও’কনেল।

ডব্লিউ এস ওডারল্যান্ড

অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক ডব্লিউ এস ওডারল্যান্ড ছিলেন একজন ওলন্দাজ-অস্ট্রেলীয় সামরিক কমান্ডো অফিসার। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন তিনি। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদান রাখার জন্য বীর প্রতীক খেতাব লাভ করেছেন ওডারল্যান্ড। ১৯৭০ সালে বাটা সু কোম্পানিতে চাকরি নিয়ে বাংলাদেশে এসেছিলেন তিনি।

ওডারল্যান্ড

ডব্লিউ এস ওডারল্যান্ড (ছবি: সংগৃহীত)

টঙ্গীর বাটা জুতো কারখানায় কর্মরত অবস্থায় ১৯৭১ সালের ৫ মার্চ মেঘনা টেক্সটাইল মিলের সামনে শ্রমিক-জনতার মিছিলে ইপিআর-এর সদস্যদের গুলিবর্ষণের ঘটনা কাছে থেকে দেখেছেন ওডারল্যান্ড। তখনই এ দেশের মানুষকে সাহায্য করার সিদ্ধান্ত নেন তিনি।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড