• মঙ্গলবার, ০৯ আগস্ট ২০২২, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

অর্থ ও সময় বাঁচিয়ে ইদ শপিংয়ের উপায়

  লাইফস্টাইল ডেস্ক

১৬ এপ্রিল ২০২২, ১৬:৪৬
ইদ শপিংয়ে
ইদ শপিং। (ছবি : সংগৃহীত)

ইদ যত ঘনিয়ে আসছে সবার মধ্যে উৎসবের আনন্দও ততই বাড়ছে। ইদুল ফিতর সব মুসলিমের জন্য অত্যন্ত কাঙ্ক্ষিত। দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনার পর এই ইদ আসে। তাই এই ইদ নিয়ে সবার মধ্যেই নানা পরিকল্পনা থাকে।

ইদ উপলক্ষ্যে বেশিরভাগ মানুষই এখন কেনাকাটা শুরু করেছেন। তবে বাজেটের মধ্যে ইদ কেনাকাটার জন্য বিশেষ কিছু বিষয় মাথায় রাখা জরুরি। তাহলে অর্থ ও সময় দুটোই বাঁচাতে পারবেন।

চলুন তবে জেনে নেওয়া যাক ইদের কেনাকাটার সময় কী করবেন আর কী করবেন না-

১. ইদ শপিংয়ে যাওয়ার আগে আপনার কী কী দরকার তা নোট করুন। যেহেতু ইদের সময় সব জিনিসেরই দাম বাড়ে, তাই এ সময় অপ্রয়োজনীয় কোনো কিছুই কিনবেন না। অনেক সময় মার্কেটে ঢুঁ মারতেই এটা সেটা দেখে পছন্দ হয়ে গেলে কিনে ফেলেন অনেকেই। এতে বাজেটে টান পড়তে পারে। আবার দরকারি জিনিস নাও কেনা হতে পারে। তাই কোন কোন জিনিস দরকার সেই তালিকা অনুযায়ীই কেনাকাটা করুন। তাহলে অর্থ ও সময় দুটোই বাঁচবে।

২. নির্দিষ্ট একটি বাজেট রাখুন ইদ কেনাকাটার জন্য। তাহলে অতিরিক্ত অর্থ খরচ হবে না। এটি খুবই চ্যালেঞ্জিং, তবে আপনি যদি চান তাহলে অতিরিক্ত কেনাকাটার অভ্যাস নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন।

৩. কোনো কিছুই প্রথম দেখায় কিনবেন না। সেটি আপনার জন্য পারফেক্ট আর আরামদায়ক কিনা তা খতিয়ে দেখুন। প্রয়োজনে ওই পণ্যটির দাম অন্যান্য দোকানে কেমন, সেটিও আগে জেনে নিন। অনেকেই জামা বা জুতা ট্রায়াল না দিয়েই কিনে আনেন, পরে তা ফিটিং না হলে পুনরায় আবারও তা এক্সচেঞ্জ করার জন্য দোকানে দৌড়ান। এতে সময় ও শ্রম দুটোই নষ্ট হয়।

৪. এক দোকানে একটি পণ্য দেখেই তা কিনবেন না। অন্তত ৫টি দোকান ঘুরে তবেই পছন্দের পণ্যটি কিনুন। এতে ওই পণ্য সম্পর্কে আপনার জ্ঞান বাড়বে আর তখন দামাদামি করতেও সুবিধা হবে। এতে আপনি কম মূল্যেই সেটি নিতে পারবেন।

৫. যে কোনো জিনিস কেনার পর দোকান থেকে রসিদ চেয়ে নিন। ওই পণ্যে যদি কোনো সমস্যা থাকে তাহলে পরেও ফেরত বা এক্সচেঞ্জ করা যাবে কিনা সেটিও জেনে নিন আগেভাগেই। আবার সব পণ্যের রসিদ কাছে রাখলে পরে কোন জিনিস কত দিয়ে কিনেছেন সে হিসাব রাখতেও সুবিধা হবে।

৬. কেনার আগে জামাকাপড় ভালো করে দেখে নিন। কোথাও কোনো ছেঁড়াফাটা আছে কিনা তা ভালো করে চেক করে নিন। প্রয়োজনে কাপড়টি আপনার শরীরে ফিটিং হবে কিনা সেজন্য ট্রায়াল দিয়ে তবেই কিনুন।

৭. একটি জামা কিনতে গিয়ে ৪-৫টি কিনে ফেলবেন না। তাহলে কিন্তু পরে অন্যান্য পণ্যসামগ্রী কেনার অর্থ কম পড়বে আপনার বাজেট অনুযায়ী। তাই ঠিক যে কাপড়টি দরকার সেটিই কিনুন। মার্কেটে আপনি নানা ডিজাইনের মনের মতো অনেক পোশাকই পেয়ে যাবেন, তবে সব নিশ্চয়ই আপনি কিনতে পারবেন না। তাই নিজের মনকে বোঝান ও নিয়ন্ত্রণ করুন।

৮. ইদের বাজারে এখন সব মার্কেটেই কমবেশি ছাড় দেওয়া হয়। তাই বলে ডিসকাউন্টের ফাঁদে পড়বেন না। অনেকেই ডিসকাউন্ট দেখে ২টির স্থানে ১০টি জিনিস কিনে ফেলেন। তারা ভাবেন পরে আর এই সুযোগ পাবেন না। আসলে বিষয়টি ভুল। আপনি যাতে একটির সঙ্গে আরও ৫টি পণ্য কেনেন এজন্যই কিন্তু বিভিন্ন উৎসবের আগে এমন ছাড় দেওয়া হয়। তাই ডিসকাউন্ট দেখলেই পাগল হয়ে যাবেন না। আপনি শুধু আপনার প্রয়োজনমাফিক জিনিসটিই কিনুন। তাহলেই অর্থ বাঁচাতে পারবেন।

৯. কেনাকাটার জন্য এমন সময় বেছে নিন যখন দোকানে ভিড় কম থাকে। অনেকেই ছুটির দিনগুলোতে শপিংয়ে বের হন। তখন সবাই তো শপিংয়ে যান, ফলে ভিড় বেশি হওয়াটাই স্বাভাবিক। আর ভিড়ের মধ্যে আপনি কোনো কিছুই দেখে শুনে বুঝে কেনার সময় পাবেন না। ফলে তাড়াহুড়ো করে ভুল জিনিস কেনার সম্ভাবনাই বেশি। তাই এমন সময় কেনাকাটা করুন যখন ভিড় কম থাকে।

১০. শপিংয়ে যাওয়ার সময় সঙ্গে কাউকে নিন। এতে আপনি নিজেকে নিরাপদ বোধ করবেন। এর পাশাপাশি শপিংয়ের ব্যাগ ধরতেও সুবিধা হবে। এছাড়া একদিনেই সবকিছু কেনার পরিকল্পনা করবেন না। পণ্যের ধরন অনুযায়ী দিন ভাগ করে নিন। এতে সময় বাঁচবে।

ওডি/জেআই

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড