• শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৬ আশ্বিন ১৪২৬  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন

ভবিষ্যত প্রজন্মের সুরক্ষায় বিয়ের আগেই রোগ পরীক্ষা

  লাইফস্টাইল ডেস্ক

১৯ মে ২০১৯, ২২:৩৫
বিয়ে
ছবি : প্রতীকী

বিয়ের আগে সত্যিকার অর্থেই বর এবং কনের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাটা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। কেননা এর ওপর অনেক কিছুই নির্ভর করে। বিশেষ করে পরবর্তী প্রজন্মের সুস্বাস্থ্যের অনেক কিছুই হুমকির মুখে পড়তে পারে এই কাজটি না করলে। এছাড়াও কারও বড় কোন রোগ থাকলে তা থেকেও সতর্ক হবার একটা সুযোগ পাওয়া যায় এর ফলে। কিছু রোগ আছে যেগুলোর পরীক্ষা বিয়ের আগে করাটা অনেক বেশি জরুরী। বিশেষ করে থ্যালাসেমিয়া, হেপাটাইটিস, অ্যানিমিয়া বা থাইরয়েড এর মতো রোগগুলো থাকলে ভবিষ্যত প্রজন্ম অনেক বেশি হুমকির মুখে পড়তে পারে। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে যে সব রোগ বিয়ের আগে পরীক্ষা করে নেওয়া জরুরী চলুন জেনে নেওয়া যাক সেগুলো সম্পর্কে।

থ্যালাসেমিয়া :

এটি এমন একটি রোগ যা কখনোই পুরোপুরি ভালো হয় না। এই রোগের ফলে রক্তে হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ কমে যায় অনেক। ফলে এ রোগে আক্রান্তকে নির্দিষ্ট সময় পরপর বাইরে থেকে রক্ত গ্রহণ করতে হয়। এর ফলে ধুঁকে ধুঁকে বেঁচে থাকা হয় শুধু। এছাড়া নিয়মিত রক্ত নিলেও রয়েছে নানা রকম ঝুঁকি। রক্তে আয়রনের মাত্রা বেড়ে যেতে পারে ঘন ঘন রক্ত নেবার ফলে। এটি আবার ডেকে আনতে পারে ভিন্ন কিছু বিপদ। যেমন, হার্ট এবং লিভারকে অনেক বেশি ক্ষতিগ্রস্ত করে তুলতে পারে। তাই বিয়ের আগে বর কনে দুজনই পরীক্ষা করে নেবেন তাদের কারও শরীরে থ্যালাসেমিয়া রোগের জীবাণু বিদ্যমান কীনা। দুজনই যদি এই রোগে আক্রান্ত হন তবে তাদের সন্তানও এই মারাত্মক রোগে আক্রান্ত হবে পৃথিবীর আলো দেখার আগেই।

হেপাটিইটিস :

লিভার কেন্দ্রিক কোন সমস্যা আছে কীনা তা বিয়ের আগেই পরীক্ষা করে নেওয়া উচিত। হেপাটাইটিস ধরণের বেশ কিছু রোগ রয়েছে। যা মানুষকে মৃত্যুর দ্বারে নিয়ে যেতে পারে। বিশেষ করে হেপাটাইটিস-এ, হেপাটাইটিস-বি, হেপাটাইটিস-সি এর মতো রোগগুলোর ক্ষেত্রে বিশেষ সতর্ক থাকা উচিত। বর-কনে যে কারও শরীর থেকে এটি সন্তানের শরীরে প্রবেশ করতে পারে। তাই বিয়ের আগেই এই রোগের ভ্যাকসিন নিয়ে নিতে হবে। এতে অনেক সুরক্ষিত থাকা যাবে।

থাইরয়েড :

থাইরয়েডের সমস্যা থাকলে সন্তান জন্মদানের সময় অনেক ঝামেলায় পড়তে হয়। জীবনও ঝুঁকির মুখে পড়ে যায়। এই রোগটি সম্পর্কে আগেই সতর্ক হওয়া উচিত। বিয়ের পর এই রোগ ধরা পড়ার আগে বিয়ের আগেই পরীক্ষা করে চিকিৎসা নেওয়া শুরু করা উচিত।

কিডনি :

কিডনি শরীরের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলোর একটি। কিডনিতে সমস্যা থাকলে অনেক ধরণের সমস্যা হতে পারে বিয়ের পরে। বিশেষ করে মেয়েদের এই ধরণের সমস্যা বেশি হয়ে থাকে। তাই বর এবং কনে দুজনই আগে নিজেদের স্বাস্থ্য সম্পর্কে নিশ্চিন্ত হয়ে নেওয়াটা অনেক বেশি জরুরী বিয়ের আগে। 
এছাড়া আরও বেশ কিছু রোগ আছে কীনা তাও পরীক্ষা করে দেখা উচিত বিয়ের আগে। বিশেষ করে, এইডস, মানসিক স্বাস্থ্য, ডায়াবেটিস ইত্যাদি। আগে থেকে সতর্ক হলে অনেক রোগের হাত থেকে পরবর্তী প্রজন্মকে ভাল রাখা সম্ভব হবে।

সূত্র : ফেমিনা

ওডি/এসএম 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড