• শুক্রবার, ০৩ জুলাই ২০২০, ১৯ আষাঢ় ১৪২৭  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ঢাকার বাতাসের মানের উন্নতি : একিউআই

  নিজস্ব প্রতিবেদক

২৬ জুন ২০২০, ১৮:৩৮
নগরভবন
নগরভবন থেকে ছবিটি তোলা (ছবি : দৈনিক অধিকার)

করোনাভাইরাসের ফলে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে পুরো দেশ যখন অস্বস্তিতে, তখন দূষিত বাতাসের সঙ্গে লড়াই করা ঢাকাবাসীর জন্য স্বস্তির খবর হলো— এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্সে (একিউআই) আজ শুক্রবার সকালে বাংলাদেশের রাজধানীর বাতাসের মানের তাৎপর্যপূর্ণ উন্নতি হয়েছে।

সকাল ৯টা ৭ মিনিটে ৩৫ একিউআই স্কোর নিয়ে বিশ্বের দূষিত বাতাসের শহরের তালিকায় ৬৪তম খারাপ অবস্থানে ছিল এই শহর।

একিউআই স্কোর ০ থেকে ৫০ হলে বাতাসের মান ‘সন্তোষজনক’ বলে ধরে নেয়া হয়। এই অবস্থা বাতাসে দূষণের পরিমাণ কম থাকে এবং এটাতে ভয় থাকে না।

বিশ্বের দূষিত বাতাসের শহরের তালিকায় ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তা, ভারতের দিল্লি ও ইরানের তেহরান যথাক্রমে ১৬৮, ১৫৭ ও ১৫১ একিউআই স্কোর নিয়ে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় খারাপ অবস্থানে রয়েছে।

প্রতিদিনের বাতাসের মান নিয়ে তৈরি করা একিউআই সূচক একটি নির্দিষ্ট শহরের বাতাস কতটুকু নির্মল বা দূষিত সে সম্পর্কে মানুষকে তথ্য দেয় এবং তাদের জন্য কোন ধরনের স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি হতে পারে, তা জানায়।

একিউআই সূচকে ৫০ এর নিচে স্কোর থাকার অর্থ হলো বাতাসের মান ভালো। একিউআই স্কোর ১০১ থেকে ১৫০ হলে সাধারণ নগরবাসী বিশেষ করে শিশু, বয়স্ক ও অসুস্থ রোগীরা স্বাস্থ্যঝুঁকিতে পড়তে পারেন। একিউআই স্কোর ১৫১ থেকে ২০০ হলে নগরবাসীর প্রত্যেকের স্বাস্থ্যের ওপর প্রভাব পড়তে পারে, বিশেষ করে শিশু, বৃদ্ধ ও রোগীরা স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়তে পারেন।

একিউআই স্কোর ২০১ থেকে ৩০০ হলে স্বাস্থ্য সতর্কতাসহ তা জরুরি অবস্থা হিসেবে বিবেচিত হয়। এ অবস্থায় শিশু, প্রবীণ এবং অসুস্থ রোগীদের বাড়ির ভেতরে এবং অন্যদের বাড়ির বাইরের কার্যক্রম সীমাবদ্ধ রাখার পরামর্শ দেয়া হয়ে থাকে। একিউআই স্কোর ৩০১ থেকে ৫০০ বা তারও বেশি হলে বাতাসের মান ঝুঁকিপূর্ণ মনে করা হয়। এসময় স্বাস্থ্য সতর্কতাসহ প্রত্যেক নগরবাসীর জন্য জরুরি অবস্থা হিসেবে বিবেচিত হয়।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড