• রোববার, ০৩ জুলাই ২০২২, ১৯ আষাঢ় ১৪২৯  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

উৎসবের বাজারে নকল নোট চেনার উপায়

  লাইফস্টাইল ডেস্ক

২৬ এপ্রিল ২০২২, ১৪:১৮
পাঁচশ ও এক হাজার টাকার নোট
পাঁচশ ও এক হাজার টাকার নোট। (ছবি : সংগৃহীত)

যেকোনো উৎসব বা বিশেষ দিনে বাজারে টাকার লেনদেন স্বাভাবিকের তুলনায় অনেক বেড়ে যায়। আর সেই সুযোগে বাজারে জাল নোট ছাড়েন অসাধু চক্র। অজান্তেই নকল নোটগুলো দিব্যি ঘুরে বেড়ায় এক হাত থেকে অন্য হাতে। এতে কারবারিরা আর্থিকভাবে লাভবান হলেও ক্ষতিগ্রস্ত হন সাধারণ মানুষ। আসল নোট চেনার ক্ষেত্রে সতর্ক থাকা জরুরি। টাকায় থাকা নিরাপত্তা সুতা, রং পরিবর্তনশীল কালি, অসমতল ছাপা, জল ছাপ ইত্যাদি দেখলেই সহজে বোঝা যায় কোনটি আসল আর কোনটি নকল নোট।

চলুন তাহলে জেনে নেই হাতবদলের বাজারে কীভাবে নকল নোট শনাক্ত করবেন...

১. রং পরিবর্তনশীল কালি

নোটের ওপরের ডান কোনায় ইংরেজি সংখ্যায় লেখা নোটের মূল্যমান রং পরিবর্তনশীল কালিতে মুদ্রিত রয়েছে। ১০০ ও ১০০০ টাকা মূল্যমানের নোট আস্তে আস্তে নড়াচড়া করলে নোটের মূল্যমান লেখাটি সোনালি হতে ক্রমেই সবুজ রঙে পরিবর্তিত হয়। ৫০০ টাকা মূল্যমানের নোটের ক্ষেত্রে যা লালচে থেকে সবুজে পরিবর্তিত হয়। জাল নোটে ব্যবহৃত রং চকচক করলেও তা পরিবর্তিত হয় না।

২. খসখসে পৃষ্ঠ

সবচেয়ে বেশি জাল হয়ে থাকে এক হাজার টাকার নোট। এই তালিকায় রয়েছে পাঁচ শ ও এক শ টাকার নোটও। প্রত্যেক ধরনের নোটের সামনে ও পেছন দুদিকেরই ডিজাইন, মধ্যভাগের লেখা, নোটের মূল্যমান এবং সাতটি সমান্তরাল সরল রেখা উঁচু-নিচুভাবে মুদ্রিত থাকে। এই অংশগুলোতে হাত দিলে খসখসে ভাব হয়। এতে বোঝা যায় নোটটি আসল।

৩. স্পষ্ট জলছাপ

জাল নোটে জলছাপ অস্পষ্ট ও নিম্নমানের হয়ে থাকে। অন্যদিকে, আসল নোটে ‘বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি’, ‘বাঘের মাথা’ এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের ‘মনোগ্রাম’ এর স্পষ্ট জলছাপ রয়েছে। আলোর বিপরীতে উভয়টিই দেখা যাবে।

৪. বৃত্তাকার ছাপ

নোটের ডান দিকে এক শ টাকার ক্ষেত্রে তিনটি, পাঁচ শ টাকার ক্ষেত্রে ৪টি এবং এক হাজার টাকার নোটে ৫টি ছোট বৃত্তাকার ছাপ আছে। এগুলো হাতের স্পর্শে উঁচু নিচু লাগে।

৫. নিরাপত্তা সুতা

জাল টাকা চেনার সবচেয়ে সহজ উপায় হচ্ছে এর নিরাপত্তা সুতা। ১০০, ৫০০ ও ১০০০ টাকা মূল্যমানের প্রত্যেক নোটেই এর মূল্যমান এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের লোগো সম্বলিত নিরাপত্তা সুতা থাকে। নিরাপত্তা সুতার ৪টি স্থানে নোটের মূল্যমান এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের লোগো মুদ্রিত থাকে। নোট চিত করে ধরলে নিরাপত্তা সুতার এর মূল্যমান লোগো দেখা যায়। এই নিরাপত্তা সুতা অনেক মজবুত এবং নোটের কাগজের অবিচ্ছেদ্য অংশ। এটি নখের আঁচড়ে বা নোট মুচড়িয়ে কোনোভাবে উঠানো সম্ভব নয়। কিন্তু, জাল নোটের নিরাপত্তা সুতা সহজেই নখের আঁচড়ে উঠে যায়।

ওডি/জেআই

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড