• শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯, ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২২ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

কবিতা : ডেনমার্কের চিঠি

  নাজমুল হক হৃদয়

০৯ নভেম্বর ২০১৯, ১৩:৩২
কবিতা
ছবি : প্রতীকী

জীবনে যতগুলি আলোচনা, যতগুলি অবসর নেবার পালা ঠিক আছে প্রতিটি অবসরের বিন্দুমাত্র জলজ জবা সারাবানকে নিয়ে লেখা। ঘুমের মধ্যে থেকে যে ব্যাকরণ নিঃসৃত হয় তা হলো সারাবান। 

প্রতিটি দুঃসময়ে নিরস্ত্র চোখে পড়ার টেবিলে অন্য মনস্থির করে ঠিক দেয়ালে থাকা, মেইল এলো ডেনমার্ক থেকে, নিউব্রক ইউনিভার্সিটিতে তোমার এডমিশন হয়েছে। যে ঘুমন্ত প্রেমিক তোমার মাঝে দিন দিন বড় হতে চলেছে সেও যাচ্ছে তোমার সঙ্গে বটে। 

দিনের অগ্রভাগে যে নক্ষত্র ডুবে যায়, তার সুভাস ছড়িয়ে যায় কিছু মিথ্যের দেয়ালে। জবার কোন নিজস্ব গন্ধ নেই, সে অন্যের সুভাস নিয়ে সুগন্ধি ছড়ায়। জবা কখনো নীল, কখনো লাল, কখনো কালো হয়ে রং বদলায়।

মানুষ যেমন শহরগামী হয়ে থাকে, ঠিক তেমনি জলজ জবা  এখন ডেনমার্ক গামী হবে। ডেনমার্কের প্রতিটি স্তনে, শহরের করিডোরে এখন থেকে জলজ জবা সারাবান নিবে জন্ম। নিউব্রক ইউনিভার্সিটির প্রতিটি দেয়ালে একেকটি জলজবা সারাবান, ফুটে উঠবে বীক্ষিত শরীরে, যে সুদর্শনে জলজ জবা সারাবান আরও সুদর্শনীয় হয়ে উঠবে। 

ডেনমার্কের প্রতিটি সিগনালে জবা জন্ম, উদ্ভাসিত হবে নতুন আলোয়। ঠিক, হুডতোলা রিক্সায় তুমি যখন তোমার লাল হিমুর বুকে মাথা রেখে ঘুমাও, ততটা শান্তির সুভাস ছড়িয়ে ডেনমার্কে এক জলজ জবার সূচনা হবে। 

নিউব্রকের ক্যাফেটেরিয়ায় সকাল যেমনি জবার সুভাস ছড়াবে, ঠিক এক কাপ কফিতে তোমাদের দু’জনের ঠোঁটের চুমুক পড়বে। ঠিক প্রকাশ্যে চুমু খেলে যতটুকু ঠোঁট কেপে উঠে, লাল হিমুর। 

ডেনমার্কের বুকে যখন সন্ধ্যে সাদা শার্ট গুলিতে এক পরিবর্তন দেখা যায়, সাদা সাদা টি শার্ট গুলিতে লাল লাল ঠোঁটের চুমু দাগ, বেলকুনির আলোতে মনে হয় সেখানে জবা ফুটে উঠেছে।। 

একটু একটু করে প্রফুল্ল হৈ চৈ তোমাদের দু’জনার একসাথে নির্জনে অনুভূতির আবেগ ভরপুর।। 

ঠিক দু’চারটে কতবেল, আর হাওয়ায় মিঠা যদি থাকতো তোমার আড্ডা বেশ জমতো। লাল ঠোটে তোমার প্রফুল্ল হাসি পৃথিবীর সকল জবাদের সুস্থ করে দেই।

কয়টা মাস অতিবাহিত হয় ডেনমার্কে তোমাদের, খুব ব্যস্ততা তোমাদের তারপরও যতটুকু সময় পার কর তুমি আর তোমার লাল হিমু 

অনুভূতির জাগা থেকে মনের আকাশে মেঘ জমে, নোয়াখালীতে বৃষ্টি হয়, 
আর তখন ব্রাহ্মনবাড়িয়ায় শীত পড়তে থাকে, 
ডেনমার্কে তখন সামার ভেকেশন চলছে 

প্রচুর রোদের তাপমাত্রা শরীরটা বেশ খারাপ হতে চলছে তোমার। যতটুকু প্রশান্তি’র খোঁজ পাও তুমি, তোমার ভিতরে জন্ম নেয়া ঘুমন্ত প্রেমিক তার বুকে মাথা রেখে কেটে গেলো একটি বছর, বসন্ত এলো জবারা মৃত হয়ে গেছে।

ডেনমার্কে নেই উৎসব, জবাদের নতুন করে আগমন হয়েছে। তুমি লাল শাড়ী আর হাতা কাটা কালো ব্লাউজ পড়ে এসেছে, মেকআপের সুগন্ধিতে জবারা ছুটে এসেছে। তোমার ভেতরে থাকা হিমু নীল পাঞ্জাবি পড়ে এসেছে। 

টানা টানা চোখ, সুকেশী তুমার, মুগ্ধতা দেখে,তোমাকে হিমু স্পর্শ করে, প্রকাশ্যে তোমাকে চুমু খেলে তোমার মধ্যে যতটুকু শিহরণ হয়। তার থেকে বেশী শিহরণ হয় ডেনমার্কের করিডোরে জন্ম নেয়া জলজ জবা।। 

তখনো শীত নামে ডেনমার্কে একটু একটু কেপে উঠো তুমি ঠাণ্ডায়। এখনো তোমার হিমুর বুকে মাথা রাখলে তোমার মধ্যে গরম অনুভূতি। সর, অবসর,পরিসরে জলজ জবা সারা'বান কে ফিরে পাওয়ার প্রতিশ্রুতিতে ডেনমার্ক জলজ জবাকে বন্দী করে। 

জবারা বন্দী হয়, নিরলস পরিশ্রমে শিশু দোল খায় ঠিক ছয় মাস বয়সী শিশুর মতন। সেই থেকে ডেনমার্কে জলজ জবা সারাবান জীবিত থাকে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড