• বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৫ আশ্বিন ১৪২৭  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ধারাবাহিক উপন্যাস : দ্যা গেম (৯ম পর্ব)

  রোকেয়া আশা

১৫ অক্টোবর ২০১৯, ১২:৫৯
গল্প
ছবি : প্রতীকী

ছেলেটির নাম ছিলো খুব সম্ভবত জোশেফ। ধর্মভীরু খ্রিস্টান পরিবারের ছেলে। এমন একটি পরিবারের ছেলে আত্মহত্যা করবে, তা ভাবেনি কেউই। তাও সাধারণ ভাবে আত্মহত্যা নয়; এভাবে নিজের পুরুষাঙ্গ কেটে আত্মহত্যা কেউ করতে পারে, তা জোশেফের নিউজটা না দেখলে মস্কোবাসীরা ভাবতেও পারতো না। আর ফিউদর তো নিজেই ঘটনা লাইভ দেখেছে। কিন্তু ছেলেটি কেন এভাবে, এত নৃশংসভাবে আত্মহত্যা করলো; আর হামাজিয়ান রামের সাথে এই মৃত্যুর সম্পর্কই বা কি - তা ফিউদর বের করতে পারে না কিছুতেই। ভাবতে ভাবতেই লিলিয়ার সামনে পৌঁছে যায় ভ্যানটা। ছেলেমেয়েদের হোটেলের প্রবেশমুখে নামিয়ে দিয়ে পার্কিং লটে গাড়ি রাখতে চলে যায় ফিউদর। খুব বিষণ্ণ মুখে দীপ্তরা সবাই হোটেলের রিসিপশনের দিকে হেঁটে যায়।

বের হওয়ার সময় চাবি রিসিপশনে রেখে যাওয়ার নিয়ম। দীপ্ত, শাহেদ মাহিরা আর আয়েশা গিয়ে যার যার রুমের চাবি নিয়ে আসে। আয়েশাকে দেখে দ্বিধান্বিত লাগে। ইয়ুন দুয়োর সাথে ওর রুম শেয়ার করার কথা ছিলো। এখন সে রুমে একাই যাচ্ছে। ইয়ুন দুয়ো কি ফিরে আসতে পারবে?

মাশা এগিয়ে গিয়ে আয়েশার কাঁধ জড়িয়ে ধরে বলল, ‘ডোন্ট ওরি।’ সুমন একটু চিন্তিত মুখে বলে, ‘তুই একাই থাকবি? মানে সমস্যা হবে না।’ আয়েশা জোর করে এক চিলতে হাসি মুখে টেনে বলল, ‘না। সমস্যা কিসের! হলের রুমে তো প্রায়ই একাই থাকি।’

এরপর আর কথা হয় না ওদের কারো মধ্যে। আসার পর থেকে এই অল্প সময়ে এতকিছু নিতে পারছে না কেউই। স্নায়ুতে চাপ লাগছে। কির মৃদু গলায় ওদের বললো, ‘আমি ডিনারের সময় তোমাদের নিতে আসবো। ফিউদরের একটু কাজ পড়ে গেছে। টেক্সটে জানিয়েছে মাত্র।’ মাশা প্রশ্ন করে ওকে, ‘তুমি কি এখন কোথাও যাচ্ছো?’ - হ্যাঁ। বাড়িতে যেতে হবে। কাজ আছে। তাছাড়া ফিউদর চলে গেছে। ভ্যানও তো লাগবে আরেকটা। সবার সাথে হ্যান্ডশেক করে কির বিদায় নিলো। বাকিরাও আর দাঁড়ালো না। যার যার রুমে চলে গেলো।

ফিউদর বাড়িতে। নিজের ঘরে। তার পিসির সামনে। ওই ফন্টের আরেকটা টেক্সট পেয়েছে। ডার্ক ওয়েবেই অন্য একটা রুমে ফিউদরের সাথে জরুরি কথা আছে। ফিউদর জানে সে নিরুপায়। হামাজিয়ান রামের কথা তাকে শুনতেই হবে। হেডফোনটা কানে লাগিয়ে ইনভাইটেশন লিংকে ক্লিক করে ফিউদর। - কেমন আছো স্মিরনোভ? ভারী কন্ঠটা শুনে ফিউদর চমকে ওঠে। হামাজিয়ান রামের কন্ঠ না এটা। - তুমি তো হামাজিয়ান রাম নও। - না। আমি আইজ্যাক৷ হামাজিয়ান রামের বন্ধু বলতে পারো। অনুগত ভৃত্যও বলতে পারো। - আমাকে কেন ডেকেছো? - ইয়ুন দুয়োকে মেরেছে কে? ফিউদর এই ঠান্ডা আবহাওয়ার মধ্যেও দরদর করে ঘামতে থাকে। - আমি জানি না। - জানো না? তোমাকে টিম কোরিয়াকে শুধু স্যাবোটেজ করতে বলা হয়েছিলো। খুনোখুনি করতে না৷ হামাজিয়ান রেগে আছে তোমার ওপর। ফিউদর আবারও সেই তীব্র আতঙ্কটা টের পায়। আগেরবার রেডরুমে যেই আতঙ্কের মুখোমুখি সে হয়েছিলো। - আমি সত্যিই কিছু জানি না। আমি কিছু করিনি। ফিউদর বুঝতে পারে না কিভাবে বিশ্বাস করাবে। কারণ সত্যিটা হচ্ছে আসলেই সে এই ব্যাপারে কিছু জানে না। একটাই কাজ সে করতে পারে, প্রার্থনা করতে পারে যেন মেয়েটি বেঁচে যায়। তাহলে জানা যাবে ওর ওপর আক্রমণটা কে করেছিলো। ফিউদর সে কথা জানায় আইজ্যাককে। - মেয়েটার জ্ঞান ফিরলেই জানা যাবে কাজটা কে করেছে। ওপাশ থেকে উত্তর আসে, - ওর জ্ঞান ফেরা নিয়ে তোমাকে ভাবতে হবে না। তুমি আপাতত তায়ে হির দিকে নজর রাখো। এই ছেলে একাই কোরিয়াকে জিতিয়ে দিতে পারে। ফিউদর ওকে জানায়। - আর কিছু করতে হবে? - হ্যাঁ। তুমি বাংলাদেশের গাইড না? - হ্যাঁ। - তারিকুল আর দীপ্তের দিকে একটু নজর রেখো। খুব স্মার্ট এই দুইজন। তোমার নিজের বাঁচার জন্যই এই দুইজনের দিকে তোমার মনোযোগ থাকা জরুরী। ফিউদর আবারও ওকে বলতে যাচ্ছিলো। তবে তার আগেই লাইন বিচ্ছিন্ন হয়ে গেলো। একটা ব্যাপার পরিষ্কার ফিউদরের কাছে। এই কনটেস্টটা নিয়ে ভয়ংকর কোন খেলা চলছে। এবং তাতে সম্ভবত একাধিক পার্টি জড়িত। অবশ্য, যদি আইজ্যাক মিথ্যে না বলে থাকে। এমনো হতেই পারে, হামাজিয়ান রাম আর আইজ্যাকই ফিউদর বাদেও কাউকে এপয়েন্ট করে রেখেছে আর ইয়ুন দুয়োকে সেই আক্রমণ করেছে। কিন্তু যদি তা না হয়, তাহলে ধরে নিতে হবে আরও কেউ এখানে জড়িত । ফিউদরের অস্বস্তি ক্রমাগত বাড়তে থাকে। সে ক্রিমিনাল, কিন্তু সেটা শুধু সাইবার জগতে। বাস্তবের এসব খুনোখুনিতে জড়ানোর কোন ইচ্ছে তার কখনোই ছিলো না। সে অবাক হচ্ছে এটা ভেবে, এবারের কনটেস্টেই এতকিছু কেন? প্রতিযোগীদের কেউই জড়িত নাকি?

(চলবে...)

‘দ্যা গেম’-এর ৮ম পর্ব- ধারাবাহিক গল্প : দ্যা গেম

jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: +8801721978664

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড