• বৃহস্পতিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

শিগগিরই ফিরছে না রিজার্ভ চুরির টাকা 

  নিজস্ব প্রতিবেদক

০৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৯:১২
বাংলাদেশ ব্যাংক (প্রতীকী ছবি)
বাংলাদেশ ব্যাংক (প্রতীকী ছবি)

ফিলিপাইনের রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং করপোরেশনকে (আরসিবিসি) জরিমানা করা ২০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার চেয়েছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ ও ফিলিপাইনের পররাষ্ট্র সচিব পর্যায়ের সভায় (এফওসি) বাংলাদেশ ব্যাংকের গচ্ছিত অর্থ চুরির ঘটনায় এ অর্থ চাওয়া হয়েছে। এছাড়া রিজার্ভ চুরির সঙ্গে জড়িতদের বিষয়ে ফিলিপাইনের কাছে তথ্য চেয়েছে বাংলাদেশ।

মঙ্গলবার (৩ ডিসেম্বর) ঢাকায় বাংলাদেশ ও ফিলিপাইনের মধ্যে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় পর্যায়ে আলোচনা (ফরেন অফিস কনসালটেশন, সংক্ষেপে এফওসি) শেষে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (এশিয়া ও প্যাসিফিক) মাসুদ বিন মোমেন সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

তবে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির টাকা ফিলিপাইন থেকে খুব শিগগির ফেরত পাওয়ার কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। এমনকি রিজার্ভ চুরির সঙ্গে জড়িত ফিলিপাইনের রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং করপোরেশনের (আরসিবিসি) কাছ থেকে জরিমানা হিসেবে আদায় করা দুই কোটি ডলারও বাংলাদেশকে দিতে চাচ্ছে না ম্যানিলা। 

মাসুদ বিন মোমেন বলেন, সোমবার বাংলাদেশ ও ফিলিপাইনের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিনিধিরা আলাদাভাবে বৈঠক করেছেন। অত্যন্ত সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে আলোচনা হয়েছে। কিভাবে আরও সহযোগিতা করা যায় সে ব্যাপারে তারা ঐকমত্য পোষণ করেছেন।

তিনি বলেন, আলাপ-আলোচনা চলছে। আইনি জটিলতা তো আছেই। সুতরাং এটা যে আমরা কালকেই পেয়ে যাব বা পরশুই পেয়ে যাব বা এত পরিমাণ পেয়ে যাব এটা আসলে বলা যাচ্ছে না। তবে আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি; এই ইস্যুটির একটি ‘অ্যামিকেবল’ (সৌহার্দ্যপূর্ণ) সমাধান হয় এবং অন্যান্য দেশের জন্যও যদি উদাহরণ সৃষ্টি করা যায়। তারাও (ফিলিপাইন) স্বীকার করেছে, সৌহার্দ্যপূর্ণ সমাধানই বাঞ্ছনীয়।

রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন মেঘনায় অনুষ্ঠিত এফওসিতে বাংলাদেশের পক্ষে নেতৃত্ব দেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (এশিয়া ও প্যাসিফিক) মাসুদ বিন মোমেন। ফিলিপাইনের পক্ষে ওই দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি (এশিয়া প্যাসিফিক) মেইনার্দো মন্টেলেগরি নেতৃত্ব দেন। মাসুদ বিন মোমেন জানান, দীর্ঘ চার বছর পর অনুষ্ঠিত এফওসিতে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের সব দিক নিয়ে আলোচনা হয়েছে। আগামী দিনে প্রতি ১৮ মাসে একবার এফওসি অনুষ্ঠানের ব্যাপারে কথা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, সোমবার ফিলিপাইনের চেবু চেম্বার অব কমার্সের সঙ্গে চিটাগাং চেম্বার অব কমার্সের একটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) সই হয়েছে। নার্সিং, কৃষি, মেরিটাইম ও তথ্য খাতে এমওইউর খসড়া বিনিময় হয়েছে।

রিজার্ভ চুরির টাকা ফেরত পাওয়ার বিষয়ে মাসুদ বিন মোমেন বলেন, বিচারিক প্রক্রিয়া সব সময় একটু লম্বা হয়। বাংলাদেশ, ফিলিপাইন ও যুক্তরাষ্ট্রে রিজার্ভ চুরি নিয়ে মামলা চলছে।

তিনি বলেন, আমরা ওদের (ফিলিপাইনের প্রতিনিধিদল) কাছে কয়েকটি বিষয়ে তথ্য চেয়েছি। যেমন—অপরাধের হোতাদের কয়েকজনের পরিচয়। এই তথ্যটি তারা এখনো আমাদের সঙ্গে শেয়ার করেনি। সেটা আমরা ওদের কাছে চেয়েছি। এ ছাড়া কিছু আর্থিক তথ্যের বিষয় আছে। সেটাও তারা শেয়ার করবে বলে আমাদের আশ্বাস দিয়েছে।

মাসুদ বিন মোমেন বলেন, তারা (ফিলিপাইন) ইতোমধ্যে আরসিবিসিকে ২০ মিলিয়ন (দুই কোটি) ডলার জরিমানা করেছে। সেটা আমরা চেয়েছি। এ ব্যাপারেও আলাপ-আলোচনা চলছে।

তিনি বলেন, ওদের (ফিলিপাইনের) যুক্তি অন্য রকম আছে। কিছু টাকার এখন পর্যন্ত হদিস করা যায়নি, আমার ধারণা। সুতরাং আমরা ধাপে ধাপে আগাচ্ছি।

প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউইয়র্কে (নিউইয়র্ক ফেড) রক্ষিত বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের হিসাব থেকে ১০ কোটি ১০ লাখ মার্কিন ডলার চুরি হয়। এর মধ্যে শ্রীলঙ্কায় যাওয়া ১ কোটি ৪৫ লাখ ডলার ও ফিলিপাইনে যাওয়া ১ কোটি ৪৫ লাখ ডলার ফেরত আনা সম্ভব হয় কয়েক মাসের মধ্যেই। বাকি ৬ কোটি ৬৪ লাখ ডলার এখনো ফেরত আনা সম্ভব হয়নি। 

ফিলিপাইনের ব্যাংক আরসিবিসি গত বছর জানিয়েছিল, বাংলাদেশকে কোনো অর্থ ফেরত দেওয়ার পরিকল্পনা তাদের নেই। রিজার্ভ চুরির ঘটনায় দায়িত্ব অস্বীকার করে তারা বলেছে, ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের অবহেলা ও অসাবধানতার’ দায় বাংলাদেশকেই নিতে হবে। চুরি হওয়া অর্থ ফিলিপাইন থেকে অন্য দেশে পাচার হয়ে গেছে।

ওডি/কেএসআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন সজীব 

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড