• শুক্রবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৯, ১৩ বৈশাখ ১৪২৬  |   ৩৩ °সে
  • বেটা ভার্সন

শিশুকে আরও খেলতে দিবেন কেন? জানিয়েছে বিজ্ঞান!

  সাদিয়া ইসলাম বৃষ্টি ২৯ জানুয়ারি ২০১৯, ০৮:২৭

শিশু
খেলাধুলায় বাড়ে শিশুর আত্মবিশ্বাস (মডেল: জারাহ, দিবা, সামিহ্)

শিশুদের খেলতে দেওয়া নিয়ে বাবা-মায়ের মধ্যে এক রকমের উদ্বিগ্নতা কাজ করে সবসময়। অনেক বাবা-মা শিশুকে বাইরে খেলতে দিতে চান না। কারও ক্ষেত্রে পড়াশোনা করাটা খেলার চাইতে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে যায়। কেউ আবার ভাবেন শিশু বাইরে খেলতে গেলে বাজে সঙ্গ পাবে, শারীরিক আঘাত পাবে। তবে সম্প্রতি বিজ্ঞান জানিয়েছে শিশুদের আরও বেশি খেলতে দেওয়াটা দরকার। কেন? চলুন, বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক-

খেলাধুলা শিশুর চিন্তার পরিধি বাড়ায় :

এটা তো নিশ্চয় জানেন যে, খেলাধুলা শিশুর শারীরিক ও মানসিক বিকাশে সাহায্য করে। তবে এটা তো শুধু নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে খেলার ফলাফল। যেসব খেলায় শিশুর কোনো বাঁধাধরা নিয়ম থাকে না, এই যেমন- ক্লে দিয়ে ইচ্ছেমতো জিনিস বানানো, লেগো সেট সাজানো ইত্যাদি, এগুলোর ক্ষেত্রে শিশু নিজ থেকে নতুন কিছু ভাবার সুযোগ পায়। ফলে তার সৃজনশীল চিন্তার পরিধি আরও অনেক বেশি বেড়ে যায়।

খেলা

খেলা শিশুর মানসিক চাপ কমায় এবং আত্মবিশ্বাস বাড়ায় :

হয়তো শুনতে অদ্ভুত মনে হচ্ছে, তবে এটা ঠিক যে, আপনার ছোট্ট শিশুটিরও মানসিক চাপ রয়েছে। গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে, যেসব শিশু অনেক বেশি পরিকল্পিত নিয়মের মধ্যে দিয়ে চলে, তাদের ক্ষেত্রে এই মানসিক চাপ অনেক বেশি দেখা যায়। যেসব শিশু খেলাধুলা করার সুযোগ পায় তাদের ক্ষেত্রে এই মানসিক চাপ কম দেখা যায়। এছাড়া মানুষের সাথে মিশতে পারা, খেলায় কোন অর্জন- এই সবকিছু তার মধ্যে আত্মবিশ্বাস তৈরি করে।

হৃদপিণ্ডকে সুস্থ রাখে :

ডব্লিউএইচও জানিয়েছে যে, ৫-১৭ বছরের শিশুদের দিনে অন্তত ৬০ মিনিটের জন্য খেলাধুলা করা প্রয়োজন। এটি তাদের শারীরিক পরিশ্রমের মধ্য দিয়ে নিয়ে যায়। এতে করে তাদের হাড়, পেশী, সংযোগস্থল এবং হৃদপিণ্ড সুস্থ থাকে। শারীরিক এই পরিশ্রম শিশুদের রক্তপ্রবাহ স্বাভাবিক করে এবং হৃদপিণ্ডের কর্মক্ষমতাকে ঠিক রাখে। ফলে পরবর্তী জীবনে হৃদপিণ্ডের সমস্যায় এই শিশুরা তুলনামূলকভাবে কম ভোগে।

স্থূলতা কমাতে সাহায্য করে :

কেউ যদি শারীরিক পরিশ্রম করে তাহলে তার শরীরে স্বাভাবিকভাবেই মেদ কম জমবে। ফলে কোনরকম স্থূলতা তৈরি হবে না। শিশুদের ক্ষেত্রেও ঠিক একই জিনিসটি ঘটে থাকে। খেলাধুলা তাদের শরীরের অতিরিক্ত মেদ কমাতে সাহায্য করে। স্থূলতার মতো সমস্যাগুলো আর হয় না। বর্তমান সময়ে স্থূলতা শিশুদের জন্য হরহামেশা ঘটে থাকা সমস্যা হয়ে পড়েছে।

আরও পড়ুন : আপনার শিশু ঠিকমতো কানে শুনতে পাচ্ছে তো?

হয় শিশু অতিরিক্ত চিকন, অন্যথায় সে অতিরিক্ত স্থূল হয়ে পড়ে। আর তাই আপনার শিশুকে একদম ঠিকঠাক রাখতে তাকে খেলাধুলায় অংশ নেওয়ার ক্ষেত্রে উৎসাহিত করতে পারেন। এতে করে আপনার শিশুর ডায়াবেটিসের মতো সমস্যাও হওয়ার আশঙ্কা থাকবে না।

খেলা

সম্পর্ক তৈরিতে সাহায্য করে :

এক গবেষণায় দেখা যায় যে, অক্সিটোকিন হরমোন মানুষের শরীরে উৎপন্ন হলে অন্যদের সাথে সম্পর্ক স্থাপন অত্যন্ত সহজ হয়। এটি বন্ধুত্ব এবং যেকোনো সম্পর্ক স্থাপনে বড় ভূমিকা পালন করে। খেলাধুলার সময় শরীরে অক্সিটোকিনের পরিমাণ বেড়ে যায়। তাই, খেলাধুলা আপনার শিশুকে নতুন বন্ধু খুঁজে পেতে এবং সামাজিক হতে সাহায্য করবে। আর আপনিও যদি আপনার শিশুর সাথে খেলাধুলা করেন, সেক্ষেত্রে আপনাদের মধ্যকার বন্ধনও আরও দৃঢ় হবে।

আবেগ নিয়ন্ত্রণ করার অনুশীলন :

আপনি আপনার শিশুকে ‘অন্যের সাথে ভালো ব্যবহার করো’ বললেই সে সেটা করবে এমনটা নয়। তবে আপনি যদি তাকে অনুশীলনের মধ্য দিয়ে নিয়ে যান তাহলে ফলাফল ইতিবাচক হতে বাধ্য। আর সেটা সম্ভব খেলাধুলার মাধ্যমে। আপনার শিশু খেলাধুলার সময় অন্যদের ভাল লাগা-খারাপ লাগা ইত্যাদি খেয়াল করবে, সহানুভূতিশীল হয়ে উঠবে। পরাজয়কেও সহজে নিতে শিখবে। এতে করে সে তার আবেগকে আরও বেশি ভালো নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে।

তাই আজ থেকে শিশুকে চার দেয়ালের মধ্যে আটকে না রেখে খেলতে দিন, খেলার জন্য উৎসাহিত করুন। এতে করে সে শারীরিক ও মানসিকভাবে আরও বেশি সুস্থ হয়ে উঠবে।

মূল লেখক- ডক্টর ওথেলো ডেভ, পার্কওয়ে হসপিটাল।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড