• সোমবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ৩ পৌষ ১৪২৬  |   ২১ °সে
  • বেটা ভার্সন

ক্ষুদ্র পিঁপড়ার কাছে শেখার আছে অনেক কিছু!

  ডা. মোঃ সাইফুল ইসলাম ২৭ অক্টোবর ২০১৮, ০৮:১৯

পিঁপড়া
ছবি : প্রতীকী

আপনি কখনও কি একটি পিঁপড়ার দৃষ্টিকোণ থেকে আপনার কর্মকাণ্ডকে চিন্তাভাবনা করে দেখেছেন? অর্থাৎ বলতে চাইছি পিঁপড়া যতটুক পরিশ্রম করে, আপনি যদি একটা ক্ষুদ্র পিঁপড়া হতেন তবে কি পিঁপড়ার মতো পরিশ্রম করতে পারতেন? পর্যবেক্ষণ করলে দেখে থাকবেন পিঁপড়া তার চেয়েও অধিক ওজনের বস্তু গুলোকে টেনে নিয়ে যায়। নিঃসন্দেহে কোনো প্রকার যুক্তিতর্ক ছাড়া পিঁপড়া হচ্ছে জগতের সবচেয়ে পরিশ্রমী প্রাণী।

আমরা প্রায় সকলেই জানি পিঁপড়ার মধ্যে অনেকগুলো বৈশিষ্ট্য রয়েছে যেগুলো ভাল নেতৃত্বের জন্য খুবই কার্যকর। যদি কেউ ভাল নেতৃত্ব দিতে চায় তবে পিঁপড়ার কাছ থেকে অনেককিছু শেখার আছে। এই শিক্ষণীয় বিষয়গুলো জানার পরও কতটা ফলপ্রসূভাবে গ্রহণ করছি তাই হচ্ছে ভাবার বিষয়। যা-ই হোক, ভাল নেতৃত্বের জন্য পিঁপড়ার কাছ থেকে যা কিছু শেখা প্রয়োজন সে সম্পর্কে কিছু কথা বলছি-  

ভীত না হওয়া :

পিঁপড়া তাদের কাজ ও লক্ষ্য অর্জনে কখনই ভীত হয় না। তারা তাদের নিজস্ব আকারের চেয়েও অনেক বড় বস্তু দেখেও হতাশ ও ভীত হয় না। অর্থাৎ বস্তুর আকার যত বড়ই হোক পিঁপড়া তা টেনে-হিঁচড়ে অথবা ঠেলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করবে।

অনেকেরই জীবনে অনেক বড় লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য রয়েছে। যদি লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য না থাকে, তবে প্রতিনিয়ত সমস্যায় পড়তে হবে। এই লক্ষ্য অনেক বড় হতে পারে। এমন বড় হতে পারে যা মোকাবেলা করা অনেক কঠিনও হতে পারে। এ অবস্থায় একজন ব্যক্তি সহজেই তার লক্ষ্য থেকে দূরে সরে যেতে পারে। পাশাপাশি খুঁজতে পারে  সহজ কোনো লক্ষ্য। যে লক্ষ্যে পৌঁছানো তার জন্য সহজ হবে।
বাস্তবে এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ যদি আপনি কোনো লক্ষ্য স্থির করেন এবং সেই অনুযায়ী চেষ্টা না করেন, তবে শেষকালে হতাশায় পতিত হবেন। আপনি উৎসাহ হারিয়ে ফেলবেন। তখন ভাববেন এটা কি সত্যিই অর্জন যোগ্য ছিল না? অথবা মনে হবে, আমি কী সত্যিই ভীত ছিলাম?

ভেবে দেখুন, আপনার লক্ষ্য যত কঠিনই হোক না কেন, ইচ্ছা থাকলে উপায় বের হবেই। এক্ষেত্রে আপনি পিঁপড়ার কৌশল ভাবতে পারেন। যেখানে পিঁপড়া অসম্ভবকে সম্ভব করতে সর্বদা প্রচেষ্টা চালায় এবং বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সফল হয়। দেখুন, পিঁপড়া শক্তিশালী বাঘের সামনেও যায় আবার হাতির সাথেও নাকি লড়াই করে! মানুষ কেন পারবে না নিজস্ব মেধাকে কাজে লাগিয়ে পিঁপড়ার মতো সাহসী ও লক্ষ্য অর্জনে আপ্রাণ চেষ্টারত সৈনিক?

ant

দলবদ্ধ কাজের শিক্ষা : 

পিঁপড়ার কাছ থেকে দলবদ্ধভাবে কাজের শিক্ষা অর্জন করা যায়। তারা লক্ষ্য অর্জনের জন্য একে অপরকে সাহায্য সহযোগিতা করে থাকে। কোথাও নেতৃত্বদানের ক্ষেত্রে ও সফল হতে গেলে পিঁপড়ার এই দলবদ্ধ কাজের প্রক্রিয়াটিকে গ্রহণ করতে পারেন। মানুষ যখন দলবদ্ধভাবে কোনো কাজ করে তখন সেই কাজ অবিরত ভাবে চলতে থাকে। ফলে দ্রুত সফলতার শিখরে আরোহন করতে পারে। 

সুসংগঠিত : 

পিঁপড়ার সুসংগঠিত চলাফেরা ও সংঘবদ্ধতাকে লক্ষ্য করে দেখুন। তারা একটি বস্তুকে বহন করার জন্য অনেকগুলো একত্রিত হয় এবং সেটাকে একটি নির্দিষ্ট দিকে নিয়ে যেতে থাকে। এখানে যত বাঁধাই আসুক তারা পথ ছেড়ে দিতে চায় না। চাইলে আপনি তাদের পথে আঙ্গুল অথবা অন্যকোনো কাঠি ফেলে দেখতে পারেন। তাদের চলার পথ সহজে নষ্ট করতে পারবেন না। লক্ষ্যবস্তু যত বড়ই হোক না কেন, তা বহনের জন্য সুসংগঠিত ও সংঘবদ্ধভাবে কাজ করতে থাকে।

আপনার কাজ, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান কিংবা নেতৃত্বের ক্ষেত্রে এই সংঘবদ্ধতা খুঁজে দেখুন। অধীনস্থ কর্মচারীদের দায়িত্বে দেওয়া লক্ষ্য অর্জনের জন্য সংঘবদ্ধতা আছে কী? মানুষ যদি সংঘবদ্ধভাবে কাজ করে তবে নাকি তারা হিমালয় পর্বতকেও নাড়াতে সক্ষম হবে! যদি আপনি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিক হন তবে আপনার অধীনস্থদের লক্ষ্য অর্জনের জন্য সংঘবদ্ধভাবে কাজ করাবেন। তবে আপনি সফল হবেনই।

ভবিষ্যতের জন্য সংরক্ষণ : 

পিপঁড়া বৃষ্টির দিনের জন্য খাবার সংরক্ষণ করে রাখে। এটা প্রায় সকলেই লক্ষ্য করেছেন পিঁপড়া যখন কোনো বড় বস্তু পায় তখন তৎক্ষণাৎ তা থেকে কিছুটা খেয়ে নেয়। অতঃপর বাকিটুকু টেনে হিচঁড়ে নিজের বাসার দিকে নিয়ে যায়। সাধারণত এই খাবার নিয়ে গিয়ে বৃষ্টির দিনের জন্য সংরক্ষণ করে রাখে। 

কেউই জানি না, ভবিষ্যতে কি হতে চলেছে। সুতরাং পিঁপড়ের এই নিয়ম থেকে শিক্ষা গ্রহণ করা যায়। ভবিষ্যতের জন্য কিছু জমিয়েও রাখা যায়। আপনার ভাল নেতৃত্বের দরকার? তবে ভাল গুণাবলি প্রকাশ করুন। দেখবেন তা প্রশংসা আকারে ভবিষ্যতের জন্য জমা হতে থাকবে।

পরিবর্তন বা শিফট করা : 

পিঁপড়া কখনই লক্ষ্য অর্জনের জন্য সবগুলো একই সাথে বাসা বা কলোনি ছাড়া হয় না। তারা দলগতভাবে শিফট বা পরিবর্তনের মাধ্যমে কাজ করে। ফলে তারা সহজে ক্লান্ত হয় না এবং কাজে সফলও হয়।

আপনার কি মনে হয় না, আপনার প্রতিষ্ঠান কিংবা নিজের জীবনে পিঁপড়া থেকে শিক্ষা নিয়ে তার যথাযথ প্রয়োগ করা উচিত? নিঃসন্দেহে বলা যায়, পিঁপড়া থেকে শিক্ষাগ্রহণ করা হলে ভাল নেতৃত্বদানের ক্ষমতা জন্মাবে। উন্নতি হবে আপনার প্রতিষ্ঠানের। সফলতা আসবে লক্ষ্য অর্জনে। প্রসার ঘটবে ব্যবসার। 

সুতরাং পিঁপড়ার দিকে তাকান, গভীরভাবে তাকান এবং সেগুলোর কাছ থেকে শিখুন।

তথ্যসূত্র : অ্যাবাউট লিডার্স ডট কম, লাইফ হ্যাক ডট অর্গ।
 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ই-মেইল: info@odhikar.news

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড