• শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বাহারি সব মোবাইল কভারে সাজানো আন্নির ‘আনন্দময়’

১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৩:০৫
আন্নি
আন্নি চৌধুরী

নিজের প্রিয় জিনিসগুলোর মধ্যে নিশ্চয়ই আপনার মোবাইল ফোনটি রয়েছে। রোজ সকাল থেকে শুরু করে রাত- হাতের কাছে মোবাইল না থাকলে কী আর চলে। মোবাইলের কথা বলতেই চলে আসে মোবাইল কভারের কথা। বাংলাতে যাকে বলা যায় মোবাইলের পোশাক আরকি। 

মোবাইলকে একটু ভিন্ন দেখাতে দৃষ্টিনন্দন একটি ফোন কভার আবশ্যিক। বাজারে নানা রঙের, নানা নকশার কভার রয়েছে। তবে সেসব কভার পছন্দ হতো না আন্নির। ইনস্টাগ্রামের বদৌলতে বিদেশী অভিনেত্রী বা নামকরা মানুষের ভিন্নরকম মোবাইলের কভার দেখে ইচ্ছে হতো নিজেরও যদি অমন আলাদা ডিজাইনের একটা কভার থাকত।  

এমন ভাবনা থেকেই সাধারণ মোবাইলের কভারকে অসাধারণ করার কাজ শুরু করেন ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটিতে পড়ুয়া ছাত্রী আন্নি চৌধুরী। বর্তমানে অনলাইনের মাধ্যমে কাস্টোমাইজ মোবাইল কভার বিক্রি করছেন তিনি। পড়াশোনার পাশাপাশি সামলে যাচ্ছেন নিজের ছোট্ট অনলাইন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ‘আনন্দময়’। 

২০১৮ সালের নভেম্বর থেকে ব্যবসা জগতে আছেন আন্নি। ছোটবেলা থেকেই ব্যবসার প্রতি আলাদা টান ছিল তার। সেসঙ্গে ফোনের কভারে আঁকিবুঁকি করাতে আলাদা আকর্ষণ জন্মেছিল। সবকিছু মিলিয়েই ব্যবসার সূচনা। ইউটিউব থেকে হ্যান্ড মেইড কেস বানানো শেখেন আন্নি। 

অনলাইনের মাধ্যমে নতুন নতুন ডিজাইনের মোবাইল কভার বিক্রির প্ল্যান মাকে জানান ২০১৬ সালে। কিন্তু মা মানা করে দেন। কারণ, পরিবার এসব ক্রাফটিং পছন্দ করতো না। অন্যদিকে ব্যবসা নিয়ে তার জ্ঞানও খুব একটা ছিল না।

তবে থেমে থাকেননি আন্নি। নিজের খেয়াল খুশিতে রাঙিয়ে যাচ্ছিলেন সাধারণ মোবাইল কভারগুলো। তার এই কাজ অন্যরাও পছন্দ করছিল বেশ। সবার কাছ থেকে ভালো সাড়া পেয়ে ২০১৮ তে নতুন করে ব্যবসার চিন্তা মাথায় আসে আন্নির। জমানো কিছু টাকা দিয়ে, ভার্সিটির বান্ধবীর পরামর্শে নেমে পড়েন ব্যবসা জগতে। কলেজ বান্ধবী পিংকির সাহায্য আর নিজের চেষ্টায় অনলাইনে মানুষদের কাছে পৌঁছান তিনি। 

anne

আন্নির করা কিছু কাজ 

প্রতিষ্ঠানের নামকরণের পেছনে রয়েছে মজার একটি গল্প। মূলত আন্নির বোন ও বাবা ইভেন্ট প্ল্যানার হিসেবে কাজ করেন। তারা একটি মেলার আয়োজন করেছিল। মেলার একটি নামের দরকার ছিল। তখন আন্নির বোন ‘আনন্দময়’ নামটি রাখার আবদার করেন। কারণ মেলা মানেই আনন্দ। আর আনন্দ থেকেই আনন্দময়। 

এই নামেই অনলাইনে একটি পেজ খোলা হয়েছিল। কিন্তু তার কার্যক্রম বন্ধ ছিল অনেকদিন। পরবর্তীতে নিজের ব্যবসার জন্য বাবা আর বোনের সেই পেজটিকেই বেছে নেন আন্নি। কাস্টোমাইজ পণ্যই বেশি তৈরি করেন তিনি। 

আন্নির ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আনন্দময়তে রয়েছে- প্রিন্টেড ফোন কেস, হাতে তৈরি ফোন কেস, প্রিন্টেড ব্যাজ, ম্যাগনেট ব্যাজ, পপসকেট, টি শার্ট, কি রিং ইত্যাদি। সম্প্রতি রেসিন আর ড্রাই ফ্লাওয়ার নিয়েও কাজ করছেন তিনি। 

একসময় পরিবার বাধা দিলেও বর্তমানে আন্নির কাজকে মূল্যায়ন করছে তারা। আশেপাশের পরিচিত অপরিচিতরাও পছন্দ করছেন তার নিত্যনতুন কাজ। সবার ভরসা আর ভালোবাসা নিয়ে আন্নিও করে যাচ্ছেন কাজ। নিজেকে এখনও পুরোপুরি পেশাদার মনে করেন না তিনি। তবে প্রতিনিয়ত কাজ শিখছেন আর ভালো কিছু করার চেষ্টা করছেন। 

পড়াশোনার পাশাপাশি ছোট্ট ব্যবসায়িক জীবন বেশ উপভোগ করছেন আন্নি। এভাবে হাসিমুখে কাজ করে যেতে চান সামনের দিনগুলোতে। আন্নির জন্য ‘দৈনিক অধিকার’ এর পক্ষ থেকে রইল শুভকামনা। 

‘আনন্দময়’ এর ফেসবুক পেজের লিঙ্ক- Anondomoy / আনন্দময়

ওডি/এনএম 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন সজীব 

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড