• শনিবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২০, ৫ মাঘ ১৪২৭  |   ১৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

আলোর পথে যাত্রা শুরু করেছে বাংলাদেশ : প্রধানমন্ত্রী

  অধিকার ডেস্ক

১৫ জানুয়ারি ২০২০, ২২:২৬
জাতীয়
জাতীয় সংসদের প্রশ্নোত্তর পর্বে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা (ছবি : পিআইডি)

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ১৯৭৫ সালের পর বাংলাদেশ ঘোর অন্ধকারে নিমজ্জিত ছিল। সেই অন্ধকার ভেদ করে এখন আলোর পথে যাত্রা শুরু করেছে বাংলাদেশ। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে স্বপ্ন ও আদর্শ নিয়ে এ দেশকে স্বাধীন করেছিলেন, তা বাস্তবায়নে আমরা বহুদূর পর্যন্ত এগিয়ে গিয়েছি।

বুধবার (১৫ জানুয়ারি) জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রীর জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারীর এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।

বিএনপিকে উদ্দেশ করে শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ‘মুজিববর্ষকে’ (বিএনপি) মানল বা মানল না— সেজন্য জাতি বসে থাকেনি। কাউকে যদি তারা সম্মান না দেখাতে পারে, সেটা আইন দিয়ে তো আর তাদের মনের ইচ্ছা পূরণ করা যাবে না। তবে বাঙালি জাতিকে কেউ দাবায়ে রাখতে পারেনি, আর পারবেও না।

২৯৮টি কর্মসূচির মাধ্যমে বাংলাদেশসহ গোটা বিশ্ব বছরব্যাপী ‘মুজিববর্ষ’ পালন করবে। বাঙালি জাতি হিসেবে এটা আমাদের জন্য বিরল সম্মানের বলেন প্রধানমন্ত্রী।

বিএনপি-জামায়াত জোটের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, যারা বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত— সেসব খুনিদের বিচার না করে পুরস্কৃত করেছে। যারা স্বাধীনতাবিরোধী, যুদ্ধাপরাধী, যাদের বিচার শুরু হয়েছিল, তাদের বিচারের পথ বন্ধ করে রাষ্ট্রীয় মর্যাদা দিয়ে মন্ত্রী—প্রধানমন্ত্রী বানিয়েছিল। তাদের (বিএনপি) থেকে ভালো কিছু আশা করা যায় না। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর তার অবদান, নাম ও ভাষণ নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। এর মধ্য দিয়ে ইতিহাসকে বিকৃত করা হয়েছিল। আজ সেই সঠিক ইতিহাস গোটা বিশ্বে উদ্ভাসিত হয়েছে। সারা বিশ্বে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদান স্বীকৃতি পেয়েছে।

আরও পড়ুন : বাংলাদেশ-ইউনেস্কো যৌথভাবে মুজিববর্ষ উদযাপন করবে : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষে ২০২০ সালের ১৭ মার্চ থেকে ২০২১ সালের ২৬ মার্চ পর্যন্ত সময়কে ‘মুজিববর্ষ’ ঘোষণা করা হয়েছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী যথাযথ মর্যাদায় উদযাপনের লক্ষ্যে জাতীয়, আন্তর্জাতিক এবং স্থানীয় পর্যায়ে কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। এই কর্মসূচির ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশের সঙ্গে যৌথভাবে বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী উদযাপন করবে ইউনেস্কো।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী ‘মুজিববর্ষ’ উপলক্ষে দেশে-বিদেশে গৃহীত পদক্ষেপের বিষয়টি তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, দ্বি-বার্ষিক অ্যানিভার্সারি প্রোগ্রামের আওতায় জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান এবং সাংস্কৃতিক সংস্থা (ইউনেস্কো) কোনো বিশেষ ঘটনা বা বিশিষ্ট ব্যক্তির জন্মের ৫০তম বা ১০০তম বা ১৫০তম বার্ষিকী উদযাপন করে। এই প্রোগ্রামের আওতায় ইউনেস্কো ২০২০ সাল থেকে ২০২১ সালের জন্য ৫৯টি অ্যানিভার্সারি উদযাপনের প্রস্তাব গ্রহণ করেছে। এর মধ্যে অন্যতম একটি হলো জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী উদযাপন।

ওডি/টিএএফ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: +৮৮০১৯০৭-৪৮৪৮00, +৮৮০১৯০৭৪৮৪৭০২  

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড