• রোববার, ২৫ জুলাই ২০২১, ১০ শ্রাবণ ১৪২৮  |   ৩১ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

২৩ জুলাই থেকে ১৪ দিন গার্মেন্টসহ সব শিল্প প্রতিষ্ঠান বন্ধ

  কামরুজ্জামান সেলিম, চুয়াডাঙ্গা

১৭ জুলাই ২০২১, ১২:১২
জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন
কুচকাওয়াজ পরিদর্শনকালে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। ছবি : দৈনিক অধিকার

ইদুল আযহার পর আগামী ২৩ জুলাই থেকে ১৪ দিনের জন্য দেশের সকল গার্মেন্টসহ শিল্প প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন।

শনিবার (১৭ জুলাই) দুপুর ১২টার দিকে চুয়াডাঙ্গা ৬ বিজিবির ৯৬তম রিক্রুট ব্যাচের প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ২৩ জুলাই থেকে ১৪ দিনের লকডাউন হবে কঠোর। এই সময়ের মাঝে দেশের সব গার্মেন্টসহ শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ থাকবে।

প্রতিমন্ত্রী জানান, ইদের পর ২৩ জুলাই থেকে ১৪ দিনের কঠোর লকডাউনের সময় সরকারি, বেসরকারি অফিসসহ গার্মেন্টস ও শিল্প কারখানা বন্ধ থাকবে।

তিনি বলেন, কৃষি অর্থনীতি বাংলাদেশে এগিয়ে যাচ্ছে। মেহেরপুর, চুয়াডাঙ্গা ও কুষ্টিয়া কৃষিভিত্তিক অর্থনৈতিক এলাকা। এ অঞ্চলটা এতদিন অবহেলিত ছিল। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ এলাকাসহ প্রত্যেকটা অঞ্চলকে গুরুত্বপূর্ণ অঞ্চল হিসেবে গড়ে তুলছে। মুজিবনগর, মেহেরপুর ও ঝিনাইদহ রাস্তাটি খুবই সুন্দর করা হয়েছে। আগামীতে আঞ্চলিক যোগাযোগের জন্য মেহেরপুর, চুয়াডাঙ্গা, কুষ্টিয়া ও ঝিনাইদহের মাঝামাঝি জায়গাতে অভ্যন্তরীণ বিমানবন্দর করা হবে।

কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য সোলায়মান হক জোয়ার্দার, বিজিবির যশোর রিজিয়নের রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মশিউর রহমান, ৬ বিজিবির পরিচালক মোহাম্মদ খালেকুজ্জামান প্রমুখ।

আরও পড়ুন : ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে মারণাস্ত্রের ব্যবহার বন্ধ হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

সম্প্রতি ৯৬তম রিক্রুট ব্যাচের ২৭৮ সৈনিক চুয়াডাঙ্গা-৬ বিজিবি কার্যালয়ে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। দীর্ঘ ছয় মাস প্রশিক্ষণ শেষে আজ সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত হয়।

ওডি/আইএইচএন

jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড