• বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ২ কার্তিক ১৪২৬  |   ৩৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

কবিতা : কুড়ির পরে

  আয়শা আহমেদ

২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৩:৪৮
কবিতা
ছবি : প্রতীকী

পনেরোতে যে ছেলেটা আমাকে গোলাপ দিয়েছিল,
আমি তাকে ভুলে যাইনি।
আমি ভুলে যাইনি- সতেরো, একুশ
কিংবা ছাব্বিশের সেইসব ঝলমলে দিনগুলিও;
যে দিনগুলো আমাকে দিয়েছিল অনন্ত উচ্চতা,
উচ্ছ্বল ডানার বেপরোয়া উড়াল।

আমার প্রথম উত্থান,
নাজুক পায়ের টলমল কদমের শিশুতোষ পতন,
ভাঙন; আমি ভুলিনি কিছুই।
আমার সবক'টা উল্লাস আমার মুখস্থ,
আমার সবক'টা ক্ষত'র ঘা আমার নখদর্পনে।

বাছাইকৃত হাসিগুলোকে
আমি টাঙিয়ে রেখেছি হৃদয়ের দেয়ালে দেয়ালে।
এমনকি আমার অন্ধকার, আমার কমতি,
আমার কাজল ধোয়া রাতগুলোও
স্পষ্ট মনে আছে আমার।
আমার প্রতিফোঁটা কান্না,
কান্না দমকে শরীরের কাঁপন, বিন্দু বিন্দু ঘাম,
আর অগণিত দীর্ঘশ্বাসের পাই পাই হিসেব;
আমি টুকে রেখেছি জীবনের নোটবুকে।

আমার যাপিত জীবনের সবক'টা নিঃশ্বাস
আমি মনে রেখেছি যত্ন করে,
শুধু, আপনাকেই আমি ভুলে গেছি শুভ্রনীল!
সাঁইত্রিশে পাওয়া একটা বিশ্বাসী কাঁধ,
আমাকে ভুলিয়ে দিয়েছে সমস্ত অপ্রেম।

আপনাকে আমি ভুলে গেছি শুভ্রনীল,
আমার সংখ্যাক্রমে এখন কোন কুড়ি নেই।
যেই কুড়ি বলতে
আমি কেবল আপনাকেই বুঝেছি,
যেই কুড়ির নামে, আপনি এখন নিয়ম করে গালাগালের তুবড়ি ছোটান;
সেই কুড়িটা এখন আমার বিস্মৃত, প্রত্যাখ্যাত।

সাঁইত্রিশে পাওয়া একটা বিশ্বাসী কাঁধ,
আমাকে ভুলিয়ে দিয়েছে সমস্ত অপ্রেম।
একটা কুড়িবিহীন সংখ্যাক্রমের সরল জীবন
এখন আমার দারুণ কাটে,
আপনাকে আমি ভুলে গেছি শুভ্রনীল।
শপথ ভালোবাসার,
আমার ব্যক্তিগত সংখ্যাক্রমে এখন কোনো কুড়ি নেই!

ওডি/এনএম 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড