• শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ৮ কার্তিক ১৪২৮  |   ৩১ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

মান আর মূল্যের চমৎকার সমন্বয় ঈশিতার ‘চৌরঙ্গী’

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:০৩
চৌরঙ্গী
চৌরঙ্গীর কর্ণধার ঈশিতা পায়েল রায় (ছবি : জয়িতা আফরিন)

ঘরে ঢুকতেই দেখা গেল থরে থরে সাজানো রঙিন শাড়ি। দেখে মনে হলো যেন রঙিন প্রজাপতির মেলা। মেকআপের শেষ টাচআপ নিচ্ছেন ঈশিতা। একটু পরেই ফেসবুক লাইভে যাবেন শাড়ি নিয়ে। ব্যস্ততার ফাঁকেই খানিকটা সময় আড্ডা দেওয়া হলো সফল এ নারী উদ্যোক্তার সঙ্গে। দৈনিক অধিকারের সঙ্গে আড্ডায় জানালেন নিজের কথা, ব্যবসার কথা।

ঈশিতার পুরো নাম ঈশিতা পায়েল রায়। সবুজে শ্যামলে ঘেরা ঝালকাঠির নলছিটিতেই তার বেড়ে ওঠা। মফস্বলে কেটেছে জীবনের সূচনালগ্নের দিনগুলো। সম্ভ্রান্ত পরিবার হওয়ায় বেশ কড়াকড়ির মাঝেই বড় হয়েছেন। বাবা মায়ের আদর আর শাসন দুটোই ছিল সঙ্গী। সুযোগ পেলে অবশ্যই ডানপিটেপনা করতেও কার্পণ্য করেননি।

৪/৫ বছর আগে মিডিয়াতে ফ্রিল্যান্সার হিসেবে কাজ করলেও বর্তমানে পুরোদস্তুর ঈশিতা। ইন্ডিয়ার বিভিন্ন প্রদেশের বিখ্যাত শাড়িই নিয়েই দিন কাটে তার। কীভাবে এ ব্যবসায় এলেন জানতে চাই ঈশিতার কাছে। বললেন, শাড়ি নিয়ে আগ্রহ অনেক আগে থেকেই। মায়ের পাট ভাঙ্গা শাড়ির গন্ধ এখনও আছে মন জুড়ে। এবার বাবা ইন্ডিয়া থেকে একটা অরিজিনাল সাউথ কাতান আনাতে গিয়ে অনেক হ্যাপা পার করেছিলেন। সে গল্প এখনও মনে আছে।

নস্টালজিক হতে হতে চিন্তায় গেড়ে বসে ইন্ডিয়ান শাড়ি নিয়েই কাজ করবো। ওদের একেকটা প্রদেশে একেক রকম শাড়ি। দারুণ সব বৈচিত্র্য। কাজ করার জন্য এই ক্ষেত্রটা বেশ বড়। অনেক চিন্তা-ভাবনা করে ঠিক করলাম ইন্ডিয়ার নানা প্রদেশ আসল শাড়ি নিয়েই কাজ করবো। সেই থেকেই শুরু। চৌরঙ্গী শব্দের অর্থ চার রাস্তার মিলনস্থল ।

ঈশিতার অনলাইন প্রতিষ্ঠানের নাম ‘চৌরঙ্গী_ঈশিতা"স কালেকশন’। চৌরঙ্গী শব্দের আভিধানিক অর্থ চার রাস্তার মিলনস্থল। ভিন্ন ভিন্ন রাস্তা যেমন এক জায়গায় এসে মিলিত হয় তেমনি ঈশিতাও ভিন্ন ভিন্ন প্রদেশের শাড়ি এক জায়গায় মিলিত করেছেন। আর তাইতো এমন নাম। ২০১৮ সালের ২২ আগস্ট থেকে অনলাইন ব্যবসা কার্যক্রম শুরু করেন তিনি।

কী কী পণ্য নিয়ে কাজ করছেন জানতে চাইলে ঈশিতা বলেন, আমরা মূলত ইন্ডিয়ান সব ধরনের শাড়ি আনি। তারমধ্যে, গাদোয়াল, কাঞ্জিভরম, পৈঠানী, কালামকারি, শান্তিনিকেতনি নকশীকাঁথা, উড়িষ্যার সম্বলপুরী, পিওর সিল্ক ইক্কাত, ফুলিয়ার হ্যান্ডলুম, লিনেন, চান্দেরী, অরিজিনাল স্বর্ণচুড়ি, বালুচুড়ি, বোমকাই, কটকি উল্লেখযোগ্য। প্রায় সব শাড়িই হাতে তৈরি। ক্রেতার চাহিদা ও আর্থিক সুবিধার কথা খেয়াল রেখে কিছু তাঁতের শাড়িও আনি।

চৌরঙ্গীর বিভিন্ন শাড়িতে ঈশিতা

শাড়িরও যে এত প্রকারভেদ থাকতে পারে আর নামেও যে এত বৈচিত্র্য রয়েছে তা ঈশিতার সঙ্গে কথা না হলে জানা হতো না। বর্তমানে তো শাড়ি নিয়ে অনেকেই কাজ করছেন, ইন্ডিয়া থেকে শাড়ি এনেও বিক্রি করছেন অনেকে। তবুও, ক্রেতার পছন্দের তালিকায় চৌরঙ্গী থাকার কারণ কী? জানতে চাই তার কাছে। জবাবে তিনি বলেন, ইন্ডিয়ান শাড়ি নিয়ে অনেকে কাজ করলেও আসল শাড়ি নিয়ে কাজ করেন অল্প কয়জন। আমরা সেই অল্পের মধ্যেই এক। আমরা সব আসল শাড়ি আনি। তাই দামও হয় তেমন। আবার একটু কম মূল্যের মধ্যেও যে শাড়িগুলো আনি সেগুলোর মানও ভালো হয়। সব মিলিয়ে মান আর মূল্যের এই চমৎকার সামঞ্জস্যকে ক্রেতারা সানন্দে গ্রহণ করেন।

করোনা সবার জীবনেই কম-বেশি প্রভাব ফেলেছে। ঈশিতার ব্যবসায়িক জীবনেও কী প্রভাব ফেলেছে? জানতে চাইলে তিনি বলেন, বর্ডার বন্ধ থাকায় শাড়ি আনতে বেশ কষ্ট হতো। নির্ধারিত সময়ের চেয়ে বেশি সময়ও লাগতো মাঝেমধ্যে। তবে ক্রেতাদের আন্তরিক সহযোগিতা থাকায় ব্যবসায়ে তেমন ক্ষতি হয়নি।

ব্যবসার ক্ষেত্রে ক্রেতার সঙ্গে সমন্বয়কে কেমন চোখে দেখেন জানতে চাইলে ঈশিতা বলেন, ভালো মন্দ সব ক্রেতাই পেয়েছি৷ কেউ কেউ একদম প্রথম থেকে পাশে আছেন। নতুন নতুন ক্রেতা তৈরি হয়েছে। তারা ভরসা করে একের অধিকবার চৌরঙ্গী থেকে কেনাকাটা করেছেন, এখনও করছেন। আবার অল্প কিছু খারাপ অভিজ্ঞতাও আছে। প্রোডাক্ট বুক করে ক্যান্সেল করা, টাকা দিতে গড়িমসি করা, অহেতুক ডিসকাউন্ট চাওয়া এসব আরকি। কাজের ক্ষেত্রে সবসময় পরিবারের সাপোর্ট পেয়ে এসেছেন ঈশিতা। স্বামী, দুই কন্যাসহ পরিবারের অন্য সদস্যরা নিয়মিত উৎসাহ দেন কাজে। তবুও কি কখনো থেমে যাওয়ার কথা মনে হয়েছে? আমাকে দিয়ে আর এ কাজ সম্ভব না- এমন হতাশা এসেছিল ব্যবসায়িক জীবনে? ঈশিতা হেসে বলেন, কাজ মানেই প্রতিকূলতা। অন্য দেশ থেকে পণ্য এনে নিয়ম মেনে ব্যবসা করা অনেক কঠিন। তাই দু এক সময় কিছুটা হতাশ তো লাগেই৷ আবার ক্রেতাদের ভালোবাসা পেয়ে সব কষ্ট ভুলে যাই, সামনে এগিয়ে যাই।

নতুন উদ্যোক্তাদের জন্য কিছু বলতে বলি তাকে। ঈশিতা বলেন, এখন অনেকেই হুট করে ব্যবসা শুরু করেন। কিন্তু যে কোনো কিছু নিয়ে ব্যবসা করার আগে তা নিয়ে পড়াশোনা করা উচিত। হুট করে ঝাঁপিয়ে পড়া যাবে না। কমন পণ্যের বাইরের পণ্য নিয়ে কাজ করলে পরিচিতি পেতে সুবিধা হবে। সবশেষে বলবো, অনলাইন ব্যবসার জন্য অনেক ধৈর্যের প্রয়োজন।

চৌরঙ্গীকে আরও অনেক বড় করতে চান ঈশিতা। সবার কাছে চৌরঙ্গীর শাড়ি যেন একটু বিশেষ হয়ে ওঠে এটিই কামনা তার। স্বপ্ন দেখেন এমন একটি দিনের যখন প্রায় সবার আলমারিতেই থরে থরে সাজানো থাকবে চৌরঙ্গীর শাড়ি।

সময়ের কাটা বয়ে যাচ্ছে, জানান দিচ্ছে ঈশিতার ফেসবুক লাইভে যাওয়ার পূর্বনির্ধারিত সময় ঘনিয়ে এসেছে। তাই আর কথা না বাড়িয়ে এখানেই ইতি টানলাম। ঈশিতা এগিয়ে চলুন তার স্বপ্নকে নিয়ে, আরও সমৃদ্ধ করুক নিজের ব্যবসা ক্ষেত্র।

চৌরঙ্গীর ফেসবুক গ্রুপের লিঙ্ক- Chowrangi- Eshita"s Collection

চৌরঙ্গীর ফেসবুক পেজের লিংক- Chowrangi : চৌরঙ্গী

ওডি/নিমি

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: inbox.odhikar@gmail.com

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড