• সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২১ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

প্রতিদিনের যে ভুলগুলো আপনাকে করে তুলছে অসুন্দর!

  সাদিয়া ইসলাম বৃষ্টি

০৯ আগস্ট ২০১৯, ০৮:৫৩
অভ্যাস
ছবি : সম্পাদিত

প্রতিদিন আমরা অভ্যাসবশতই অনেক কাজ করে থাকি যেগুলো আমাদের স্বাস্থ্য ও সৌন্দর্য্য- দুটিরই ক্ষতি করে থাকে। আপনি হয়তো বুঝতেই পারছেন না, অথচ আপনার করা ছোট্ট এই ভুলটিই পরবর্তীতে বড় ধরনের কোনো সমস্যা তৈরি করতে পারে আপনার জন্য। কী সেই ভুলগুলো? চলুন, দেখে নেওয়া যাক- 

আঙুলের হলদে ভাব- 

আপনার কি নিয়মিত নখে নেইলপলিশ ব্যবহার করেন? নেইলপলিশে, বিশেষ করে কমদামি নেইলপলিশে এমন কিছু উপাদান ব্যবহার করা হয় সেটি আমাদের নখে হলদে ভাব ফেলে দেয়। এই সমস্যা থেকে দূরে থাকতে যতটা সম্ভব কম নেইলপলিশ নখে ব্যবহার করুন এবং করলেও খেয়াল রাখুন সেটা যেন ব্র্যান্ডের হয়।

ত্বকের খসখসে ভাব- 

সাধারণত, আমরা মুখ ধোয়ার পর তোয়ালে ব্যবহার করি। কিন্তু এই স্বাভাবিক কাজটিই আমাদের ত্বকে খসখসে ভাব বাড়াতে এবং ত্বকের কোনো সমস্যা তৈরিতে সাহায্য করে। এর বদলে খুব সহজেই আপনি সুতো দিয়ে তৈরি গামছা বা টিস্যু ব্যবহার করতে পারেন মুখ মোছার জন্য। 

অন্তর্বাস পরে ঘুমানো- 

আমাদের মধ্যে অনেকেই অন্তর্বাস পরতে স্বাচ্ছন্দ্যবধ করেন এবং সেটি পরেই ঘুমোতে যান। কিন্তু এই কাজটি কিন্তু আপনার শরীরের জন্য অসম্ভব ক্ষতিকর। এতে করে রাতের বেলা আপনার স্তনের টিস্যু সঙ্কুচিত হয়ে পড়ে। মনে করা হয়, এতে করে ক্যানসারের সম্ভাবনাও অনেক বেড়ে যায়। তাই, চেষ্টা করুন ঘুমের সময় অন্তর্বাস না পরতে। আর সবসময় এমন অন্তর্বাস পরতে যেটি খুব বেশি ছোট বা বড় নয়। 

মেকআপ ব্রাশ পরিষ্কার না করা- 

আপনার সারাদিনের কাজের শেষে সবচাইতে কম প্রাধান্য হয়তো পায় মেকআপ ব্রাশটিই। হয়তো এই কাজটি আপনার জন্য এত বেশি দরকারি কিছু মনে হচ্ছে না। কিন্তু এই অপরিষ্কার ব্রাশ ব্যবহার করার ফলে এতে জীবাণু জন্ম নিতে পারে। আর সেই জীবাণু ধীরে ধীরে অন্যান্য মেকআপের উপাদানে প্রবেশ করে আপনার ত্বকে সংক্রমণ তৈরি করে। তাই চেষ্টা করুন আপনার মেকআপ ব্রাশকে সবসময় পরিষ্কার রাখতে। 

অতিরিক্ত লবণ খাওয়া- 

লবণ সবকিছুতেই থাকে। পনির, তরকারি বা যেকোনো খাবার- কিছুটা লবণ আপনি সেখানে পাবেনই। তারপরেও যদি আপনি বাড়তি লবণ খান, সেক্ষেত্রে এটি আপনার রক্তচাপ কমিয়ে দিতে পারে। আর গবেষণায় দেখা যায় যে, লো ব্লাড প্রেশার আছে এমন নারীদের ত্বকে শিথিলতা অনেক দ্রুত দেখা যায়। 

আই ভ্রু তুলে ফেলা- 

অনেকেই ভাবেন, আই ভ্রু তুলে ফেললে ধীরে ধীরে এটি আরও ঘন ও কালো হবে। বাস্তবে একটা সময় গিয়ে এই তুলে ফেলা আইভ্রু আর নতুন করে জন্মই নেয় না। সেক্ষেত্রে আপনার ভ্রু একেবারেই চিকন ও অস্বাভাবিক গঠনেই হয়ে পড়তে পারে। এই সমস্যা থেকে দূরে থাকতে পরিমিত পরিমাণে আইভ্রু তুলুন। 

রেজর বাথরুমে রাখা- 

আমরা রেজর ব্যবহার করার পর সেটি পরিষ্কার করে বাথরুমেই রেখে আসি সাধারণত। কিন্তু এতে করে আর্দ্র আবহাওয়ায় থাকায় রেজরের ব্লেড দুর্বল হয়ে যায়। ফলে পরবর্তীতে এটি আর ভালোভাবে কাজ করতে পারে না। 

পা তুলে বসা- 

এক পায়ের উপরে অন্য পা তুলে বসতে অভ্যস্ত? এই কাজটি আমরা অনেকেই করে থাকলেও এটি পায়ের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো নয়। এতে করে পায়ের রক্ত চলাচল ক্ষতিগ্রস্ত হয়। শুধু তাই নয়, আঁটসাঁট কাপড় পরিধান করলেও এমনটা হতে পারে।

শেভিংয়ের পরেই ডিওডোরেন্ট ব্যবহার করা- 

শেভ করার পর আমরা অনেকেই ডিওডোরেন্ট ব্যবহার করি। কিন্তু, মূলত এই সময়ে আমাদের লোমকূপগুলো উন্মুক্ত থাকে এবং যা প্রয়োগ করা হয় সেটাকেই শুষে নেই। এতে করে ডিওডোরেন্ট ক্ষতিকর প্রভাব তৈরি করে ত্বকে। চেষ্টা করুন শেভিংয়ের পর শুধু পানি ব্যবহার করতে। 

সুস্থ থাকতে কে না চায়? তাই প্রতিদিনের এই কাজগুলো থেকে বিরত থাকুন। সুস্থ ও সুন্দর হয়ে উঠুন সহজেই। 

সূত্র- ব্রাইটসাইড। 

ওডি/এনএম 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন সজীব 

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড