• বুধবার, ২৯ জানুয়ারি ২০২০, ১৫ মাঘ ১৪২৬  |   ২১ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

পাণ্ডুলিপির কবিতা

ভুলে যেতে যেতে বেঁকে গেছে দুটি পথ

  নওশাদ জামিল

১৪ জানুয়ারি ২০২০, ১৪:০১
কবিতা
প্রচ্ছদ : কাব্যগ্রন্থ ‘প্রার্থনার মতো একা’

নুসরাত

আগুন-নদীতে ডুবিয়ে দিলাম তোকে
বোন, তোর দেহে ফুটেছে রক্তজবা
পুড়তে পুড়তে হয়েছিস খাঁটি হীরে 
অধমের শিরে, তুই তো মুকুটশোভা!

কিশোরী শরীর গলতে গলতে তোর
হয়েছে ভস্ম, হয়েছে নিকষ ছাই 
বোন, তোর দেহ মোমের পুতুল নয়
জ্বেলে দিলি এ কী অম্লান রোশনাই!

অঙ্গার বুকে তরঙ্গ ছিল তোর
জ্বলতে জ্বলতে তাই দিয়ে গেলি নাড়া
তুমুল দুলুনি আছড়ে পড়েছে আজ
আয় ভাইবোন, শান দিই শিরদাঁড়া!

মরার আগেও ছাইমাখা মুখে তোর 
ফুটেছে ফুলকি, দারুণ অনলপ্রভা
দাউদাউ পুড়ে জ্বেলেছিস দীপশিখা
আধমরা দেশে, তুই তো মুকুটশোভা!


আবরার

এ কেমন ঢেউ? ভালোবাসা ভেসে যায়
ঘৃণার সাগরে ডুবে যায় আবরার
ক্ষোভের তুফানে চুরমার সবকিছু
মানবদরদি কোথাও কি নেই আর?

ঘৃণার সাগরে উঠেছে মরণঢেউ
তুমুল আঘাতে মানবতা বরবাদ
মানুষ মরছে, পৃথিবী কাঁদছে আজ
এ ঢেউ রুখবে আছে কি প্রেমের বাঁধ?

দানব পেতেছে কাঁটার করুণ ফাঁদ
মানব তুমি কি গুটিয়ে থাকবে বসে?
পশুরা হাসছে, শিশুরা কাঁদছে আজ
বন্ধু, দাঁড়াও মানুষকে ভালোবেসে।

মানুষ বাঁচাও, বাঁচাও সবুজ গ্রহ
বন্ধু, প্রেমের পথে নিশিদিন রহো।


বিষাদ শহরে

খুব কাছাকাছি একই শহরে থাকি
বন্ধু, তোমার দেখা নেই কেন বলো 
ভুলে যেতে যেতে অন্তরে ওঠে ঝড় 
মেঘ এসে বলে বিজলি কি চমকালো?

দেখা নেই, কথা নেই-সারাদিন একা
আমরা দু’জন থাকি আমাদের মতো
ভুলে যেতে যেতে বেঁকে গেছে দু’টি পথ 
পথিক জানে কি পথের সমূহ ক্ষত?

খুব কাছাকাছি বিষাদ শহরে থাকি
বন্ধু, তোমার কিছু কি বলার বাকি?


নীল শাড়ি

যেখান থেকে যাত্রা শুরু করি
আবার আমি সেখানে আসি ফিরে
অনেক পথ পেরিয়ে এসে দেখি 
ফেরার পথে কুহক আছে ঘিরে।

পাহাড় নদী পেরিয়ে মেঠোপথ
এসেছি ফিরে হৃদয় আহ্লাদে
অন্ধ ফুলে পরাগ ঢেলে দিয়ে
আবেগ ছাড়া কে আর পড়ে ফাঁদে?

পথের বাঁকে বাতাস ছেঁড়া মেঘ 
উড়ল বুঝি আগুন হাতছানি 
ধোঁয়ার রেখা মাড়িয়ে বহুদূর
পেলাম দেখা পরম ঝলকানি।

হৃদয় টানে আবার আসি ফিরে
ফেরার পথে কুহক ছড়াছড়ি
কুয়াশাজাল ছিন্ন করে দেখি
পথের বাঁকে উড়ছে নীল শাড়ি।


তরী

চোখের কোণে নামল টলমলো 
বৃষ্টি নদী, ভিজল দুইধার
অন্ধকারে কাঁপছে সরোবর
স্তব্ধ হলো হৃদয় পারাবার।

বৃষ্টি মুছে আঙুর মেখে ঠোঁটে
নামল ঝড় তোমার সিঁথিজুড়ে
হঠাৎ করে তীব্র ফণা আজ
ভয়াল বেগে আছড়ে পড়ে দূরে।

বৃষ্টি দেখে জোরসে দিই টান 
আয় রে নদী ভিজুক চারপাশ
আঁধার রাতে কাঁপছে সরোবর
বুকের কাছে ভাসল রাজহাঁস।

অন্ধকারে তোমার ঠোঁটে ঝরে
প্রেমের মধু-গোপন নিরাময়
মুগ্ধ হয়ে উঠল ফুঁসে জল 
ভাসল তরী নাই রে কোনো ভয়! 

আরও পড়ুন- সহস্র প্রশ্নের সমাধানের নাম ‘সূর্যসারথি’

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড