• সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন পূরণ হয়েছে : শেখ হাসিনা 

  নিজস্ব প্রতিবেদক

২৪ ডিসেম্বর ২০১৮, ১১:৫৬
আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা (ছবি : সংগৃহীত)

আধুনিক প্রযুক্তি ও বিজ্ঞানসম্মত জাতি গড়ে তোলার লক্ষ্যে আওয়ামী লীগ সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন পূরণ হয়েছে বলে জানিয়েছেন দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সোমবার (২৪ ডিসেম্বর) বেলা পৌনে ১১টার দিকে সরকারি বাসভবন গণভবনে পরীক্ষার ফলাফল হস্তান্তর অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। 

প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) ও জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) এবং সমমানের পরীক্ষার কারণে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা নিয়ে ভয় কেটে গেছে বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, শিক্ষাই পারে একটি দেশকে উন্নত সমৃদ্ধ, ক্ষুধামুক্ত ও দারিদ্রমুক্ত করতে। এই শিক্ষাটা হতে হবে আধুনিক ও বিজ্ঞানসম্মত। 

তিনি বলেন, দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা দেশকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাব। যাতে বাংলাদেশ একটি উন্নত সমৃদ্ধ দেশ হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ক্ষুধামুক্ত ও দারিদ্রমুক্ত দেশ করতে বঙ্গবন্ধু স্বপ্ন দেখেছিলেন। তিনি শিক্ষাকে বেশি গুরুত্ব দিয়েছিলেন। শিক্ষাকে এগিয়ে নিতে বঙ্গন্ধু প্রাথমিক শিক্ষাকে বাধ্যতামূলক করেছিলেন। সকল শিক্ষকদের বেতন সরকারীকরণ করে ছিলেন।

তিনি আরও বলেন, ৯৬ সালে স্বাক্ষরতার হার ৪৫ ভাগ। তখন আমরা নিরক্ষরতামূলক কর্মসূচি হাতে নিলাম। দল হিসেবেও আমরা উদ্যোগ নিয়েছিলাম। ছাত্রলীগকে নির্দেশ দিলাম যে, অন্তত ৫ জন নিরক্ষরকে শিক্ষা দিতে হবে তাহলেই তাকে সংগঠন মূল্যায়ন করবে। এভাবেই আমরা শিক্ষাকে এগিয়ে নিয়েছি। স্বাক্ষরতা দেওয়ার জন্য এনজিও, স্বেচ্ছায় যারা কাজ করে সবাইকে এ কাজের আওতায় নিয়ে আসলাম। পরে সেটিকে ৬৫ ভাগে উন্নীত করতে সক্ষম হলাম। 

একটি শিক্ষাই পারে একটি দেশ পারে ক্ষুধামুক্ত করতে, দারিদ্রমুক্ত করতে বলে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, আমরা সবসময় আমাদের চাহিদাগুলোকে সামনে রেখেই উদ্যোগ নিয়েছি। বিজ্ঞান ও কারিগরি শিক্ষা এবং কম্পিউটার শিক্ষায় উৎকর্ষতা আনার জন্য বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় নাম দিয়ে ১২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান করেছি। বিজ্ঞান ও কারিগরি শিক্ষায় আমরা জোর দিলাম। 

ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন এখন পূরণ হয়েছে বলে জানিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, আধুনিক প্রযুক্তি ও বিজ্ঞানসম্মত জাতি গড়ে তুলতে অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে সেটা খুব প্রয়োজন ছিল। ইতিমধ্যে আমরা উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছি। সেটাকে আমাদের ধরে রাখতে হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, এ দেশ নদীমাতৃক দেশ। নদীমাতৃক দেশ হিসেবে ডেল্টা প্লান ২১০০ আমরা শুরু করেছি। ২১০০ সাল পর্যন্ত আমাদের পরিকল্পনা, সেটা আমি জাতিকে অবিহিত করলাম।

তিনি জানান, ঠিক সময় মতো রেজাল্ট দেয়া, বিনা পয়সায় বই দেওয়ায় শিক্ষায় মানুষের আগ্রহ বাড়ছে। উচ্চ শিক্ষা তরান্বিত করতে আমরা বৃত্তি দিচ্ছি। পিএইচডি পর্যন্ত করতে চাইলেও সুযোগ করে দিয়েছি। আমরা মেধাবীদের বৃত্তি দিচ্ছি। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির শিক্ষা উন্নতি করার লক্ষ্যে শিক্ষকদের যাবতীয় ট্রেনিং দিচ্ছি। পঞ্চম শ্রেণি ও অষ্টম শ্রেণির পরীক্ষার ফলে ছোট্ট শিশুদের ভেতরে আত্মবিশ্বাস জেগে ওঠছে। কারণ তারা একটি সার্টিফিকেট পাচ্ছে। সকলেই তো উচ্চশিক্ষা নেবে না। কারিগরি বা বিজ্ঞান বিভিন্ন দক্ষতায় বিকশিত হতে প্রাথমিক পর্যায়ে একটি সার্টিফিকেট পাওয়া প্রয়োজন।

এবার ৮৫ ভাগের ওপরে পাশের হার। যারা পাশ করেছে তাদের অভিনন্দন ও যারা পাশ করেনি তাদেরকে লেখাপড়ায় মনোযোগী হতেও শেষে পরামর্শ দেন প্রধানমন্ত্রী। 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন সজীব 

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড