• শুক্রবার, ০৭ আগস্ট ২০২০, ২৩ শ্রাবণ ১৪২৭  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

শাহজালালে ফের বিশেষ কায়দায় লুকানো ১৮শ পিস ইয়াবা উদ্ধার

  অধিকার ডেস্ক

১৮ অক্টোবর ২০১৯, ১৩:৩২
শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর
শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর (ছবি : সংগৃহীত)

রাজধানীর হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এক হাজার ৮শ পিস ইয়াবাসহ এক যাত্রীকে আটক করেছে বিমানবন্দর আর্মড পুলিশ। আটক ব্যক্তির নাম সুজন মিয়া (২৮)। সে জামালপুর জেলার বক্সীগঞ্জ থানার কুশলনগর গ্রামের মো. আব্দুল মজিদের ছেলে।

বৃহস্পতিবার (১৮ অক্টোবর) রাত ৯টার দিকে তাকে আটক করে। এ ঘটনায় বিমানবন্দর থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করা হয়েছে।

বিমানবন্দর আর্মড পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপস অ্যান্ড মিডিয়া) আলমগীর হোসেন এই তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, উদ্ধার ইয়াবার বাজার মূল্য প্রায় ৯ লাখ টাকা। জিজ্ঞাসাবাদে সুজন মিয়া জানিয়েছে- বরিশালের জনৈক হাসানের অর্থায়নে সে এই ইয়াবা বহন করেছে। সে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স যোগে কক্সবাজার থেকে এই ইয়াবা ঢাকায় নিয়ে আসে।

বিমানবন্দর সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় মো. সুজন মিয়া বিমানবন্দরের অভ্যন্তরীণ টার্মিনালের বর্হিগামী রাস্তার ডানে গাড়িপার্কিং এলাকায় সন্দেহজনকভাবে ঘোরাফেরা করছিল। এ সময় তাকে চ্যালেঞ্জ করেন ওই এলাকায় নিরাপত্তা ডিউটিতে থাকা আর্মড পুলিশের দায়িত্বরত সদস্যরা। পুলিশের উপস্থিতি দেখে কৌশলে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে সে। পরবর্তীতে তাকে বিমানবন্দর আর্মড পুলিশের হেফাজতে নিয়ে তল্লাশি ও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে সে পেটের ভেতর ইয়াবা থাকার কথা স্বীকার করে। বিশেষ কায়দায় আট ঘণ্টা পর তা বের করে আনা হয়।

এর আগে বুধবার (১৬ অক্টোবর) বহির্গমন বোর্ডিং কাউন্টারের সামনে থেকে মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম (৩০) নামে এক যাত্রীকে আটক করে সিটিএসবি বিমানবন্দর জোন। পরে তার দেহ ও সঙ্গে থাকা ব্যাগ তল্লাশি করা হয়। এ সময় ব্যাগের মধ্যে জুতার ভেতর সাদা স্কচটেপ দিয়ে মোড়ানো অবস্থায় দুটি প্যাকেট থেকে ১২৮ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

ওডি/এসএস

jachai
nite
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
jachai

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড