• শনিবার, ২৮ মার্চ ২০২০, ১৪ চৈত্র ১৪২৬  |   ৩৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

পাণ্ডুলিপির অব্যক্ত কথা

‘আলোর আঁধারে’ একটি মেয়ের জীবনকালকের কথা

  রেজা কামাল

১১ মার্চ ২০২০, ১০:০৭
উপন্যাস
প্রচ্ছদ : উপন্যাস ‘আলোর আঁধারে’

লেখালেখির অভিজ্ঞতা আমার বেশি নেই। লেখালেখি করার মতো জ্ঞানের ব্যাসার্ধও ছোট। কিন্তু কী এক উৎসাহে পড়ে গত তিন মাস কিবোর্ডে টেপাটেপির এক পাগলামি খেলায় মত্ত ছিলাম। বাস, টাইপ হয়ে গেল ১০০ পৃষ্ঠা। এতটুকু পেরিয়ে এসে বাঁধাই করা অবস্থায় না পেলে হয়! আবার একই সুরে বলতে হয়, বাস, দেশ পাবলিকেশন রাজি হয়ে গেল। এক্ষণে জানাতে চাই, আমার সৃষ্টি ‘আলোর আঁধারে’ বইমেলা পেরিয়ে এখন রকমারি ডট কম এর ওয়েবস্টলে জায়গা নিয়েছে। 

আমার বাল্য নাম ছিল রেজা কামাল। যেহেতু ছেলে-খেলা করতে করতেই একটি উপন্যাস সাজিয়ে ফেলেছি, তাই ছেলে বেলার নাম নিয়েই লেখক হিসাবে আত্মপ্রকাশ করলাম। পড়ার নিমন্ত্রণ রইল। যারা আমার মত কম জ্ঞানী তারা বইটি পড়ে দেখতে পারেন, পাগলে কী করে! আবার জ্ঞানীরাও দেখে নিতে পারেন, পাগলে কী না করে!

এবার আসি এ উপন্যাস পিছনের গল্পে। গৃহে, প্রতিষ্ঠানে, অফিসে এমনকি যানবাহনেও যেন নারী নিরাপদ নয়। গৃহকর্মী থেকে মাঠকর্মী, সমাজসেবক থেকে শিক্ষক, অফিস সহায়ক থেকে অফিসার, মিডিয়া কর্মী থেকে মিডিয়া শিল্পী, হিন্দু থেকে বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান বা মুসলমান যেই হউক না কেন নারী নানান ভাবে নির্যাতনের শিকার। ২০১৮ সাল থেকে ২০১৯ সালের মাঝামাঝি পর্যন্ত হঠাৎ করে পত্রিকায় ধর্ষণের খবর বেড়ে যায়। সম্ভবত এ সময়ে আমি পত্রিকা বেশি পড়েছি, সেজন্য আমার নজরে এসেছে। এতসব ধর্ষণের খবরে আমি বিচলিত হই। ফলে ভাবি যে আমার মত ক্ষুদ্র একজন মানুষের দ্বারা কী করা সম্ভব। ভেবে দেখলাম, আমি একটি পত্রিকায় কলাম লিখতে পারি, স্কুল কলেজ প্রতিষ্ঠানে গিয়ে সচেতনামূলক সেমিনার করতে পারি, রাষ্ট্রের সাহায্য চাইতে পারি, একটি উপন্যাস লিখতে পারি।

সাধারণত পত্রিকার কলাম মানুষ একদিনই পড়ার সুযোগ পায়। আবার সারা দেশে স্কুল-কলেজে গিয়ে প্রচার করা কষ্টকর ও ব্যয় সাপেক্ষ। অন্য দিকে, রাষ্ট্রের কথা যদি বলি, তার সাহায্য চাওয়ার কিছু নেই। রাষ্ট্র নিজ আদর্শেই সেই দায়িত্ব পালন করে। বাকি থাকলো উপন্যাসের বিষয় যা দীর্ঘকাল ধরে বিভিন্ন প্রজন্মের মানুষ কিনে পড়ে। এ ব্যাপারে আমার ছোট ভাই স্বরূপ সহকর্মী মেহেদী উল্লাহ, যিনি একজন তরুণ উদীয়মান খ্যাত পরিচিত লেখক, এর সাথে পরামর্শ করলে আমাকে একটি উপন্যাস রচনার সাহস যোগান। তার সরল মন্তব্য, ‘আপনার লেখায় একটি আলাদা ভঙ্গি আছে। আপনি পারবেন।’

তাই বলে নারী নির্যাতনের মতো ব্যাপার নিয়ে লেখা? এমন উপন্যাস মানুষ পড়বে? আমার মনে হলো যে মানুষ পড়ার ক্ষেত্রে কষ্ট বা নির্যাতনের ঘটনা নয়, বিনোদনমূলক কিছু চায়। সে উপলব্ধি নিয়েই এ উপন্যাসের ঘটনা প্রবাহকে সাজানো হয়েছে। এ উপন্যাসে একটি মেয়ের পুরো জীবনকালকে গল্প ছলে হাসিঠাট্টার মাধ্যমে উপস্থাপন করা হয়েছে। সেই সাথে আশেপাশের মা বোনদের নিয়ত নির্যাতনের শিকারের ঘটনাগুলি নমুনা আকারে তুলে ধরা হয়েছে। অবতারণা করা হয়েছে একটি মধুর প্রেমের। কাজেই আশাকরি, সকলের কাছে এটি একটি সুখ পাঠ্য উপন্যাস হিসাবেই জায়গা পাবে।

আরও পড়ুন : ‘নিদাস্তিয়া’ মূলত একটি ত্রয়ী উপন্যাস

আলোর আঁধারে এর প্রচ্ছদ করেছেন শিল্পী আতিক দেওয়ান, প্রকাশিত হয়েছে দেশ পাবলিকেশন্স থেকে। বইটি rokomari.com থেকে পাওয়া যাবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড