• সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ভাগাড়ে ভুগছে রংপুর নগরবাসী

  বিশেষ প্রতিবেদক

০৮ মার্চ ২০২৪, ২১:১১
ভাগাড়ে ভুগছে রংপুর নগরবাসী
প্রতিদিন ৬০ থেকে ৭০ টন ময়লা-আবর্জনা জমে নগরীতে
নিত্যদিন ৮০০ শ্রমিক ৩৬টি গাড়ি নিয়ে ময়লা পরিষ্কার করেন
আমি দায়িত্ব নেওয়ার পর একটি ময়লাও যত্রতত্র ফেলা হয়নি। নির্জন স্থানে ময়লা-আবর্জনা ফেলা হচ্ছে। মানুষের সমস্যা হওয়ার কথা নয়। আগের মেয়র বিলে ছয় বছর আগে থেকে ফেলছেন। মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, সিটি মেয়র (রংপুর)

যত্রতত্র ফেলা হচ্ছে সিটি করপোরেশনের ময়লা-আবর্জনা। রংপুর নগরীর নাছনিয়া এলাকায় নিজস্ব জায়গা না থাকায় যত্রতত্রভাবে বিভিন্ন স্থানে ময়লা-আবর্জনা ফেলছে সিটি করপোরেশন। এর ফলে দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন নগরবাসী। এছাড়া রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও শত শত ক্লিনিক-হাসপাতালের ময়লা ও বর্জ্য যেখানে-সেখানে ফেলা হচ্ছে। এর ফলে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ।

জানা যায়, রংপুর নগরীতে প্রতিদিন কমপক্ষে ৬০ থেকে ৭০ টন ময়লা-আবর্জনা জমে যায়। এসব ময়লা-আবর্জনা সিটি করপোরেশনের নিজস্ব জায়গা না থাকায় রাস্তার পাশের বিভিন্ন স্থানে ফেলা হচ্ছে। রাস্তার পাশে এসব ময়লা ফেলার কারণে মানুষকে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে বলে দাবি নগরবাসীর। সিটি করপোরেশনের নিজস্ব ময়লা ফেলার জায়গা না থাকায় নগরীর কলাবাড়ি ও নাছনিয়ার বিলে ফেলা হচ্ছে আবর্জনা।

এ দিকে নগরীর বিভিন্ন স্থানে ময়লা ফেলছে হোটেলসহ নানা ধরনের প্রতিষ্ঠান। তবে নাছনিয়ার বিল নামক এলাকায় ময়লা স্তূপ করে রাখায় ভোগান্তিতে সাধারণ মানুষ।

স্থানীয় শরিফুল ইসলাম, দেবাশীষ, কালাম মিয়া জানান, রাস্তার পাশে ময়লা-আবর্জনা ফেলছে সিটি কর পোরেশন। ফলে এই এলাকা দিয়ে যাতায়াত করতে অনেক কষ্ট হয়। চলাচল করতে হচ্ছে মুখে কাপড় পেঁচিয়ে।

রংপুর মহানগর ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সভাপতি শাহ মো. আশরাফুদৌল্লা আরজু জানান, হোটেল-মাছ-কাঁচামাল ব্যবসায়ীরা যদি একটু সতর্ক হন, তাহলে এই ময়লা রাস্তার পাশে ফেলত না। আর এই ময়লা ফেলার ফলে মানুষের দুর্ভোগ হচ্ছে।

রংপুর জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মামুন-আর রশিদ বলেন, সিটি কর্পোরেশনকে এসব ময়লা ও বর্জ্য ফেলার জন্য নির্দিষ্ট স্থান দেওয়া হয়েছে।

রংপুর সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলেন, ৮০০ শ্রমিক ৩৬টি গাড়ি নিয়ে ময়লা পরিষ্কার করছেন প্রতিদিন। এরপরও ময়লা ফেলা নিয়ে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে সিটি কর্পোরেশনকে। জায়গার সংকট রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, নাছনিয়ার বিলে পাহাড়ের মতো উঁচু করে ময়লার স্তূপ করা হয়েছে ছয় বছর আগে। দুর্ভোগে অনেক মানুষের সমস্যা হচ্ছে। যদিও আমি দায়িত্ব নেওয়ার পর একটিও ময়লা নাছনিয়ার বিলে ফেলা হয়নি। নির্জন স্থানে এই ময়লা-আবর্জনা ফেলা হচ্ছে। মানুষের সমস্যা হওয়ার কথা নয়। বিলে ছয় বছর আগে থেকে ফেলছেন আগের মেয়র।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড