• রোববার, ২৪ জানুয়ারি ২০২১, ১০ মাঘ ১৪২৭  |   ২৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

আরও তিন ইউটার্নে ‘ভোগান্তি’ বেড়েছে

  মামুন সোহাগ

০৯ জানুয়ারি ২০২১, ১৫:২১
অধিকার
ছবি :দৈনিক অধিকার

রাজধানী জুড়ে দিনকেদিন নানামুখী সমস্যা বেড়েই চলেছে। আর সবচেয়ে প্রকট ও জটিল সমস্যা হলো যানজট। তিলোত্তমা নগরী, মেগাসিটি কিংবা মসজিদের শহর এসবই রাজধানী ঢাকার সঙ্গে মিশে যাওয়া উপমা নয়। এ ছিল এক সময়ের বাস্তবতা। তবে সেই বাস্তবতায় ছেদ ফেলেছে যানজটের মতো প্রকট সমস্যা।

যানজট নিরসনে সাতরাস্তা থেকে আবদুল্লাহপুর পর্যন্ত ১০ টি ইউটার্ন নির্মাণ করছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। সবশেষ গেলো বছরের ২০ ডিসেম্বর (রবিবার) রাজধানীর যানজট নিরসনে তেজগাঁও বিজি প্রেসের সামনে, নাবিস্কো বা কোহিনুর কেমিক্যাল মোড় এবং বনানী চেয়ারম্যান বাড়ি এলাকায় তিনটি ইউটার্ন চালু করেছে ডিএনসিসি।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, বনানী থেকে আমতলী আসতে দীর্ঘ যানজটে যে গাড়িগুলো ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতো সেগুলো এখন খুব সহজেই ইউটার্ন হয়ে পার হতে পারছে। তবে সাতরাস্তা থেকে আবদুল্লাহপুর পর্যন্ত সড়কে ইউটার্ন চালু হলেও কমেনি যানজট। প্রাইভেট কার, সিনএনজি চালক এবং বাইকের মতো ছোট গাড়িগুলো খুব সহজেই পার হতে পারলেও বাসের মতো বড় গাড়িগুলো পড়ছে আগের থেকে বেশি ভোগান্তিতে।

এদিকে, বিজি প্রেস ও নাবিস্কোর ইউটার্নের বিপরীত দিকের সংযোগ সড়ক বন্ধ করায় সেগুলো চলে গেছে ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান, রিকশা, দোকানের দখলে। তবে উত্তরা র‌্যাব-১ কার্যালয়ের সামনে এবং জসিম উদ্দিন মোড়ের ইউটার্নের সুফল নিতে পারছেন খোদ চালক-যাত্রীরা। আগে তুলনায় সেখানে একেবারে জ্যাম সৃষ্টি হচ্ছে না।

বনানী সিগনালে আটকে থাকা বাসের ড্রাইভার বাবুল মিয়া জানান, ইউটার্নে লাভ-ক্ষতি দুইটাই তাদের নিতে হচ্ছে। ছোট ছোট গাড়িগুলো ইউটার্নে ঢুকে গেলে যে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে তাতে থেমে থাকা বাসে খুব সহজেই যাত্রী নামাতে কিংবা তুলতে পারছে। প্রাইভেট কারের মতো ছোট গাড়ি গুলে ঢুকতে পারলেও বাসের সুযোগ নেই ঢোকার জানিয়ে বলেন, তাদের ক্ষতির দিকটাই সর্বোচ্চে।

বাইক চালানো মনির হোসেন বলেন, এত উদ্যোগ নিচ্ছে সড়কে। তবে রাস্তাটা কিন্তু বাড়ছে না। নানা কারণে একটু একটু করে কমছে। ইউটার্নে সুফল মিললেও রাস্তা সংকুচিত হয়ে সামনের দিনে আরো সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে। এখনো কিছুটা পাচ্ছি বামে মোড় নিতে গেলে।

সিএনজি চালক শাকিল জানান, ইউটার্ন হয়ে ভালাই হয়েছে। এখন রানিং গাড়ি রানিং এ যায়। আগে ইউটার্নের মতো মোড় নিতে গেলে আরেকটা গাড়ি আটকাই রাখতো। এখন তো আটকে রাখা লাগছে না একটা গাড়িও। ইউটার্ন হওয়ায় দুই সাইডের গাড়ি চলা অবস্থায় চলাচল করা যাচ্ছে।

তবে ডিএনসিসির ইউটার্ন প্রকল্পের পরিচালক ও তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী খন্দকার মাহবুব আলম সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, সাত রাস্তা থেকে আবদুল্লাহপুর পর্যন্ত সড়কের সবক’টি ইউটার্ন চালু হলে নগরবাসী এর কার্যকর সুফল পাবেন। আংশিক চালু হওয়ায় কিছুটা সমস্যা দেখা দিতে পারে। এটুকু বলতে পারি, এসব ইউটার্নের সুফল রাজধানীবাসী ভোগ করবেন।

ডিএনসিসি মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম ইউটার্ন উদ্বোধনকালে গণমাধ্যমকে বলেন, ‘এই ইউটার্নগুলো চালু করার ফলে এই সড়কে যানজট আরও কমে যাবে। বাঁচবে যাতায়াতের সময়ও।’ তিনি আরও বলেন, ‘এই শহরকে সুন্দর করতেই হবে। ইউটার্নগুলো চালু হলে নগরীর ভোগান্তি কিছুটা হলেও কমে যাবে।’

ঢাকা উত্তরের প্রয়াত সাবেক মেয়র আনিসুল হক রাজধানীর যানজট নিরসনে ইউটার্নগুলো নির্মাণের উদ্যোগ নেন। উত্তরা হাউজ বিল্ডিং থেকে তেজগাঁও সাতরাস্তা পর্যন্ত ১০টি ইউটার্ন নির্মাণ করছে ডিএনসিসি। প্রকল্পের শুরুতে মোট ১১টি ইউটার্ন নির্মাণ করার পরিকল্পনা থাকলেও আর্মি গলফ ক্লাব সংলগ্ন ইউটার্নটি বাতিল করা হয়। মূল প্রকল্পটির অনুমোদিত ব্যয় ২৪ কোটি ৮৩ লক্ষ টাকা থাকলেও প্রথম সংশোধনের পর এ প্রকল্পের ব্যয় ৩১ কোটি ৮০ লক্ষ ৯৭ হাজার টাকায় দাঁড়িয়েছে।

jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড