• রবিবার, ১৯ মে ২০১৯, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬  |   ৩৩ °সে
  • বেটা ভার্সন

চেয়ারম্যান বদলি হলেও উচ্ছেদ অভিযান চলবে : বিআইডব্লিউটিএ   

  নিজস্ব প্রতিবেদক ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৮:০৫

বিআইডব্লিউটিএ’র বিদায়ি চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক, পাশে উচ্ছেদ অভিযানের একটি অংশ

চেয়ারম্যানের বদলি হলেও উচ্ছেদ অভিযান চলবে বলে জানিয়েছে বিআইডব্লিউটিএ। সংস্থাটির যুগ্ম পরিচালক এ কে এম আরিফ উদ্দিন সংবাদ মাধ্যমকে জানান চলমান উচ্ছেদ অভিযানের সঙ্গে বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যানের বদলির কোনো সম্পৃক্ততা নেই। সরকারি চাকরির ক্ষেত্রে বদলি হওয়ার বিষয়টি স্বাভাবিক ঘটনা বলে উল্লেখ করেন তিনি।

গত বৃহস্পতিবার ১৪ ফেব্রুয়ারি জনপ্রশাসন প্রেষণ-১ অধিশাখা উপসচিব মোহাম্মদ আব্দুল লতিফ স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে বলা হয়, এয়ার কমোডর এম মোজাম্মেল হককে নৌবাহিনীতে প্রত্যাবর্তনের জন্য সশস্ত্রবাহিনী বিভাগে হস্তান্তর করা হয়েছে।

তার স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন কমডোর এম মাহাবুব উল ইসলাম।

তবে একটি প্রশ্ন জেগেছে এলাকাবাসী মনে। তা হলো, আদি চ্যানেল উদ্ধারের অভিযান থেমে গেছে। একদিন অভিযান চালানোর পর এখানে আর কোন অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে না।

বিশেষ করে নবাবগঞ্জ বেড়িবাধ থেকে কম্পানি ঘাট হয়ে হাজির ঘাট পর্যন্ত বুড়ি গঙ্গার আদি চ্যানেল পুরোটাই বেদখল হয়ে আছে। দেখলে বোঝার উপায় নেই এখানে এক সময় নৌকা চলতো, এখানে ভাঘলপুরের জেলেরা মাছ ধরে জীবন যাপন করতো।

অভিযান ও সংস্থার সাবেক প্রধানের বদলি বিষয়ে বিআইডাব্লিউটিএ’র যুগ্ম পরিচালক জানান, ‘চেয়ারম্যান বদলি নিয়ে ভুল ব্যাখ্যা দেয়ার সুযোগ নেই। এম মোজাম্মেল হক বাংলাদেশ নৌবাহিনী থেকে প্রেষণে বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োজিত ছিলেন। তিনি প্রায় চার বছর চেয়ারম্যান হিসেবে নেতৃত্ব দিয়ে বিআইডব্লিউটিএকে আরও উচ্চ মাত্রায় নিয়ে গিয়েছেন।’

যুগ্ম পরিচালক বলেন, ‘এত দীর্ঘ সময় চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করা বিআইডব্লিউটিএ’র সুদীর্ঘ ইতিহাসে বিরল। এই বদলি আদেশের সঙ্গে নদীতে চলমান অভিযানের কোনো ধরনের সম্পৃক্ততা নেই।‘

তিনি বলেন, ‘সরকারি/সশস্ত্র বাহিনীর চাকরিতে এটি একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া মাত্র। পরবর্তী উচ্চ পদে পদোন্নতির জন্যও তার নৌবাহিনীতে প্রত্যাবর্তন জরুরি। নতুন চেয়ারম্যান হিসেবে যিনি পদায়িত হয়েছেন, (কমডোর এম মাহবুব-উল ইসলাম) আরও দুর্বার গতিতে চলমান কর্মসূচিগুলো এগিয়ে নিয়ে যাবেন।’

যুগ্ম পরিচালক আরও জানান, চতুর্থ পর্যায়ের তিন দিনব্যাপী উচ্ছেদ অভিযান শুরু হতে যাচ্ছে সোমবার ১৮ ফেব্রুয়ারি।

এর আগে তিন ধাপে নয় দিন উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)। অভিযানে বুড়িগঙ্গা নদী ও নদীর আদি চ্যানেল কামরাঙ্গীরচর খাল দখল করে গড়ে ওঠা দেড় হাজার অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। উচ্ছেদ অভিযানে ভাঙা পড়ে সংসদ সদস্য, দুদক কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন প্রভাবশালীদের স্থাপনা।

চতুর্থ পর্যায়ের উচ্ছেদ অভিযানের আগেই বদলি হয়েছেন বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমডোর এম মোজাম্মেল হক। অনেকেই ধারণা পোষণ করেছেন ক্ষমতাসীনদের চাপের মুখে সংস্থাটির চেয়ারম্যানের বদলি আদেশ দেয়া হয়েছে। তবে আরও কিছু স্থাপনা বহাল তবিয়তে থাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এলাকাবাসী। তাছাড়া বুড়ি গঙ্গার আদি চ্যানেল উদ্ধার কার্যক্রম শুরু হলেও অজ্ঞাত কারণে থেমে গেছে। এ নিয়ে অনেকের মনে প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে।

ওডি/ এজেড

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড