• শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫  |   ৩২ °সে
  • বেটা ভার্সন

শোয়ার ধরনই বলে দেবে আপনার ব্যক্তিত্ব!

  সাদিয়া ইসলাম বৃষ্টি ০৮ নভেম্বর ২০১৮, ০৮:৫৭

শোয়ার ধরন
নানা রকম শোয়ার ধরন

ঘুম কেবল মানুষকে মানসিক প্রশান্তি দেয় না, শরীরের ক্লান্তি কাটায় না, একজন মানুষের ব্যক্তিত্ব সম্পর্কেও অনেক নতুন আর অজানা কথা প্রকাশ করে। আপনার ব্যক্তিত্ব কেমন? নিচের কথাগুলোর সাথে মিলিয়ে নিন!

sleep1

শিশুদের মতো কুকড়ে শোয়ার অভ্যাস?

মাতৃগর্ভে শিশু যেভাবে শুয়ে থাকে, ঠিক সেভাবেই ঘুমের সময় অনেকে শুয়ে থাকেন। এতে করে অনেকেই নিজের অসহায়ত্বকে বোঝান। মানসিকভাবে সমস্যায় থাকলে বাড়তি নিরাপত্তা পেতে অবচেতনভাবেই মানুষ এভাবে শুয়ে থাকে। তবে হ্যাঁ, এই শোয়ার ধরন একজন মানুষকে লাজুক এবং বেশ শক্ত ব্যক্তিত্বের অধিকারী হিসেবে পরিচয় দেয়।

sleep6

কাঠের গুঁড়ির মতো সমান্তরালভাবে শুয়ে থাকেন?

এইক্ষেত্রে, মানুষ সমান হয়ে শুয়ে থাকেন। তার হাত ও পা শরীরের সাথে সমান্তরাল থাকে। এমন শোয়ার অভ্যাস আছে যাদের, তারা মূলত সহজেই সবকিছুকে গ্রহণ করতে পারেন। মানুষকে সহজে বিশ্বাস করেন তারা, মানুষের সাথে মিশতে ভালোবাসেন। আর তাই তাদেরকে ধোঁকা দেওয়াও সহজ হয়। 

sleep3

হাত বাড়িয়ে সমান্তরালভাবে শুয়ে থাকেন?

এটি পুরোপুরি সমান্তরাল হয়ে শোয়ার চাইতে খুব একটা ভিন্ন কিছু নয়। কেবল, এক্ষেত্রে মানুষ সোজা হয়ে থাকলেও নিজেদের হাত সামনে বাড়িয়ে রাখেন। পা-গুলোও একটু বাঁকানো থাকে। বাকি সব ব্যাপারগুলোতে মিল থাকলেও এই মানুষগুলো সমান্তরাল হয়ে শুয়ে থাকা ব্যক্তিদের মতো খুব দ্রুত ধোঁকা খান না।

sleep4

একপাশ হয়ে হাত-পা বাকিয়ে শোয়ার অভ্যাস?

অনেকেই একপাশ হয়ে শুয়ে থাকেন। তবে তাতে বেশ কিছুটা মিশ্র ব্যাপার থাকে। এক্ষেত্রে তারা হাত দিয়ে বালিশ ধরে রাখেন। পা খানিকটা বাঁকিয়ে রাখেন এবং পায়ের মাঝে বালিশ ব্যবহার করেন। শোয়ার এমন ধরন সম্পর্কে বিশেষজ্ঞরা কোনো মতামত দেননি। তবে হ্যাঁ, এতে করে মানুষের হৃদপিণ্ড ভালো থাকে, ফুসফুস এবং অন্যান্য অঙ্গ ভালোভাবে কাজ করতে পারে দেখে অনেকেই একে ইতিবাচক বলে মনে করেন। 

sleep5

মুখ ও পেটের ওপরে চাপ দিয়ে শুয়ে থাকছেন?

চিকিৎসকেরা সবাইকে এভাবে শুয়ে থাকতে নিষেধ করে থাকেন। বিশেষ করে গর্ভবতী নারী এবং মেরুদণ্ডে সমস্যা আছে এমন কারও ঘুমানোর এই ধরন থেকে বিরত থাকা উচিৎ। এভাবে যারা ঘুমোতে পছন্দ করেন, তারা দুঃসাহসী ও বন্ধুপ্রিয় হয়ে থাকেন। তবে সব কাজে নিজেদের সেরাটা দেন বলে কারও কাছ থেকে নেতিবাচক কিছু শুনতে চান না তারা।

sleep7

মেরুদণ্ডের ওপর ভর করে শুয়ে থাকতে পছন্দ করেন?

যারা অনেক বেশি রাস্তাঘাটে চলাচল করেন তাদের ক্ষেত্রে শোয়ার এই ধরন বেশি লক্ষ্য করা হয়। এভাবে যারা ঘুমোতে পছন্দ করেন তাদের ক্ষেত্রে ঘুম সবচাইতে ভালো হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। মেরুদণ্ডের ওপর ভর করে ঘুমানোর পর সকালে মানুষ শারীরিক ও মানসিকভাবে অনেক বেশি সতেজ থাকেন। মনে করা হয়, ২৫ থেকে ৩৪ বছর বয়সী মানুষ এভাবে বেশি ঘুমান। আর এই বয়সে সবচাইতে ভালো ঘুম হওয়ায় মানুষ ভালো বোধও করেন বেশি। ফলে, মেরুদণ্ডের ওপরে চাপ দিয়ে ঘুমানো আর ভালো ঘুম হওয়ার মধ্যে একটা সূক্ষ্ম সম্পর্ক রয়েছে।

sleep8

নানাভাবে ঘুমিয়ে থাকেন?

বেশিরভাগ মানুষই ঘুমানোর সময় একইরকম অবস্থান বজায় রাখলেও, কিছুক্ষেত্রে মানুষ একবার ঘুমের ভেতরেই কয়েকটি অবস্থান পাল্টান। সাধারণত, ৩৫ থেকে ৪৪ বছর বয়সীরাই এমনটা বেশি করে থাকেন। সারাদিন কাজ করার পর রাতে আমরা বিশ্রাম নিতে চাইলেও অনেকসময় শরীর তার কার্যক্রম অব্যাহত রাখে। এমনকি, অনেকে রাতে ৫০ থেকে ৮০ বারও নড়াচড়া করেন। এটি মোটেও খারাপ কিছু না বলেই মনে করেন চিকিৎসকেরা। বয়সের কারণেই বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এমনটা ঘটে থাকে। 

কী ভাবছেন? আপনি ঠিক কেমনভাবে ঘুমান? প্রতিটি মানুষের ঘুমানোর সময় অবস্থান ভিন্ন ভিন্ন থাকে। আর এই অবস্থানের কারণেই মানুষের শরীর সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর খানিকটা বৃদ্ধি পায়। সেইসঙ্গে, আমাদের বয়স, ব্যক্তিত্ব, সঙ্গী- সবটাই প্রভাবিত করে আমাদের এই শোয়ার অভ্যাসকে। তাই সবটা জানুন, আর মিলিয়ে নিন আপনার শোয়ার অভ্যাস ও আপনার ব্যক্তিত্বকে! 

সূত্র : রিডার্স ডাইজেস্ট
 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ই-মেইল: info@odhikar.news

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড